কুমিল্লা
সোমবার,২৬ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১০ কার্তিক, ১৪২৭ | ৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

পাঠদানে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার ও আমাদের বাস্তবতা

বর্তমান সরকারের যুগান্তকারী পদক্ষেপসমূহের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ অন্যতম অগ্রাধীকারপ্রাপ্ত সেক্টর। এরই ধারাবাহিকতায় শিক্ষাক্ষেত্রেও লেগেছে প্রযুক্তির বৈপ্লবিক ছোঁয়া। এরই অংশ হিসেবে শ্রেণীকক্ষে পাঠদানের ক্ষেত্রেও ব্যবহৃত হচ্ছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসমূহ। বিষয়টি অবশ্যই শিক্ষার প্রসারে ইতিবাচক অবদান রাখতে পারে। শিক্ষার্থীদের কাছে জটিল বিষয়গুলো সহজে বোধগম্য করে তোলা, বিশেষ করে বিজ্ঞানের জটিল বিষয়গুলো ও গণিত বা অর্থনীতির বিভিন্ন গাণিতিক ফিগারগুলো চিত্রের মাধ্যমে উপস্থাপন করা, ইতিহাসের অডিও-ভিজুয়াল উপস্থাপনার মাধ্যমে সহজে মনে গেঁথে দেয়াসহ নানাভাবে প্রযুক্তি আজ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের করছে ব্যপক সহায়তা। শ্রেণীকক্ষে প্রযুক্তির এ অসামান্য অবদান প্রসংশনীয়। কিন্তু কিছু বাস্তবতা বিবেচনায় আনা গেলে ডিজিটাল শিক্ষাদান হতে পারে অধিকতর ফলপ্রসু।

প্রথমত, প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর শ্রেণীকক্ষের মিথস্ক্রিয়া হ্রাস পাচ্ছে কিনা সে ব্যাপারে লক্ষ্য রাখতে হবে। গবেষণায় দেখা যায়, ডিজিটাল স্ক্রিণ নির্ভর শিক্ষাদান পদ্ধতির প্রতি অতি নির্ভরশীলতা শিক্ষক-শিক্ষার্থীর মধ্যকার মানবিক যোগাযোগকে ব্যাহত করে। গবেষণার প্রস্তাবনায় তাই প্রযুক্তির ব্যবহারকে অস্বীকার নয়, বরং এটি ব্যবহারের পাশাপাশি যাতে মানসিক মিথস্ক্রিয়ার দিকে শিক্ষকরা খেয়াল রাখেন, শিক্ষার্থীদের সাথে প্রাঞ্জলভাবে যেকোন বিষয় উপস্থাপন করেন, গল্পের ছলে যেকোন জটিল বিষয় তুলে ধরেন সেদিকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

দ্বিতীয়ত, পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের উপর অতি নির্ভরতার ফলে পাঠ্যবই পড়ার অভ্যাস ক্রমশ হ্রাস পাচ্ছে বলে প্রতীয়মান হয়। মূল্যায়ন পরীক্ষার সময় কেবলমাত্র পাওয়ার পয়েন্ট পড়েই সহজে ভাল ফলাফল করলেও বিষয়টি সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান অর্জিত হয়না। এর ফলে উচ্চ শিক্ষা অর্জনের সময় মৌলিক জ্ঞানের ব্যপক ঘাটতি রয়ে যায়।

তৃতীয়ত, প্রযুক্তির অতি নির্ভরতা শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগত নানা ধরনের দক্ষতা অর্জনকেও বাধাগ্রস্থ করে। শিক্ষা মনোবিজ্ঞানের অনেক গবেষনায় দেখা যায় যে শিক্ষার্থীর কল্পনাশক্তি (Imagination Capability) ও সৃজনশীলতার চর্চাকে বাধাগ্রস্থ করে প্রযুক্তির অতি নির্ভরশীলতা।

উন্নত দেশগুলো আমাদের দেশের অনেক আগেই যদিও প্রযুক্তিতে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে ওঠেছে, তথাপি সেখানে রয়েছে প্রযুক্তির বাইরেও শ্রেণীকক্ষে রয়েছে নানা ধরনের সৃজনশীলতার চর্চা। যেমন, ব্রেইন স্টর্মিং, দলগত আলোচনা (Group Discussion) , প্রকৃতির সান্নিধ্যে নিয়ে শিক্ষাদান (Naturalistic Learning) সহ অনেক বিজ্ঞানসম্মত ফলপ্রসু শিখন পদ্ধতি। একটি উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, সাম্প্রতিক সময়ে প্রাথমিক শিক্ষায় গত দশ বছরে বিশ্বের সেরা দেশের তালিকায় প্রথম স্থানে থাকা ফিনল্যান্ড ঘোষণা করেছে যে একটি নির্দিষ্ট শ্রেনীর পর থেকে হাতের লেখার মাধ্যমে পরীক্ষা গ্রহণ পদ্ধতি চালু থাকবেনা; পুরোটাই হবে কম্পিউটারাইজড। কিন্তু তারপরও তাদের শিক্ষাব্যবস্থা শুধুমাত্র বিশ্বে একটি কারণেই সেরা- তা হলো প্রযুক্তির পাশাপাশি বিভিন্ন গবেষণালব্দ মানবিক পদ্ধতির ব্যবহার।

২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার এগিয়ে চলছে দূর্বার গতিতে। এ উন্নয়নের অন্যতম হাতিয়ার হলো নতুন প্রজন্মের সঠিক শিক্ষা অর্জন করে তা দেশ ও জাতির প্রয়োজনে কাজে লাগানো। বিশ্বের উন্নয়নের সাথে তাল মিলিয়ে অবশ্যই পাঠদানে ডিজিটাল পদ্ধতির ক্রমশ উন্নয়ন ঘটাতে হবে। কিন্তু পাশাপাশি এটাও মনে রাখতে হবে শিক্ষার্থীরা যেন যন্ত্রের বিপুল আয়োজনে অতি যান্ত্রিক হয়ে না ওঠে। যন্ত্রে দক্ষতা আর মমনে মানবিকতা এই যেন লক্ষ্য হয় আজকের ডিজিটাল পাঠদানের মূল উদ্দেশ্য।

লেখক: জেলা প্রশাসক, কুমিল্লা।

আরও পড়ুন