কুমিল্লা
শনিবার,২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১৪ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ১৪ রজব, ১৪৪২

কুমিল্লায় গত ২৯দিনে ২০ হত্যাকাণ্ড

স্বজনদের আহাজারীর ফাইল ছবি

কুমিল্লায় হত্যাকাণ্ড বা নিহতের ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে। চলিত অক্টোবর মাসের গত ২৯দিনে কুমিল্লায় ২০টি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আর গত দুই মাসে এই সংখ্যা ছিল ৩৩টি।

জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটি থেকে প্রাপ্ত তথ্যের পাশাপাশি বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত ঘটনার সূত্র ও সংশ্লিষ্ট থানা থেকে এই তথ্য জানা গেছে। সেপ্টেম্বর মাসে কুমিল্লার বিভিন্ন স্থানে ১৩টি হত্যাকাণ্ড ঘটে বলে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় জানানো হয়।

সূত্র মতে, গত ১ অক্টোবর কুমিল্লার অরণ্যপুরে গোমতী নদীর চর থেকে অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন ২ অক্টোবর শহরতলীর বদরপুর রেল গেইট এলাকায় গোমতী পাড়ের ঝোঁপের ভেতর থেকে উদ্ধার করা হয় আরো এক অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ।

মাস শুরুর প্রথম দুই দিনে কুমিল্লা সদর উপজেলাধীন গোমতী নদীর চর ও পাড়ে দুই লাশ উদ্ধারের ঘটনায় টনক নড়ে প্রশাসনে। ক্লু উদ্ধারে মাঠে নামে কোতোয়ালি থানা ও জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। অভিযানের প্রথম দিনেই আসে সফলতা। পরিচয় সনাক্ত হয় অজ্ঞাত হিসেবে উদ্ধার হওয়া গলাকাটা যুবকের। গ্রেফতার করা হয় তার খুনিকে। কিন্তু দ্বিতীয়জনের পরিচয়ের হদিস মেলেনি ৩০ দিনেও। উন্মোচন হয়নি হত্যারহস্য।

শুধু এ দু’টি হত্যাকাণ্ডেই কুমিল্লায় থেমে থাকেনি লাশের মিছিল। দিন যতো বেড়েছে, তার সাথে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে লাশের সংখ্যাও। চলতি মাসের ৩০ দিনে কুমিল্লায় খুন হয়েছেন ২০জন। এছাড়াও হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা, রহস্যজনক মৃত্যুর পাশাপাশি ধর্ষণ ও ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ আছে বেশ কয়েকটি। সব মিলিয়ে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর-এ দুই মাসে কুমিল্লায় হত্যাকাণ্ড ঘটেছে ৩৩টি।

ডিবি পুলিশ সুত্র জানায়, অরণ্যপুর এলাকায় গোমতী চর থেকে উদ্ধার হওয়া গলাকাটা লাশটি ছিলো চাঁদপুরের কচুয়ার উপজেলার নাওপুরা গ্রামের ফারুক মিয়ার ছেলে জুয়েল ওরফে আজিরুল ইসলামের (২১)। টাকা ধার না দেয়ার জের ধরে পরিকল্পিতভাবে তাকে গলাকেটে হত্যা করেছিল তারই বাল্যবন্ধু রাব্বী।

চলতি মাসে ‘ধারাবাহিকভাবে’ চলতে থাকা হত্যাকাণ্ডের সর্বশেষ তিনটিই ঘটেছে ২৩ অক্টোবর মঙ্গলবার। এদিন জেলার দেবীদ্বার উপেজলার আসরা গ্রামে স্বামীর বাড়ির লোকদের হাতে খুন হন গৃহবধূ সাহিদা (২১)। এ ঘটনায় তার শাশুড়ি ও দেবরকে আটক করেছে পুলিশ।

একই দিন তিতাস উপজেলার রায়পুর গ্রামে দুই পক্ষের সংঘর্ষ চলাকালে মারা যান আলেয়া বিবি (৫০) নামে এক নারী। তিনি ওই গ্রামের বেদে বাড়ির করিম মিয়ার স্ত্রী। যদিও তার মৃত্যুর বিষয়টি কিছুটা রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিপক্ষের দাবি, দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ এ নারীর স্বাভাবিক মৃত্যুকে হত্যাকাণ্ড বলে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। খবর পেয়ে পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে কুমেক হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে।

