কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

কুমিল্লায় ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সাথে মতবিনিময়

কুমিল্লা আলেখারচর বিশ্বরোডে অবস্থিত কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্স। যা বৃহত্তর কুমিল্লা অঞ্চলের ঔষধ ব্যবসায়ীদের অন্যতম ঔষধ ক্রয়-বিক্রয়ের নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান। শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বাংলদেশ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ও ঔষধ ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় সভা কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সের হল রুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্স মালিক সমিতির সভাপতি বজলুল করিম উপস্থিত সকলের সম্মুখে কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সকে ঔষধ ক্রয়-বিক্রয়ে শতভাগ নকল ও ভেজালমুক্ত ঘোষণা করেন।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো: মোস্তাফিজুর রহমান। সভাপতিত্ব করেন কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সের মালিক সমিতির সভাপতি বজলুল করিম। উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা জেলা ড্রাগ সুপার মো: হারুনুর রশিদ, নোয়াখালী জেলা ড্রাগ সুপার হোসাইন মো: ইমরান, কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড.মাহবুবর রহমান, চাঁদপুর, মৌলভী বাজার ও সিলেট জেলার ড্রাগ সুপারগণ, কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সের কার্যনির্বাহী কমিটির সকল সদস্যগণ, ব্যবসায়ীগণ, কর্মকর্তা, সাংবাদিক ও বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানীর কর্মকর্তাগণ।

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি বক্তব্যে বাংলাদেশ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো: মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমরা সারা দেশে একযোগে ভেজাল ও নকল ঔষদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে আসছি। ইনশাআল্লাহ অচিরেই আমরা সারাদেশের মার্কেটগুলোতে আপনাদের মত ঔষধ ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে সংশ্লিষ্ট লোকদের সহযোগিতা নিয়ে ভেজাল ও নকলমুক্ত করতে পারবো। একটা ভেজাল ও নকল ঔষধ একটি মানুষকে ধ্বংশ করে। তাই এটা কোনো ব্যবসায়িক কাজ হতে পারেনা। এ ধরনের কার্যক্রম দেশ ও জাতীকে পিছিয়ে দেয়ার একটি মাধ্যম। তাই মার্কেটগুলোতে ভেজাল ও নকল ঔষধ ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়ের শাস্তি রেখে আমাদের অভিযান কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, নকল ও ভেজাল ঔষধ বিক্রয়ে আমাদের কোনো কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায় তাহলে আমরা তার বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেব।

পরে সকলকে সত্য ও ন্যায়ের পথে থেকে ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনার আহবান জানান এবং ভেজাল ও নকলমুক্ত ঔষধ ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর সবসময় আপনাদের পাশে আছে ও থাকবে। তিনি কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সের পুরো ভবন সিসি ক্যামেরাসহ সামগ্রিক ব্যবসায়িক নিরাপত্তার উদ্যোগ দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং তা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান। পাশাপাশি উক্ত অভিযান অব্যাহত রেখে প্রতি সপ্তাহে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরকে রিপোর্ট প্রদানের আহবান জানান।
সভার সভাপতি বজলুল করিম বলেন, কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্স বৃহত্তর কুমিল্লা অঞ্চলের ঔষধ ব্যবসায়ীদের একটি বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান। আমাদের এ কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠার পর থেকে আমরা ভেজাল ও নকলমুক্ত ঔষধ ক্রয়-বিক্রয়ের অঙ্গিকার নিয়ে ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছি। আমাদের ব্যবসায়িক কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমি আজ উপস্থিত সকলের সামনে ঘোষণা দিচ্ছি যে, কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সে ঔষধ নকল ও ভেজালমুক্ত। যদি কোনো ব্যবসায়ী নকল ও ভেজাল ঔষধ ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে সংশ্লিষ্টতা কখনো পাওয়া যায় তাহলে আমরা তাৎক্ষণিক তাকে এ মার্কেট থেকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করব। পরে তিনি আগত সকল অতিথি এবং উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান এবং কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সের সুনাম অব্যাহত রেখে যেনো ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালিত হয় সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

ব্যবসায়ীদের পক্ষে কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সের মালিক সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য বাবু নিখিল চন্দ্র দত্ত বলেন, আমাদের এ কমপ্লেক্সটি অত্র অঞ্চলের ঔষধ ব্যবসার অন্যতম। আমরা সবসময় মার্কেটটিকে ব্যবসায়ীসহ সকল মানুষের কাছে নকল ও ভেজাল ঔষধমুক্ত পরিচিত করতে প্রাণপন প্রচেষ্টা চালিয়ে আসছি। এ বিষয়ে আমরা কখনো আপোষ করবনা।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে কুমিল্লা মেডিসিন কমপ্লেক্সের মালিক সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য জুলফিকার আগা বাসেত বলেন, কুমিল্লার গণমানুষের নেতা ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি বলেছেন, কুমিল্লা এগুলে বাংলাদেশ এগুবে। প্রিয় নেতার সাথে আমরা একাত্মতা পোষণ করে বলছি কুমিল্লায় ঔষধ ব্যবসা নকল ও ভেজালমুক্ত থেকে ব্যবসায়িক কার্যক্রম এগুলে বাংলাদেশের ঔষধ ব্যবসা এগুবে।

আরও পড়ুন