কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৯ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ কার্তিক, ১৪২৭ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

কুমিল্লায় আধিপত্যের জের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে নিহত ২

নিহতের স্বজনদের আহাজারী

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্রকরে বিরোধের জের ধরে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ২জন নিহত হয়েছে।শনিবার ভোরে উপজেলার শিদলাই গ্রামের দক্ষিণ পাড়ায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন ওই গ্রামের মৃত অদুদ মেম্বারের ছেলে খোরশেদ আলম (৫৫) ও শিরু মিয়ার ছেলে শুকুর মিয়া ওরফে সানু (৫০)। খোরশেদ ঘটনাস্থলে এবং শুকুর কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তারা দু’জন একই গ্রুপের বলে জানা গেছে।

এছাড়াও সংঘর্ষে দুই গ্রুপের অন্তত ১০জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানাগেছে। তাদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। বাকিদের ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ব্রাহ্মণপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আবু মোঃ শাহজাহান নতুন কুমিল্লকে জানান, দু’জনের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিহত খোরশেদ আলম ও সানু মিয়া / নতুন কুমিল্লা

পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে শিদলাই গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে উল্লেখ করে ওসি শাহজাহান বলেন, পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে। কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ ঘটনাস্থলে এসেছেন।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, ব্রাহ্মণপাড়ার শিদলাই গ্রামে দীর্ঘ কয়েক বছর যাবৎ দুটি গ্রুপ ‘বড় দল’ ও ‘ছোট দলে’ বিভক্ত রয়েছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে গ্রুপ দু’টি প্রায়ই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। গতবছর এরকমই একটি সংঘর্ষে প্রাণ হারান ‘বড় দলের’ লিডার মফিজুল ইসলাম। এরপর থেকেই ‘ছোট দলের’ লোকজন মামলার ভয়ে এলাকা ছাড়া ছিলো।

কিন্তু শনিবার ভোরে হঠাৎ করেই তারা জড়ো হয়ে বড় দলের সমর্থকদের বাড়ি-ঘরে হামলা চালাতে শুরু করে। বড় দলও চালায় পাল্টা আক্রমণ। শুরু হয় ধাওয়া-পাল্টা ধাও। এ সময় টেটা-বল্লম-রাম দাসহ দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত একই গ্রামের একই পাড়ার দুটি গ্রুপের এ সংঘর্ষ চলে প্রায় দুই ঘন্টা। এর এক পর্যায়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান ছোট দলের খোরশেদ আলম। তার দুই পায়ের উরু থেকে গোড়ালি পর্যন্ত অসংখ্য টেটার আঘাতের ক্ষত দেখা গেছে। এছাড়াও কেটে ফেলা হয় তার দুটি পায়ের রগও।

সংঘর্ষে গুরুতর আহত ছোট দলের শুকুর মিয়াকে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে নেয়ার কিছুক্ষণ পড় মারা যান তিনিও। শুকুর মিয়ার শরীরে কয়েকটি টেটার আঘাতের চিহ্ন ছাড়াও তার ডান পায়ের রগ কেটে ফেলা হয় বলে জানা গেছে।

দু’টি গ্রুপের সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১০জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে জহির, কাউসার, আবুল হোসেন, রুহুল আমিন ও রিপনকে কুমেক হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এছাড়াও গুরুতর আহত ২ জনকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন