কুমিল্লা
রবিবার,১৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ৩ শাওয়াল, ১৪৪২

কুমিল্লায় নবজাতক তিন খন্ডের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ

প্রসতি ফাতেমা বেগম/ ছবি: নতৃন কুমিল্লা

দেবিদ্বারে প্রসব করার সময় টেনেহিঁচড়ে নবজাতকের হাত-পা ছিঁড়ে দেহের অর্ধেকাংশ ডাস্টবিনে ফেলা এবং প্রসূতির পেটে বিচ্ছিন্ন মাথা রেখে তড়িঘড়ি করে কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতাল পাঠিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টার ৭দিন পর গত রোববার জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে জমা দিলেও তা জানা যায় মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায়।

তদন্ত প্রতিবেদনে মূল ঘটনায় জড়িত দুইজন সিনিয়র নার্সকে অভিযুক্ত করা হয়েছে এবং দুই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে কর্তব্য অবহেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত ওই দুই নার্স হলো মোসা. আছিয়া বেগম ও ঝর্ণা আক্তার এবং কর্তব্য অবহেলায় অভিযুক্ত দুই চিকিৎসক হলো রাত্রিকালীন কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আহসানুল হক মিলু ও সহকারী গাইনি সার্জন ডা. নীলা পারভীন।

এর আগে গত (২৫ সেপ্টম্বর) রোববার রাতে কুমিল্লা সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমানের নির্দেশে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. আহমেদ কবীর ঘটনার তদন্তে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাইনি বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. তামান্না আফতাব সোলাইমানকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তদন্ত কমিটির অপর সদস্য হলো আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মঞ্জুর রহমান ও ডা. আহসানুল হক মিলু। পরে তদন্ত কমিটি গঠনের একদিনের মাথায় ঘটনার সময় রাত্রিকালীন কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আহসানুল হক মিলুর ডিউটি থাকায় অধিকতর নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে তাকে বাদ দিয়ে অপর মেডিকেল অফিসার ডা. আশরাফুলকে সংযুক্ত করা হয়।

এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটির সদস্য ডা. আশরাফুল ইসলাম নতুন কুমিল্লাকে জানান, তদন্তের কাজ শেষ হয়েছে। আমরা এর ফাইনাল প্রতিবেদন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মাধ্যমে জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠানো ব্যবস্থা করেছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আহমেদ কবীর নতুন কুমিল্লাকে জানান, গঠিত তদন্তে কমিটির প্রতিবেদন জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। তদন্তে সিনিয়র দুই নার্স আছিয়া এবং ঝর্ণা কোন চিকিৎসকে না জানিয়ে ডেলিভারীর কাজ করা ও নবজাতকের হাত-পা ছিঁড়ে দেহের অর্ধেকাংশ ডাস্টবিনে ফেলা এবং প্রসূতির পেটে বিচ্ছিন্ন মাথা রেখে তড়িঘড়ি করে কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতাল পাঠিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করার অপরাধে অভিযুক্ত করা হয়েছে এবং তদন্ত প্রতিবেদনে দুই চিকিৎসকের কর্তব্য অবহেলারও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এখন বিভাগীয় ভাবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন…
কুমিল্লায় প্রসবের সময় নবজাতকের মাথা বিচ্ছিন্ন!

আরও পড়ুন