কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২২ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ কার্তিক, ১৪২৭ | ৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

পিবিআই’র অভিযানে কুমিল্লায় হত্যা ও ধর্ষণ মামলায় আটক ২

পিবিআই লগো

পৃথক অভিযানে পিবিআই কুমিল্লার পুলিশ সদস্যরা হত্যা মামলার আসামী ও ধর্ষণ মামলার আসামী ২জনকে আটক করেছে। আটককৃত ধর্ষণ মামলার আসামী আবু বক্কর প্রকাশ আবুকে (২৮) কোতয়ালী থানার বাতাইছড়ি এলাকা থেকে এবং হত্যা মামলার আসামী আবুল কাশেমকে (৪২) নাঙ্গলকোট থানার দৌলখাড় এলাকা থেকে আটক করা হয়।

আটককৃত ধর্ষণ মামলার আসামী আবু বক্কর প্রকাশ আবু কোতয়ালী থানার কালির বাজার (রুস্তম মেম্বার বাড়ী) এলাকার আবুল কাশেম ও রওশন আরা বেগমের ছেলে এবং আবুল কাশেম নাঙ্গলকোট থানার দৌলখাড় এলাকার মৃত আব্দুল খালেকের ছেলে। চলতি বছরের আগষ্টের ৩ তারিখ দায়ের কৃত দুই মামলার মধ্যে আবু বক্কর আবু ধর্ষণ মামলার এজাহার নামীয় ১নং আসামী এবং আবুল কাশেম হত্যা মামলার এজাহার নামীয় ২নং আসামী।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত জুলাই মাসের ১১ তারিখ ধর্ষণ মামলার বাদী কুলসুম আক্তারকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে আবু বক্কর। উক্ত ঘটনায় আগষ্টের ১৭ তারিখ বাদী কুলসুম বেগম কোতয়ালী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করে (মামলা নং-৬১)। মামলাতে বাদী উল্লেখ করেন ঘটনার দিন বাদীনির ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে এবং ধর্ষনের পূর্বে বাদীনির বিবস্ত্র অবস্থার দৃশ্য আসামীর মোবাইলে ভিডিও চিত্র ধারণ করে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়।

অপর অভিযানে আটক কৃত আসামী গত ২৪ মে ২০১৭ইং তারিখ মার খেয়ে সামাজিকভাবে প্রতিকার চেয়ে প্রতিকার না পেয়ে ক্ষোভে দু:খে বিষ পানে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। তাকে ঐ দিন হাসপাতালে ভর্তি করলে ২৬ মে ২০১৭ ইং প্রথমে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সকাল সাড়ে ছয়টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। পরে নিহতের মা জায়েদা বেগম (৪২) ২০১৭ সালের আগষ্টের ৩ তারিখ নাঙ্গলকোট থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে (মামলা নং-০১)।

পিবিআই কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ওসমান গনি পিপিএম জানান, আমাদের অফিস মামলা দুইটির দায়িত্ব পাওয়ার পর আসামীদের গ্রেফতারে তৎপর ছিল। গত ০৩ সেপ্টেম্বর গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নাঙ্গলকোট থানা থেকে আবুল কাশেমকে এবং কোতয়ালী থানা থেকে আবু বক্কর আবুকে গ্রেফতার করে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের পর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন