কুমিল্লা
বুধবার,২৮ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১২ কার্তিক, ১৪২৭ | ১০ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

লাকসামে শিশু ধর্ষণ ঘটনায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

লাকসামে চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণের ঘটনায় অবশেষে থানা পুলিশ স্বপ্রনোদিত হয়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মজির আহমেদ (৫০) ও সহযোগী সাথি আক্তারের (২২) বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। ঘটনার ৮দিন পর বুধবার (২৪ অক্টোবর) রাতে লাকসাম থানার এসআই মোঃ কামাল হোসেন বাদী হয়ে নারী ও নির্যাতন আইনে মামলাটি দায়ের করেন। ধর্ষণের শিকার ওই শিশুটি (১২) লালমাই উপজেলার কনকশ্রী গ্রামের আনন্দ স্কুলের ৫ম শ্রেণির ছাত্রী।

মামলার বিবরণ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, লাকসাম পৌর এলাকার ডুরিয়া বিষ্ণপুর গ্রামের সাথি আক্তার ঘটনার প্রায় ১০/১২ দিন আগে লালমাই উপজেলার পেরুল ইউনিয়নের কনকশ্রী গ্রামের মামার বাড়ি (ধর্ষিতার পাশের বাড়ি) বেড়াতে যায়। সাথী ওই গ্রামের আফজাল হোসেনের ভাগ্নি। গত বুধবার (১৭ অক্টোবর) দুপুর দেড়টার দিকে সাথী ওই শিশুটির বাড়ি যায়। ওই সময় সাথী জামা-কাপড় কেনার কথা বলে শিশুটিকে ফুসলিয়ে নিয়ে এসে লাকসাম ষ্টেডিয়ামের পাশে অভিযুক্ত মজির আহমেদের অটো রাইসমিলের অফিস কাম বিশ্রাম কক্ষে নিয়ে যায়।

পরে বিকেল সোয়া ৫টার দিকে সাথী ওই শিশুটিকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যায়। শিশুটির বাড়ির পেছনের একটি জায়গায় রেখে সটকে পড়ে সাথী। কিছুক্ষণ পর ওই শিশুটি চিৎকার দিয়ে কান্নাকাটি শুরু করলে তার মা ও বাড়ির আশ-পাশের লোকজন এসে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখতে পায়। এ সময় ওই শিশুটি মজির আহমেদ কর্তৃক জোরপূর্বক ধর্ষণের ঘটনাটি স্বজনদের জানায়। এছাড়া, আফজাল হোসেনের ভাগ্নি সাথী আক্তারের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় তার ওপর এমন পৈচাশিক নির্যাতনের বিস্তারিত ঘটনা তুলে ধরে।

তাৎক্ষণিক শিশুটির মা ও আফজলসহ একটি সিএনজিযোগে লাকসাম সরকারি হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। বিষয়টি জানাজানি হলে শিশুটিকে মজির আহমেদের লোকজন তারই প্রতিষ্ঠান জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়।

পরদিন বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) সকালে ধর্ষণে সহযোগি সাথী আক্তার, তার মামা আফজল ও পেরুল দক্ষিণ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড মেম্বার সাইদুল ইসলাম তিতুসহ জেনারেল হসপিটালের ৬ তলায় শিশুটিকে দেখতে যায়। এ সময় স্থাণীয় সংবাদকর্মীরা ভিড়তে থাকলে ধর্ষিতা শিশুটিকে এম্ব্যুলেন্সযোগে দ্রুত কুমিল্লা পাঠিয়ে দেয়া হয়। এর পর থেকে ওই শিশুসহ তার পরিবারের লোকজনের হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। ওই সময় হাসপাতালে পুলিশ গেলেও অজ্ঞাত কারণে তারা শূন্য হাতে ফিরে আসে।

এদিকে, শিশু ধর্ষণের ঘটনাটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে সংবাদটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এতে প্রশাসনের টনক নড়ে। অপরদিকে, একাধিক পত্রিকা ও অনলাইন পোর্টালে সংবাদটি প্রকাশিত হলে অভিযুক্ত মজির আহমেদ স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গ ও একাধিক রাজনৈতিক নেতাকে নিয়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জন্য উঠেপড়ে লাগে।

ওই সময় এএসপি (লাকসাম সার্কেল) নাজমুল হাসান সংবাদ মাধ্যমকে জানান, ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চলছে। তারা ভিকটিমকে লুকিয়ে রেখেছে। পুলিশ সম্ভাব্য স্থানে ভিকটিমকে উদ্ধার করার জন্য অভিযান চালায়। ওই ইউপির চেয়ারম্যান, মেম্বার, ভিকটিমের পরিবার বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলছে না। ভিকটিমকে উদ্ধার করা গেলে বিস্তারিত জানা যাবে, ভিকটিমকে উদ্ধারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

অবশেষে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনার এক সপ্তাহ পর লাকসাম থানা পুলিশ বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অভিযুক্ত মজির আহমেদ ও তার সহযোগী সাথী আক্তারের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে।

এ বিষয়ে লাকসাম থানার ওসি মনোজ কুমার দে জানান, বিভিন্ন মাধ্যমে এবং পুলিশের আভ্যন্তরীণ তদন্তে ঘটনাটি জানার পর লাকসাম থানার এসআই মোঃ কামাল হোসেন বাদী হয়ে মজির আহমদ এবং তার সহযোগী সাথী আক্তারের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে এ মামলাটি রুজু করেন।

আরও পড়ুন