কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

চান্দিনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বহিরাগতদের হামলায় ভাংচুর

প্রতীকী ছবি

চান্দিনায় একটি বিদ্যালয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে হৃদয় ঘটিত বিষয়কে কেন্দ্র করে বিদ্যালয়ে হামলা চালিয়েছে বহিরাগতরা। এসময় বহিরাগতরা বিদ্যালয়ের শিক্ষক কক্ষে ভাংচুর করে দুই শিক্ষক ও এক ছাত্রকে লাঞ্ছিত করে।

রবিবার সকালে উপজেলার মাধাইয়া ছাদিম উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। আহত শিক্ষার্থী আরিফুল ইসলাম (১৬) চান্দিনার মাধাইয়া ইউনিয়নের আলিরটেক গ্রামের আবুল হোসেন এর ছেলে। সে মাধাইয়া ছাদিম উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র।

বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক মাসুদুজ্জামান জানান, সকাল ৯টায় শিক্ষার্থী আরিফ কোচিং কাসে আসার সময় বিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে বহিরাগত ৮-১০ যুবক তাকে এলোপাথারী মারধর করছিল। আমি তখন কোচিং কাসে ছিলাম। তাৎক্ষনিক ভাবে বিষয়টি আমি জানতে পেরে বিদ্যালয়ে সহকারি শিক্ষক ছিদ্দিকুর রহমানকে সাথে নিয়ে আমরা বিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে থেকে আমাদের ছাত্রকে উদ্ধার করে শিক্ষক কক্ষে নিয়ে আসি। কিছুক্ষণ পর বহিরাগতরা বিদ্যালয়ে প্রবেশ করে শিক্ষক কক্ষে ঢুকে আরিফকে আবারও মারধর শুরু করে এসময় আমরা বাঁধা দিলে আমাদেরও লাঞ্ছিত করে। এসময় তারা আমাদের বিদ্যালয়ের কম্পিউটার সহ মালামাল ভাংচুর করে চলে যায়।
বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ছিদ্দিকুর রহমান জানান, আমরা ছেলেটিকে উদ্ধার করে শিক্ষক রুমে ঢুকিয়ে দরজা বন্ধ করে ওই দরজার সামনে আমরা দাড়িয়েছিলাম। কিন্তু বহিরাগত বখাটেরা আমাদের ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দরজায় লাথি মেরে শিক্ষক কক্ষে প্রবেশ করে দ্বিতীয় বারের মত হামলা চালায়। এসময় আমরা আমাদের সন্তানতুল্য শিক্ষার্থীকে বাঁচাতে গেলে সেখানে আমাদেরও লাঞ্ছিত করে।

শিক্ষক ছিদ্দিকু রহমান আরও জানান, পরবর্তীতে জানতে পাই একই শ্রেণীর এক ছাত্রীর সাথে কোন একটি বিষয় নিয়ে ঝামেলা হয় ছাত্র আরিফুল ইসলামের। এ ঘটনায় ছাত্রীর ভাই মাধাইয়া মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি কলেজ এর ছাত্র রুহুল আমিন দল-বল নিয়ে এ হামলা চালায়।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন জানান, আমি বিদ্যালয়ে আসার পর এ খবর শুনে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ সভাপতি আলাউদ্দিন আল আজাদ মমতাজ ও থানার অফিসার ইন-চার্জকে বিষয়টি জানাই। খবর পেয়ে চান্দিনা থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেন। নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে রবিবারের জন্য বিদ্যালয় ছুটি ঘোষনা করেছি। আগামীদিন (সোমবার) আমরা বিদ্যালয়ের জরুরী মিটিং আহবান করেছি। মিটিংয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে চান্দিনা থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মুহাম্মদ শামছুল ইসলাম জানান, মূলত ছাত্র-ছাত্রীর হৃদয় ঘটিত বিষয়কে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষ ঘটেছে। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সোমবার সভা আহবান করে এর সুষ্ঠু সমাধান করতে ব্যর্থ হলে পরবর্তীতে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

আরও পড়ুন