কুমিল্লা
শনিবার,১৯ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৫ আষাঢ়, ১৪২৮ | ৮ জিলকদ, ১৪৪২

কুমিল্লার অংশে অতি উৎসাহী শ্রমিকদের বেপরোয়া আন্দোলন

সড়কে প্রাইভেট কার আটকে হয়রানি করছে শ্রমিকরাসড়ক পরিবহন আইন সংশোধনসহ ৮ দফা দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে অতি উৎসাহী শ্রমিকদের বেপরোয়া আন্দোলন দেখা গিয়েছে। শ্রমিকদের এই বেপরোয়া আন্দোলনে যাত্রী ও সাধারণ মানুষ চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। প্রাইভেটকারগুলোসহ একজন পথচারীও তাদের বাধা থেকে রক্ষা পাচ্ছে না।

মোটরযান শ্রমিকদের ডাকা ৪৮ ঘণ্টা ধর্মঘটের কারণে রবিবার সকাল থেকে কুমিল্লায় সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। মহানগরীর তিনটি বাস টার্মিনাল থেকে কোনও ধরনের বাস ছেড়ে যায়নি। বন্ধ রয়েছে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক, কুমিল্লা-নোয়াখালী ও কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কে যান চলাচল।

এছাড়া মহানগরীর সব গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে শ্রমিকরা ট্রাক রেখে রাস্তা অবরোধ করে রেখেছে। শ্রমিক আন্দোলনের কারণে সিএনজি চালিত অটোরিকশা, ব্যাটারি চালিত অটোরিকশাসহ সব ধরনের যানবাহন বন্ধ রয়েছে। এ কারণে দুর্ভোগে পড়েছেন নগর, মহানগরসহ দূর-দূরান্ত থেকে আসা যাত্রীরা।

মিজানুর রহমান সৈকত নামে এক শ্রমিক জানান, আমাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা সড়ক থেকে ফিরবো না। আমরা যেমন শ্রমিক, প্রাইভেট গাড়ির চালকরাও শ্রমিক। আমরা রাস্তায় নেমে আন্দোলন করবো আর তারা কেন গাড়ি চালাবে?

বাস শ্রমিক বিজয় কৃষ্ণ জানান, রাস্তায় গাড়ি চললে দুর্ঘটনা তো হবেই। শতকরা ৫০ ভাগ দুর্ঘটনা ঘটে পথচারী ও পুলিশের জন্য। এই দায় কেন আমরা নেবো। আইন সংশোধন ও আট দফা দাবি মেনে না নিলে আমাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।’

শারমিন আক্তার নামে এক যাত্রী কুমিল্লা থেকে নোয়াখালী যাবেন। কোনও বাস চলাচল না করায় দুর্ভোগে পড়েছেন তিনি।

বলেন, ‘আমি জানতামই না আজ শ্রমিকরা ধর্মঘট ডেকেছে। গতকাল কুমিল্লায় এক আত্মীয়ের বাসায় এসেছি খুব গুরুত্বপূর্ণ কাজে। এখন আবার বাড়ি যেতে হচ্ছে কিন্তু কোনও গাড়ি পাচ্ছি না।’

কুমিল্লা জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কাজী মোতাহের হোসেন বলেন, সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনসহ ৮ দফা দাবিতে শ্রমিকরা আন্দোলন করছে। ৪৮ ঘণ্টা ধর্মঘটের মধ্যে যদি সরকার দাবি না মেনে নেয়, তাহলে পরবর্তীতে আমরা অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দেবো।

আরও পড়ুন