কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২২ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ কার্তিক, ১৪২৭ | ৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

গৃহকর্তার নির্যাতনে কুমেকে কাতরাচ্ছে শিশু সীমা

আহত সীমা আক্তার/ ছবি: নতুন কুমিল্লা

রাজধানীতে গৃহকর্তার নির্যাতনের শিকার হয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কাতরাচ্ছে গৃহপরিচারিক শিশু সীমা আক্তার (১১)। সে কুমিল্লা সদর উপজেলার উত্তর কালিয়াজুরির রিকশা চালক নুরুল ইসলাম মেয়ে।

সীমা বাবা নুরুল ইসলাম জানান, নিজের অভাব-অনটন থেকে দূরে রাখতে ও একটু সুখের মেয়েকে তুলে দিয়েছিলেন প্রতিবেশি ঢাকায় বসবাস করা নাজমুল ইসলাম অপুর কাছে। কথা ছিলো সীমা নাজমুল ইসলাম অপুর বাচ্চাদের দেখা শোনা করবে।

সেই লক্ষ্যে পরিবার ছেড়ে প্রতিবেশী নাজমুল ইসলামের ঢাকার বাসায় কাজ করার জন্য যায় সীমা। কিন্তু বাসায় নিয়ে অপু সীমাকে দিয়ে শুধু বাচ্চা দেখাশোনা নয়, সকল কাজই করাতে থাকেন। পাশাপাশি চালিয়েছেন মারধরও।

গত ১১ মাসে মাত্র একবারের জন্য কুমিল্লায় পরিবারের কাছে আসার সুযোগ হয় সীমার। এরই মাঝে হঠাৎ করে গত কোরবানীর ঈদের পর থেকে সীমার উপর চলা নির্যাতন বাড়তে থাকে।

গত ৬ অক্টোবর নাজমুল আমাকে ফোনে ডেকে নেয় তাদের ঢাকার বাসায়। রাত ৮টায় টিকাটুলি মহিলা কলেজের সামনে তার বাসায় গিয়ে দেখি টয়লেটে আমার মেয়ে তালাবদ্ধ।

তালা খুলে টয়লেট থেকে বের করে দেখি তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় নির্যাতনের চিহ্ন। সেখান থেকে দ্রুত অজ্ঞান অবস্থাতেই তাকে বাড়িতে নিয়ে আসি।

বাড়িতে আনার পরও আমার মেয়ের জ্ঞান না ফেরার কারণে প্রথমে সদর হাসপাতালে নেই। সেখানের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করলে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করি।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার ডা. মো. সাজ্জাদ হোসেন জানান, শিশু সীমা শনিবার রাতে আমাদের হাসপাতালে ভর্তি হয়। যখন ভর্তি হয় তখন সেন্সলেস ছিল। তার বুকে, মাথায়, পিঠে অনেক গুলো আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আজ (রবিবার) সেন্স ফিরে এসেছে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে পুরাতন এবং নতুন অনেক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আমরা তাকে চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) মোহাম্মদ আবু সালাম মিয়া নতুন কুমিল্লাকে বলেন, বিভিন্ন মাধ্যমে বিষয়টি আমি শুনেছি। তবে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে গৃহকর্তা নাজমুল ইসলাম অপু নতুন কুমিল্লাকে জানান, সীমাকে মারধরের অভিযোগ সত্য নয়।তবে আমার স্ত্রীর মাথায় একটু সমস্যা আছে। সে হয়তো সীমার বাবাকে ফোন করে মেয়েকে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেছেন। রাতে আমি বাসায় ফিরে শুনি, সীমার বাবা এসে তার মেয়েকে নিয়ে গেছেন। তবে আমি বা আমার পরিবারের কেউ সীমাকে মারধর করেনি।

আরও পড়ুন