কুমিল্লা
সোমবার,২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

ভর্তিতে অধ্যক্ষের আপত্তি

চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ ফটকে ছাত্রলীগের তালা

চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অধ্যক্ষ ও শিক্ষকদের মধ্যে মামলা-হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত দুই শিক্ষার্থীকে বি.বি.এ (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তিতে আপত্তি জানিয়েছেন কলেজ অধ্যক্ষ। আর ওই ঘটনার প্রতিবাদে কলেজ ফটকে তালা ঝুলিয়ে শিক্ষক, কর্মচারী ও আবাসিক ছাত্রদের অবরুদ্ধ করে রাখে দু’ছাত্রলীগ নেতা।

বুধবার (১০ অক্টোবর) বিকাল ৩টায় চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিকাল সাড়ে ৪টায় তালা ভেঙ্গে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

জানাযায়, শিক্ষার্থী মো. শাহজালাল অভি চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ থেকে এবং মো. আরিফুল হক সাগর কুমিল্লা সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করে। পরে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইনের মাধ্যমে ওই কলেজে ভর্তির আবেদন করে তারা।

এদিকে বুধবার দুপুরে ছাত্রলীগ কর্মীদের ভর্তি করা হচ্ছে না এমন খবর পেয়ে কলেজের সামনে ভিড় করে চান্দিনা উপজেলা ও পৌর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে ক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা কলেজ ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন। কিন্তু এতো কিছুর পরও ওই দুই শিক্ষার্থীর বি.বি.এ (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির সুযোগ হয়নি তাদের।

ভর্তির সুযোগ বঞ্চিত ওই দুইজন শিক্ষার্থী হলেন- চান্দিনা পৌর ছাত্রলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আরিফুল হক সাগর ও আর.এ কলেজ ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি মো. শাহজালাল অভি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের ১৯ জুলাই কলেজে আন্দোলনের নামে কলেজের গেইট ও দরজা-জানালা ভাংচুর করে। এ ঘটনায় কলেজ অধ্যক্ষ বাদী হয়ে শিক্ষার্থী শাহজালাল অভি সহ ১১জনকে আসামী করে বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করেন। ওই ঘটনায় কয়েকদিন পর গত ২৫ জুলাই কলেজের অপর এক শিক্ষার্থী বাপ্পি বাদী হয়ে এবং শিক্ষার্থী অভিকে স্বাক্ষী করে কলেজ অধ্যক্ষ সহ ৯জনকে আসামী করে ৩২৬ ধারায় বিজ্ঞ আদালতে একটি পাল্টা মামলা করে। ওই মামলায় ইতিমধ্যে কলেজ অধ্যক্ষ মনিরুল ইসলাম, পরিচালনা পর্ষদ সদস্য জামসেদ আহমেদ জাকি এবং কলেজ প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি এলডিপি মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ এর ভাগিনা রাজিব কারাবাসে ছিলেন। ওই সব ঘটনার পর বেঁকে বসে কলেজ অধ্যক্ষ।

এদিকে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘোষণা অনুযায়ী বুধবার (১০ অক্টোবর) ছিল বি.এ (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তির শেষ দিন। ওই দুই শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার জন্য কলেজে গেলে তাদের ভর্তিতে আপত্তি করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অঙ্গীকারনামা চায় কলেজ অধ্যক্ষ। কিন্তু কোন প্রকার অঙ্গীকার নামা দিতে নারাজ শিক্ষার্থীরা।

ভর্তি বঞ্চিত ওই দুই শিক্ষার্থী অভিযোগ করেন- ‘লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি এলডিপি’র মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ প্রতিষ্ঠিত চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ মো. মনিরুল ইসলাম ভূইয়া এলডিপি’র নেতা। আমরা আওয়ামীলীগের সহযোগী সংগঠন ছাত্রলীগের কর্মী। অন্যান্য ছাত্রদেরকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতিমালা অনুযায়ী ভর্তি করানো হয়। কলেজে ভর্তি হতে সব কগজপত্রসহ আমারা গত ৪-৫ দিন যাবৎ কলেজ অধ্যক্ষের নিকট যাই। বিভিন্ন অজুহাতে তিনি আমাদেরকে ঘুরিয়েছেন। আজ ভর্তির শেষ দিনে তিনি কলেজে নেই। উপাধ্যক্ষ মো. আবু হানিফ ভূইয়া আমাদের দুজনকে লিখিত অঙ্গীকার নামা দিতে বলে।’

আরিফ ও অভি আরও জানান, ‘কলেজে কিছুদিন পূর্বে একটি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। আমরা ওই ভাঙচুরের দায় স্বীকার করে অঙ্গীকারনামা দিলে আমাদের ভর্তি করা হবে বলে উপাধ্যক্ষ স্যার জানিয়েছেন।’

চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজের অধ্যক্ষ মো. মনিরুল ইসলাম ভূইয়া নতুন কুমিল্লাকে জানান, ‘ওই দুইজন ছাত্র আমার বিরুদ্ধে যে মামলা হয়েছে তার স্বাক্ষী। এছাড়া কলেজে ভাঙচুরের ঘটনায় যে মামলা কলেজ কর্তৃপক্ষ দায়ের করেছে সে মামলার আসামী। তারা ভর্তি হলে আবার অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে পারে। এজন্য আগের ভাঙচুরের কথা স্বীকার করে ওই ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে অঙ্গীকার নামা দিতে হবে। আর আমরা তাদের কাছে অঙ্গীকারনামা চাইলে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা কলেজের প্রধান ফটকে ২টি তালা ঝুলিয়ে আমাদের কলেজের শিক্ষক, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের অবরুদ্ধ করে রাখে’।

চান্দিনা থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শামসুল ইসলাম নতুন কুমিল্লাকে জানান, ‘ভর্তি করানো হচ্ছে না শুনেছি। আমরা অধ্যক্ষের সাথে যোগাযোগ করেছি। তার মামলার আসামী ও স্বাক্ষী হওয়ায় অঙ্গীকারনামা দিতে হবে বলে জানিয়েছেন। এটা আসলে ঠিক না। মামলা থাকলে তা বিজ্ঞ আদালতের বিচার্য বিষয়। ভর্তি ও শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ শিক্ষার্থীদের অধিকার।’

আরও পড়ুন