কুমিল্লা
শনিবার,২৪ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৮ কার্তিক, ১৪২৭ | ৬ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

কুমিল্লায় স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রী-সন্তানকে অপহরণের অভিযোগ!

লাকসামে স্বামীর বিরুদ্ধে স্ত্রী-সন্তানকে অপহরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় রোববার সকালে শাশুড়ী বকুল বেগম বাদী হয়ে মেয়ের জামাতা নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ির বগাদিয়া গ্রামের মৃত.সুরুজ মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেনসহ ৫জন কে অভিযুক্ত করে লাকসাম থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার গোবিন্দপুর ইউপির ভাটবাড়ীয়া হাজী বাড়ীতে।

অভিযোগ সুত্রে জানাযায়,গত শনিবার রাতে মেয়ের জামাতা আলমগীর হোসেন, মাতা খোদেজা বেগম, বোন ছালেহা বেগম, সহপাঠি আবদুল মান্নান ও তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম একটি কালো রংয়ের হাইএস মাক্রোবাস নিয়ে স্ত্রী পিংকি আক্তার ও মেয়ে সাবেকুন নাহার আইমন (৬)কে জোরপুর্বক তুলে নেয়। তাদের চিৎকার শুনে শাশুড়ি বকুল বেগম গতিরোধ করার চেষ্টা চালায়। এসময় মেয়ের জামাতা ও তার সহযোগীরা ধারালো অস্ত্রদিয়ে তাদেরকে আঘাত করে স্ত্রী ও কন্যাকে নিয়ে পালিয়ে যায়।অস্ত্রের আঘাতে শাশুড়ি বকুল বেগম(৫৫), স্ত্রীর ভাই মাইন উদ্দিন, চাচাত ভাই সাহাব উদ্দিন ও সেতারা বেগম গুরুতর আহত হন। আহতদেরকে লাকসাম হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। ঘটনার পর পর লাকসাম থানা পুলি কে বিষয়টি অবহিত করা হয়। পরে রোববার সকালে শাশুড়ি বকুল বেগম বাদী হয়ে লাকসাম থানায় মেয়ের জামাতাসহ ৫জন কে অভিযুক্ত করে একটি অভিযোগ দায়ের করে।

শাশুড়ি বকুল বেগম আরো জানান, ২০১২সালে নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ি উপজেলার বগাদিয়া গ্রামের মৃত সুরুজ মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেনের সাথে বিয়ে হয় কুমিল্লার লাকসামের ভাটবাড়ীয়া গ্রামের মীর হোসেনের মেয়ে পিংকি আক্তারের সাথে। বিয়ের পর তাদের সংসারে সাবেকুন নাহার আইমন(৫) ও তানহা আক্তার আইভি(২)নামে দু’টি কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। দ্বিতীয় মেয়ের জন্মের পর স্বামী আলমগীর ভরণ-পোষণ দেয়া বন্ধ করে দিয়ে প্রতিনিয়ত শারিরিক ও মানুষিক নির্যাতন চালাতে থাকে। স্বামীর অত্যাচার সইতে না পেরে সোনাইমুড়ি থানায় ২মাস পুর্বে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। থানায় অভিযোগের পর নির্যাতন আরো বেড়ে যাওয়ায় স্বামীর সংসার ছেড়ে দুই কন্যা সন্তান নিয়ে পিতার বাড়ীতে আশ্রয় নেয় এবং স্বামীকে তালাক দিয়ে পত্র পাঠিয়ে দেয় স্ত্রী পিংকি আক্তার ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মামলা বিষয়টি নিশ্চিত করে লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোজ কুমার দে বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। স্ত্রী ও সন্তান উদ্ধারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন