কুমিল্লা
বুধবার,১২ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৯ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৯ রমজান, ১৪৪২

চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত কয়েক লক্ষ মানুষ:

নানা সমস্যায় জর্জরিত বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স/ ফাইল ছবি

কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি নানা সমস্যায় জর্জরিত থাকায় ৯টি ইউনিয়নের কয়েক লক্ষ মানুষ চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ডাক্তার,নার্স ও ফিল্ড কর্মীসহ ৩৭টি পদ শুন্য থাকায় এবং প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির অভাবে চিকিৎসা সেবা প্রদান করতে পারছে না দায়িত্বশীলরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়,দীর্ঘদিন ধরে ৩৭টি পদ শুণ্য থাকায় এবং প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম সরবহরাহ না থাকায় সঠিক চিকিৎসা সেবা পাচ্ছে না উপজেলার প্রায় ৩ লক্ষ মানুষ। এফ.ডব্লিউ.সি পদ শূন্য রয়েছে ৫টি,সহকারী ডেন্টাল সার্জন পদ শুন্য ১টি, স্বাস্থ্য সহকারী পদ শুন্য ২৬টি, এ এইচ আই পদ শুন্য ১টি,এসএসসিএমও পদ শুন্য ১টি, সিনিয়ার স্টাফ নার্সের পদ শূন্য ১টি, ডাক্তার পদ শুন্য ১টি। এছাড়া ৪টি এম্বুলেন্সের মধ্যে ২টি অচল হয়ে আছে। এম্বুলেন্সের ভাড়া প্রতি কিলোমিটারের আসা-যাওয়ার জন্য সরকারী ভাবে ২০ টাকা ধার্য থাকলেও রোগীদের আত্মীয়-স্বজনদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করার অভিযোগ রয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরে জেনারেটরটি অকেজো হয়ে থাকায় বিদ্যুৎ চলে গেলে রোগীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। বিদ্যুৎ চলে গেলে হারিকেন অথবা মোমবাতির উপর ভরসা করতে হয় রোগীদেরকে। এক্স-রে মেশিনম্যান থাকলেও কমপ্লেক্সের মধ্যে আজ পর্যন্ত কোন রোগীর এক্স-রে হয়নি। রোগীদেরকে একান্ত বাধ্য হয়ে অন্য জায়গা থেকে এক্স-রে করতে হয়।

সার্জারী কনসালটেন, মেডিসিন কনসালটেন, গাইনি কনসালটেন, এনেসথেসিয়া কনসালটেন পদে ৪ জন কর্মরত আছে। কিন্ত এখানে কোন অপারেশন হয় না। আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিন সচল থাকার পরেও বিভিন্ন ডায়াগনষ্টিক সেন্টারদের দালালদের কারণে রোগীরা হসপিটালের ভেতরে আল্টাসনোগ্রাম করতে পারে না। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩ পর্যন্ত বিভিন্ন ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের দালাল আর ঔষুধ কোম্পানীর রিপ্রেজেনটিভদের দৌরাত্মের ফলে সাধারণ রোগীদের ভোগান্তির অন্ত থাকে না। দীর্ঘদিন ধরে ডেন্টাল সার্জারী পদটি খালি থাকায় স্থানীয় আদেশের মাধ্যমে ডেন্টাল টেকনোলজিষ্ট ডেন্টাল বিভাগের দায়িত্ব পালন করছে।

সেবক ও সেবিকারা ভর্তিকৃত রোগীদের কাছ থেকে সেবা প্রদানের বিপরীতে অর্থ প্রদানে বাধ্য করে। তাছাড়া প্রসূতি মহিলাবান্ধব হসপিটাল ঘোষনা করার পরেও অর্থ ছাড়া প্রসূতিদের কোন সেবা প্রদান করতে চায় না দায়িত্বশীল সেবক ও সেবিকারা।

এন্টিবায়োটিক ঔষধ সরবরাহ না থাকায় রোগীদেরকে একান্ত বাধ্য হয়ে বিভিন্ন ফার্মেসী থেকে ক্রয় করতে হয়। এতে গরীব রোগীদের টাকার অভাবে এন্টিবায়োটিক ঔষধ ক্রয় করতে অক্ষম থাকায় সঠিক চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র আরোও জানায়, কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার মুজিবুর রহমান ঝটিকা ভিজিটে এসে রোগীদের খাবারের মান বৃদ্ধির ব্যাপারে সর্তক করে গেলেও তিন বেলা খাবারে মান ফিরে আসেনি। রোগীদের জন্য বরাদ্ধকৃত খাবার সরবরাহ করা হয় না বলে রোগীদের কাছ থেকে জানা গেছে।

এই ব্যাপারে বুড়িচং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার রত্মা দাস নতুন কুমিল্লাকে বলেন, কিছু পথ খালি রয়েছে। তবে আশা করছি অতি শীঘ্রই খালিপদ গুলো পুরণ হয়ে যাবে। সেবক ও সেবিকাদেরকে রোগীদের কাছ থেকে কোন টাকা পয়সা যেন না নেয় সেই ব্যাপারে নির্দেশ প্রদান করেছি। ডায়াথেমি মেশিন এবং এ্যানেসথেসিয়া মেশিন থাকলে এখানে অপারেশন করা সম্ভব হবে। সেই অনুযায়ী জনবল রয়েছে। এই মেশিন গুলো পাওয়ার জন্য অবেদন করে রেখেছি।

জেনারেটর মেশিন না থাকায় বিদ্যুৎ চলে গেলেও রোগীদের জন্য বিকল্প হিসেবে হারিকেন রয়েছে। তবে আমাদের নিজেদের ব্যবস্থাপনায় আইপিএসের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সোলারের ব্যবস্থা হলে আরো ভাল হতো। চেষ্টা করছি সোলারের ব্যবস্থা করতে। খাবারের বিষয়ে নজর রাখা হয়েছে। পূর্বের তুলনায় খাবারের মান কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। রোগীদেরকে সঠিক সেবা প্রদানের জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

আরও পড়ুন