কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২০ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৪ কার্তিক, ১৪২৭ | ২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

কুমিল্লায় প্রসবের সময় নবজাতকের মাথা বিচ্ছিন্নের ঘটনায় দু্ইজন বরখাস্ত

কুমিল্লার দেবিদ্বারে প্রসবের সময় নবজাতককে তিন খণ্ড করার ঘটনায় দুইজনকে চাকরি থেকে সময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৫ সেপ্টেম্বর) কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন সরেজমিন দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বিষয়টি তদন্ত করতে যান। তদন্ত শেষে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রাথমিকভাবে এক পরিচ্ছন্নতা কর্মী ও আয়াকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়। জেলা সিভিল সার্জন ডা.মো. মজিবুর রহমান নতুন কুমিল্লাকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

বরখাস্তরা হলেন, দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিচ্ছন্নতা কর্মী শিরিন আক্তার ও আয়া জেসমিন আক্তার ডলি।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান বলেন, ‘গত শনিবার রাতে ফাতেমা বেগম নামে এক প্রসুতি দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। সিনিয়র নার্স আছিয়া আক্তার ও ঝরনা বেগম এবং আয়া জেসমিন আক্তার ডলি তার প্রসবের চেষ্টা করার সময় নবজাতককে তিন খণ্ড করে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি তদন্ত করার জন্য সোমবার কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন অফিস ও দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পৃথক দুইটি তদন্ত কমিটি করে।

মঙ্গলবার বিষয়টি সরেজমিন তদন্ত করতে আমি দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়েছি। তদন্ত শেষে প্রাথমিক বিবেচনায় দুইজনকে দায়িত্ব অবহেলার কারণে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া ওই সময় দায়িত্বে থাকা দুই সিনিয়র নার্স আছিয়া আক্তার, ঝরনা বেগমের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

তিনি আরও বলেন, প্রসবের সময় নবজাতককে তিন খণ্ড করার ঘটনাটি সুষ্ঠু তদন্ত শেষে যার যেই দোষী প্রমাণিত হবে এবং যার বিরুদ্ধেই দায়িত্বে অবহেলার প্রমাণিত তার বিরুদ্ধেই বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, রবিবার সকালে হাসপাতালের ডাস্টবিন থেকে নবজাতকের খণ্ডিত দেহ উদ্ধার করা হয়। প্রসবের সময় দুই নার্স ও আয়া টানাটানি করে নবজাতককের দেহ বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। পরে তা ডাস্টবিনে লুকিয়ে রাখে। পথচারীরা নবজাতকের খণ্ডিত দেহ ডাস্টবিনে পড়ে থাকতে দেখার পর এই নিয়ে আলোচনার ঝড় উঠে। প্রথমে হাসপাতালের কেউ স্বীকার না করলেও পরে জিজ্ঞাসাদে তা বেরিয়ে আসে।

 

আরও পড়ুন…
কুমিল্লায় প্রসবের সময় নবজাতকের মাথা বিচ্ছিন্ন!

আরও পড়ুন