এছাড়াও এদিন তিতাসের উলুকান্দি গ্রাম থেকে প্রবাসী আলেক মিয়ার স্ত্রী শাহিনা আক্তারের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

২২ অক্টোবর কুমিল্লার দাউদকান্দিতে পুত্রবধূর হাতে শাশুড়ি খুন হওয়ার অভিযোগ উঠে। নিহত ফাতেমা বেগম (৫৫) উপজেলার দক্ষিণ পেন্নাই গ্রামের রফিকুল ইসলামের স্ত্রী।

২০ অক্টোবর নাঙ্গলকোটে ভাজিতার প্রহারে প্রাণ হারান তার ফুফু ও অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী তফুরা খাতুন।
১৮ অক্টোবর গভীর রাতে কুমিল্লা নগরীর রেইসকোর্স এলাকায় ৫ তলা ভবন থেকে পড়ে সুজন নামে এক যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু হয়। গত ১৭ অক্টোবর বিকেলে জেলার সদর উপজেলার কমলপুর সর্দার বাড়িতে পৈত্রিক সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের ধরে ভাইয়ের লাঠির প্রাণ হারান বোন। নিহত শাহানারা আক্তার শানু (২৫) ওই বাড়ি মৃত আইয়ুব আলীর মেয়ে। এ ঘটনায় শানুর মেঝোর ভাই অভিযুক্ত শফিককে (২৮) আটক করেছে পুলিশ।

একই দিন সন্ধ্যায় নগরীর রেইসকোর্স এলাকার একটি বাসার ভেতর তালাবদ্ধ কক্ষ থেকে লিজা আক্তার (২৪) নামে এক গৃহবধূর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লিজা কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার বাকশিমুল গ্রামের আবদুল্লাহ আল মাসুদের স্ত্রী। গত দেড়মাস ধরে এ দম্পতি রেসকোর্সের এ বাসাটি ভাড়া নিয়ে থাকতেন। এ ঘটনার পর থেকে মাসুদ আত্মগোপনে রয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

৩ অক্টোবর কুমিল্লার বুড়িচংয়ে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে মো. ইব্রাহিম (৬০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হন। উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ১৫ জন আহত হন। ৮ অক্টোবর সোমবার কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে সাজ্জাদ হোসেন শাকিল নামে এক ছাত্রলীগ নেতাকে রড ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে প্রতিপক্ষের লোকজন।

শাকিল কুলাসার গ্রামের ছালেহ আহাম্মদ প্রকাশ বধু মিয়ার ছেলে ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক। একই দিন রাতে উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিণ ইউনিয়নে স্ত্রীর হাতে খুন হয়েছেন স্বামী। গভীর রাতে স্বামী বাদশা মিয়াকে (৪০) খুন করে স্ত্রী জোহরা বেগম পালিয়ে যায় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

৯ অক্টোবর গভীর রাতে কুমিল্লার দেবীদ্বারে শাশুড়ি ফারিদা বেগমকে (৬০) শ্বাসরোধে হত্যা করে ঘরজামাই মনির হোসেন। পরে তিনি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে জানিয়েছেন সম্পত্তির লোভে এ হত্যাকাণ্ড ঘটান তিনি।
১০ অক্টোবর কুমিল্লার লাকসামে স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যার পর আত্মহত্যা করেন স্বামী। উপজেলার কান্দিপাড় ইউপির সালেহপুর দক্ষিণপাড়া মূন্সিবাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন স্বামী সফিউল্লাহ (৪০) ও তার স্ত্রী রাবেয়া বেগম (২৭)। পারিবারিক কলজের জের ধরেই এ হত্যাকাণ্ড বলে জানিয়েছে লাকসাম থানা পুলিশ।

১১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার চান্দিনায় হেলপারকে হত্যা ও চালককে কুপিয়ে আহত করে রডবোঝাই একটি ট্রাক ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। দুপুরে ইলিয়টগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কের দাঁড়িয়াপুর এলাকা থেকে তোফয়েল হোসেন (২৫) নামে ওই হেলপারের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ১৫ অক্টোবর নগরীর বিষ্ণুপুরে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে সুজন নামে এক যুবককে হত্যা করা হয়।

এ বিষয়ে কুমিল্লার পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেন, সার্বিক বিবেচনায় কুমিল্লার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের বেশিরভাগই পারিবারিক কলহ ও ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের রেশ থেকে হয়েছে। তারপরও যেকোনো ধরনের অপরাধ দমনে পুলিশ সজাগ রয়েছে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন