কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২২ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ কার্তিক, ১৪২৭ | ৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

বন্ধ হোক সাংবাদিক নির্যাতন

সংবাদপত্র জাতির দর্পন। এই দর্পনকে যারা ঝকঝকে তকতকে রাখে তারা হলো-সাংবাদিক ও সংবাদকর্মী। সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীরা জীবনের ঝুকি নিয়ে দিন-রাত পরিশ্রম করে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করে। নিজের স্বার্থকে পরিত্যাগ করে অপরের কল্যাণ ও স্বার্থরক্ষার জন্য কঠোর পরিশ্রম করে। নির্যাতিত ও নিপীড়িত মানুষের প্রতিধ্বনী হিসেবে কাজ করে সংবাদপত্র ও সাংবাদিকরা। কোন সাধারন মানুষ যখন নির্যাতনের শিকারের পর বিচারপ্রার্থী হয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়ায় ন্যায় বিচার পাওয়ার প্রত্যাশায়।

কিন্ত যখন কারো কাছ ন্যায্য বিচার না পায় তখন সাংবাদিকদের নিকট আশ্রয় গ্রহন করে। সাংবাদিকরা তাদের কলমের মাধ্যমে নির্যাতিত ও নিপীড়িত মানুষের চিত্র জাতির সামনে তুলে ধরে ন্যায় বিচার পাওয়ার ব্যবস্থা করে দেয়। দুর্নীতি ও অপকর্মের চিত্র তুলে ধরে দেশ ও জাতির কল্যাণে নিরলস পরিশ্রম করে যায় কিন্ত বিনিময়ে কি পায়? বিশেষ করে মফস্বলের সাংবাদিকরা কি পায়? তাদের ভাগ্য কি ঝুটে? কোন কোন সময় যে পত্রিকার জন্য তারা পরিশ্রম করে সেই পত্রিকার কর্তৃপক্ষও তার পাশে থাকে না। তার দূর্দিনে কাউকে কাছে পায় না। হামলা-মামলা, নির্যাতন-নিপীড়ন তাদের নিত্যসঙ্গী। সবকিছু মাথায় রেখে তারা দেশ ও জাতি এবং সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করে যায়।

এখন প্রশ্ন হলো: সাংবাদিক ও সংবাদকর্মী মারলে বা পিটালে অথবা হত্যা করলে কি হয়? তারা কি কখনো ন্যায্য বিচার পায়, তাদের জীবনের কোন নিরাপত্তা আছে; তাদের পরিবার-পরিজনের নিরাপত্তা আছে; রাষ্ট্র বা রাষ্ট্রের কর্তা ব্যক্তিরা কখনো কি তাদের নিরাপত্তার জন্য কখনো কোন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেছে? রাষ্ট্রের সহায়ক হিসেবে তারা কাজ করে যায় অথচ তাদের স্বীকৃতি বলতে নেই। তাই সময় এসেছে সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় আইন তৈরী করা। সকল সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে দাবী তোলা উচিৎ-সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় আইনসহ যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অধিকার হিসেবে রাষ্ট্রের নিকট প্রস্তাব উপস্থাপন করা। অন্যথায় যুগে যুগে সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীরা মার খেতে থাকবে ও নির্যাতন এবং নিপীড়নের শিকার হবে।

সাংবাদিক দম্পত্তি সাগর-রুনি নিজ বাসায় নির্মম ভাবে খুন হলো কিন্ত আজও তার সত্য উম্মোচন হলো না, রহস্যই রয়ে গেলে। তাদের হত্যার প্রতিবাদে সারা দেশের সাংবাদিকরা মানববন্দন, প্রতিবাদ সভা করল কিন্ত কাজের কাজ কিছুই হলোনা, বিষয়টি অধরাই থেকে গেল।

আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের উপর প্রকাশ্য দিবালোকে আদালতের চত্বরে হামলা হলো আর মামলার তো শেষই নেই। আরেক সাংবাদিক নেতা শওকত মাহমুদের মাথায়ও রয়েছে মামলার বোঝা। তারা অবশ্য সাংবাদিকদের জাতীয় পর্যায়ের নেতা। তাদের উপর হামলা হলে প্রতিবাদের ঝড় উঠে। আলাপ আলোচনা হয়। কিন্ত যারা মফস্বলের সাধারণ সাংবাদিক ও সংবাদকর্মী-তাদের উপর যখন হামলা হয়, মিথ্যা মামলা শিকার হয় তখন প্রতিবাদ করার মতো কেউ থাকে না। প্রতিনিয়ত কোথাও না কোথাও সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীরা নির্যাতন এবং নিপীড়নের শিকার হচ্ছে।

হ্যাঁ! কিছু কিছু সাংবাদিক ও সংবাদকর্মী নামধারী রয়েছে যারা চাঁদাবাজি করে থাকে-সেটা অবশ্য ব্যতিক্রম। প্রত্যেকটি পেশায় কিছু না কিছু দুষ্কৃতিকারী থাকে। যারা সংশ্লিষ্ট পেশাকে কুলষিত করে। আমার উপজেলায়ও কিছু সাংবাদিক রয়েছে। যারা ধরেন ফেরিওয়ালদের মতো। লাজ-লজ্জা বলতে কিছুই নেই। ইজ্জত-সম্মান মনে হয়ে ধূলায় মিশিয়ে দিয়েছে। এদের কথা বলে লাভ নেই। এরা যুগে যুগে মীরজাফরের ভূমিকায় ছিল এবং আগামীতে থাকবে। তাদের কাছে নিয়ম-নিতী বলতে কিছুই নেই।

আমার জানা মতে, কোন এক সাংবাদিককে সংশ্লিষ্ট উপজেলা চেয়ারম্যান তার কর্মী বাহিনী দিয়ে আচ্ছা মতো মারধর করেন। আমরা তার উপর হামলার বিচারের দাবীতে আন্দোলন শুরু করি। কিন্ত ঐ বেহায়ার বাচ্চা রাতের আঁধারে লাজ-লজ্জার মাথা খেয়ে আপোষ হয়ে যায়। পরবর্তীতে ঐ চেয়ারম্যান সাহেবের পা চাটা কুকুর হয়ে কাজ শুরু করে। এই হলো সাংবাদিক নামধারী কিছু কিট-প্রত্যঙ্গের দল।

নিরাপদ সড়কের দাবীতে কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রীদের আন্দোলনের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে সাংবাদিকরা হামলার শিকার হয়। কিন্ত পুলিশ বা সংশ্লিষ্ট প্রশাসন হামলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি। যদিও হামলাকারীদের ছবি বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশ হয়েছে। এই কার্যক্রম থেকে বুঝা যায়- সাংবাদিক মারলে কি হয়? কিছুই হয় না। বরং বিভিন্ন সময় দেখা যায়-সাংবাদিক ও সংবাদকর্মী নিপীড়নকারীদেরকে পুরষ্কৃত করা হয়। তাই সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের নির্যাতন বন্ধ হচ্ছে না। ক্ষমতার দাপটের কাছে নিতীর বাক্য অহসায় হয়ে যায়। সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের নিরাপত্তার স্বার্থে প্রয়োজনীয় আইন প্রনয়ন করা খুবি জরুরী।

লেখক:  সাধারণ সম্পাদক, বুড়িচং প্রেস ক্লাব,বুড়িচং,কুমিল্লা।
            E-mail: kazi.khurshed77@gmail.com

আরও পড়ুন