কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৯ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ কার্তিক, ১৪২৭ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

কুমিল্লায় শারদীয় দুর্গোৎসবে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা

ফাইল ছবি

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা উপলক্ষ্যে কুমিল্লায় ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে প্রশাসন। প্রশাসনিক হিসাব মতে এ বছর কুমিল্লা মহানগরী সহ জেলার ১৬টি উপজেলায় পূজা মন্ডপ হয়েছে ৭শ ৫৬টি।

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কুমিল্লা জেলা পুলিশ ওই পূজা মন্ডপগুলোকে তিনটি শ্রেণীতে ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২৬৬টি পূজা মন্ডপকে অধিক গুরুত্বপূর্ণ, ২৬৭টি পূজা মন্ডপকে গুরুত্বপূর্ণ এবং ২২৩টি পূজা মন্ডপকে সাধারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

অবাধ-সুষ্ঠু-শান্তিপূর্ণ ও উৎসব মুখর পরিবেশে শারদীয় দুর্গোৎসব সম্পন্ন করার লক্ষ্যে জেলা পুলিশ পুরো জেলাকে ৮টি সেক্টরে ভাগ করেছেন। নিশ্চিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে জেলা পুলিশ। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে মনিটরিং ব্যবস্থা। পাঁচ দিনের জন্য মাঠে থাকবে মোবাইল কোর্ট। পুলিশের পাশাপাশি সতর্ক অবস্থায় থাকবেন র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. আজিম উল আহসান নতুন কুমিল্লাকে জানান, শারদীয় দুর্গোৎসব ঘিরে ইতিমধ্যে আমরা প্রস্তুতি গ্রহন করেছি। পোশাকধারী পুলিশ সদস্যে পাশাপাশি সাদা পোশাক ও ডিবি পুলিশের নজরদারীতে থাকবে পূজা মন্ডপগুলো। নিচিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমাদের সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। মহানগরীর অধিক গুরুত্বপূর্ণ ও গুরুত্বপূর্ণ পূজা মন্ডপ ও আশ-পাশের এলাকা সিসি ক্যামেরায় নিয়ন্ত্রণ করা হবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশ মোতাবেক জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের থেকে শুরু করে থানা পর্যায়ের সকল পুলিশ সদস্য এক যোগে কাজ করবে। যে কোন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সতর্ক অবস্থায় থাকবে কুমিল্লা জেলা পুলিশ।

র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-১১ কুমিল্লা অঞ্চলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাব-কমান্ডার বিল্লাল হোসেন জানান, কুমিল্লা জেলার প্রতিটি পূজা মন্ডপকে ঘিরে আমাদের ৬০ সদস্যের একটি টিম পৃথক পৃথক ভাবে টহলে থাকবে। অধিক গুরুত্বপূর্ণ পূজা মন্ডপে থাকবে বাড়তি নজরদারী। এছাড়া মহানগরীর বিভিন্ন পূজা মন্ডপে সতর্ক অবস্থায় থাকবে আমাদের টিম।

এ বছর কুমিল্লা জেলায় ৭শ ৫৬টি পূজা মন্ডপে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব। এর মধ্যে জেলার মুরাদনগর উপজেলায় সর্বোচ্চ ১৫৩টি ও সর্ব নিম্ন মেঘনায় ৬টি পূজা মন্ডপে অনুষ্ঠিত হবে এছাড়া মহানগরে ৪৮টি, আদর্শ সদর উপজেলায় ২৪টি, চৌদ্দগ্রামে ২৪টি, তিতাসে ১১টি, দাউদকান্দিতে ৫৪টি, সদর দক্ষিণে ৩১টি, হোমনায় ৪৪টি, নাঙ্গলকোটে ৮টি, চান্দিনায় ৬৭টি, মনোহরগঞ্জে ১৪টি, দেবিদ্বারে ৮৩টি, ব্রাহ্মণপাড়ায় ১৬টি, বরুড়ায়া ৮৫টি, লাকসামে ৩৪টি, বুড়িচং-এ ৩৮টি ও লালমাই উপজেলায় ১৬টি।

আরও পড়ুন