কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

লাকসামে একই ঘর থেকে স্ত্রীর গলাকাটা, স্বামীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

নিহত মোঃ সফিউল্লাহ ও তার স্ত্রী রাবেয়া বেগম / ছবি: নতুন কুমিল্লা

লাকসামে একই ঘরের পৃথক কক্ষ থেকে ফাঁসিতে ঝুলন্ত স্বামী ও স্ত্রীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের সালেপুর গ্রামে বুধবার (১০ অক্টোবর) সকালে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ওই দম্পতি সালেপুর দক্ষিণপাড়া মুন্সিবাড়ির মৌলভী হেদায়েত উল্লাহর ছেলে মুন্সী মোঃ সফিউল্লাহ (৪০) এবং তার স্ত্রী রাবেয়া বেগম (২৮)। ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে এলাকায় সাধারণ মানুষের মাঝে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, তিন কক্ষ বিশিষ্ট একটি টিনসেড ঘরে পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন মোঃ সফিউল্লাহ। তিনি এলাকায় কৃষি জমিতে পানি সেচের কাজ করাসহ নিজেও কৃষি কাজ করতেন। সফিউল্লাহ দু’টি বিয়ে করেছেন।প্রায় এক যুগ আগে প্রথম স্ত্রী পারভীন আক্তারের সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদের পর জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার মৈশাতুয়া ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের আবদুর রহিমের মেয়ে রাবেয়া বেগমকে বিয়ে করেন।

প্রথম সংসারে জাহিদ হাসান (১৫) নামে তার একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। সে বর্তমানে চট্টগ্রামে কাজ করে।বর্তমান স্ত্রী রাবেয়া বেগমের ঘরে নুসরাত জাহান সাইফা (৫) এবং উম্মে হাবিবা সাথী (৯) নামে দু’টি কন্যাসন্তান রয়েছে। ঘটনার সময় সাথী তার নানার বাড়িতে ছিলো। বুধবার সকালে ঘরের একটি কক্ষে রাবেয়া বেগমের গলাকাটা লাশ এবং অপর কক্ষ থেকে সফিউল্লাহর ঝুলন্ত লাশ দেখে বাড়ির লোকজন ঘটনাটি থানায় জানালে পুলিশ দু’জনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। তবে ধারণা করা হচ্ছে মঙ্গলবার দিবাগত রাতের শেষভাগে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যার পর সফিউল্লাহ নিজেও আত্মহত্যা করেছে।

সফিউল্লাহর পিতা মৌলভী হেদায়েত উল্লাহ নতুন কুমিল্লাকে জানান, ‘আমার ছেলে সফিউল্লাহ কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন। তার স্ত্রীর সাথে প্রায়ই ঝগড়া হতো। তবে আজকের ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানিনা। লোকজনের কাছে খবর পেয়ে দেখতে আসি।’

রাবেয়ার মা মরিয়ম আক্তার নতুন কুমিল্লাকে জানায়, আমার মেয়ের সাথে সফিউল্লাহর প্রায় ঝগড়া হতো। এর আগে কয়েকবার পারিবারিকভাবে শালিস হয় হয়েছে। বিগত বছর খানেক তারা স্বাভাবিকভাবেই বসবাস করে আসছিল। আজ মেয়ে ও জামাইর মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসি। তবে এ ঘটনা সম্পর্কে আমি কিছুই বলতে পারবো না।’

তবে ঘটনাটি হত্যার পর আত্মহত্যা নাকি পরিকল্পিত হত্যাকান্ড- এ নিয়ে এলাকার লোকজন দ্বিধা-দ্বন্দ্বে রয়েছেন।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার আরিফুল ইসলাম নতুন কুমিল্লাকে জানান, ‘নিহত দম্পতির মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে পারিবারিক অশান্তি ছিলো। আমাদের ধারণা- মঙ্গলবার গভীর রাতে কোন এক সময় পারিবারিক কলহের কারনে প্রথমে স্ত্রীকে জবাই করে হত্যার পর স্বামী নিজে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেতে পারে বলে আমার ধারণা।

লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনোজ কুমার দে নতুন কুমিল্লাকে বলেন, আমরা খাটের উপর থেকে একটি রক্তমাখা দা উদ্ধার করেছি। আর পরিবারের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি সফিউল্লাহর মানসিক সমস্যা ছিলো। লাশ দু’টি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে পাঠিয়েছি। বিষয়টি অধিকতর তদন্ত করা হচ্ছে।

কুমিল্লা জেলার জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার (লাকসাম সার্কেল) মোঃ নাজমুল হাসান নতুন কুমিল্লাকে বলেন, সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘরে থাকা শিশুটিসহ স্থানীয়দের সঙ্গেও কথা বলেছি। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে-সফিউল্লা তার স্ত্রীকে হত্যার পর নিজেই আত্মহত্যা করেছেন। তবে ঘটনাটি অধিকতর তদন্ত করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন