কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১০ সফর, ১৪৪২

পর্তুগালে সফল ব্যবসায়ী কুমিল্লার রাসেল ও জিল্লু

মাহফুজুর রহমান রাসেল ও মাহবুবুর রহমান জিল্লু / ফাইল ছবি

সাগর কন্যার দেশ হিসাবে পরিচিত পর্তুগাল। আটলান্টিকের পাড়ের দেশ হওয়াতে এখানকার বেশির ভাগ এলাকা পাহাড়, নদী ও সাগর বেষ্টিত। তবে বাংলাদেশীদের কাছে পরিচিত এই দেশটি অন্য কারনে। এখানে ইউরোপের অন্য দেশের তুলনায় সহজে বৈধ হওয়া বা কাগজপত্র পাওয়া যায়। পাশাপাশি রয়েছে সল্পসংখ্যক মূলধন বিনিয়োগ করে সহজে ভাল ব্যবসা করার সুযোগ। তাই আশির দশক থেকে এখানে বাংলাদেশী অভিবাসীরা আসতে শুরু করে। বর্তমানে এখানে বাংলাদেশীদের বিশাল কমিউনিটি গড়ে উঠেছে।

মাহফুজুর রহমান রাসেল ও মাহবুবুর রহমান জিল্লু পর্তুগালের বাংলাদেশী কমিউনিটির অতি পরিচিত ও সুপ্রিয় মুখ। মাহফুজুর রহমান রাসেল ইউরোপে পাড়ি জমান ২০০৭ সালের শুরুর দিকে, স্পেন হয়ে পর্তুগাল চলে আসেন একই বছরের মাঝামাঝিতে। এর পরের বছর ২০০৮ সালে ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে মাহবুবুর রহমান জিল্লু এসেছিলেন ইটালিতে। তখনকার সময়ে ইটালিতে ব্যবসা শুরু করার অনুকূল পরিস্থিতি না থাকায় স্পেস হয়ে তিনিও চলে আসেন পর্তুগালে।

সে সময়ে কাজ পাওয়া খুবই দুরহ ব্যাপার ছিল বিশেষ করে নতুন আগন্তুকদের জন্য। কিন্তু এখানে বৈধ হওয়া বা কাগজপত্র পাওয়া পূর্ব শর্ত হলো কন্টাক্ট সহ কাজের সংস্থান করতে হবে। দুজনেই এক আত্মীয়ের সহযোগিতায় কন্টাক্ট সহ কাজের ব্যবস্থা হলো এবং দীর্ঘ আড়াই বছর পরে পর্তুগালের বৈধতা লাভ করেন। এসময়ে মধ্যে দুজনে বিভিন্ন ব্যবসায়িক ধারনা নিলেন। বুঝতে সক্ষম হলেন পর্তুগালে সল্প বিনিয়োগে ব্যবসা আরম্ভ করার সুন্দর পরিবেশ রয়েছে এবং সহজে যেকেউ ব্যবসা করতে পারে।

কাগজ পাওয়ার এক মাসের মাথায় রাসেল দেশে চলে যান এবং পরিবারকে বুজিয়ে সুজিয়ে পঞ্চাশ লক্ষ টাকা নিয়ে এসে দুজনে মিলে নেমে পড়েন পাইকারি ব্যবসায়। সঠিকভাবে ব্যবসায়িক পরিকল্পনা ও পরিশ্রমের ফলে অল্প সময়ের মধ্যে তাদের কাছে সফলতা ধরা দিল এবং একে একে পাইকারি ও খুচরো মিলিয়ে লিসবনের বিভিন্ন স্থানে ছয়টি দোকানের মালিক হলেন। খুচরা পর্যায়ের ব্যবসা করছেন বিভিন্ন দেশ থেকে আগত টুরিস্টদের সাথে আর পাইকারি ব্যবসায় করছেন স্থানীয় মানুষ সহ বিভিন্ন দেশের অভিবাসীদের সঙ্গে।

যেখানে আমাদের বাংলাদেশী কমিউনিটির মধ্যে একটি ভ্রান্ত ধারণা কাজ করে যে যৌথ ব্যবসা ভাল না অথবা দীর্ঘদিন ধরে রাখা যায়না। সেখানে এর ব্যতিক্রম এই যুগল তরুণ ব্যবসায়ী দ্বয়। সকলের গতানুগতিক ধারণা পাল্টে দিয়ে তারা হয়ে উঠেন পর্তুগালের সফল ব্যবসায়ীক আইকন হিসাবে। একসময় যারা ওনাদের হয়ে কাজ করেছেন বর্তমানে তারা ও এখন হয়ে উঠেছেন পর্তুগালের এক এক জন সফল ব্যবসায়ী।

ইতিমধ্যেই পেয়েছেন পর্তুগালের নাগরিকত্ব তাই পর্তুগালকেও ভালবাসেন ঠিক জন্মভূমি বাংলাদেশের মতই। পরিকল্পনা গ্রহন করেছেন এখান বৃহৎ আকারের রিটেইল চেইন শপ করার। যেখানে থাকবে বাংলাদেশের তৈরী পোশাক, বিভিন্ন পাটজাত পন্য, হস্তশিল্পের নানান রকম পন্য সহ বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী জিনিসপত্র। কেন এমন পরিকল্পনা জানতে চাইলে চমকপ্রদ একটি উদাহরণের মাধ্যমে উত্তর দিলেন মাহফুজুর রহমান রাসেল। জানালেন যে এখানকার বেশির ভাগ বড় বড় নামি দামী পোশাকের আউটলেটে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয় বাংলাদেশের তৈরি পোশাক।

তাছাড়াও দীর্ঘদিনের পাইকারি ব্যবসায় অভিজ্ঞতার আলোকে জেনেছেন এখানে তৈরি পোশাকের বিশাল বাজার রয়েছে। বাংলাদেশী হিসাবে সরাসরি পর্তুগালের সাথে এ খাতে ব্যবসা করতে চান। ব্যবসায়ের পাশাপাশি জড়িত রয়েছেন কমিউনিটির বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়ন মূলত কর্মকান্ডে। যুক্ত আছেন লিসবন ইসলামিক সেন্টারের সাথে এবং চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন লিসবনে একটি পূর্ণাঙ্গ বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠা করার। যা পর্তুগালে বাংলা ভাষা ও সাংস্কৃতি বিকাশে ভূমিকা রাখবে।

ব্যবসায়ীক মতাদর্শ দুজনের একই হলেও আগামী দিনের সামাজিক মতাদর্শে দুজনের ভাবনা দু’রকম। মাহফুজুর রহমান রাসেল কাজ করে যেতে চান পর্তুগালের বাংলাদেশ কমিউনিটির জন্যে এবং মাহবুবুর রহমান জিল্লু স্বপ্ন দেখেন কখনো সুযোগ পেলে নিজ এলাকা কুমিল্লার জনপ্রতিনিধি হয়ে এলাকার মানুষের সেবা করার। যদিও এখানকার ব্যবসা বানিজ্য ও নাগরিকত্ব রয়েছে, মাহবুবুর রহমান জিল্লু চান আগামী কিছু দিনের মধ্যে বাংলাদেশ স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করতে।

অন্য দিকে মাহফুজুর রহমান রাসেল পরিকল্পনা করছেন পর্তুগালের সকল বাংলাদেশীকে একটি ঐক্য বদ্ধ প্লাটফর্মে নিয়ে আসা। যাতে করে সকলে সমন্বিত ভাবে লিসবন তথা সমগ্র পর্তুগালে বাংলাদেশী কমিউনিটিকে আরো শক্তিশালী ও মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করতে পারে। কারন তিনি বিশ্বাস করেন একমাত্র ঐক্যবদ্ধ কোন প্লাটফর্ম পারে মানুষ, সমাজ ও রাষ্ট্রের কল্যানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে।

আরও পড়ুন