কুমিল্লা
সোমবার,২৬ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১০ কার্তিক, ১৪২৭ | ৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

চৌদ্দগ্রামে একরাম হত্যায় ৭ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

চৌদ্দগ্রামে লুডু খেলার বিরোধের জের ধরে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে একরাম উল্লাহ নামে এক ব্যক্তিকে হত্যার দায়ে ৭ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে কুমিল্লার আদালত। বুধবার বিকালে এ আদেশ দেন কুমিল্লার সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ কে এম সামছুল আলম।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মোঃ পরান মিয়া (৫০), পরান মিয়া বাবুলের ছেলে মোঃ বাবলু (২০), মৃত জহির উদ্দিনের ছেলে মোঃ জামাল (৪২), নোয়াপাড়া গ্রামের মোঃ সফিক মিয়ার ছেলে মোঃ শাকিল (২৬), মোঃ শহিদ মিয়ার ছেলে মোঃ শওকত হোসেন (১৮), মোঃ শামছুর ছেলে মোঃ হেলাল (২৪) ও রামচন্দ্রপুর গ্রামের মোঃ আব্দুল খালেক ওরফে সেরু মিয়ার ছেলে মোঃ সবুজ (২০)।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৫ সালের ১১ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় চৌদ্দগ্রাম উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের মানিকের চা-দোকানের সামনে লুডু খেলা নিয়ে আসামিদের সাথে একরামের বিরোধ হয়। এর জের ধরে ১৫ সেপ্টেম্বর বিকেলে একরাম উল্লা বাড়ি হতে চৌদ্দগ্রাম বাজারে যাওয়ার পথে নারেন্নাল দীঘির পাড়ে পথরোধ করে ধারালো দা দিয়া একরাম উল্ল্যাকে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।

এ ব্যাপারে মৃত একরাম উল্লার পিতা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের মৃত হাকিম আলী ভূইয়ার ছেলে মোঃ মোকছেদ মিয়া (৬৩) বাদী হয়ে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই মোঃ ইব্রাহীম মামলার তদন্ত করে আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৬ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

পরবর্তীতে ১৮জন স্বাক্ষীর মধ্যে ১৪জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে রাষ্ট্রপক্ষের আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন আদালত। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন কুমিল্লা জেলা পি.পি এডভোকেট মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান লিটন।

আরও পড়ুন