কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৩ ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৮ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ | ১৭ রবিউস-সানি, ১৪৪২

খুঁড়িয়ে চলছে বিবিরবাজার স্থলবন্দর শুল্ক স্টেশন

কুমিল্লা থেকে ছয় কিলোমিটার দূরে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বিবিরবাজার এলাকায় অবস্থিত ‘বিবিরবাজার স্থলবন্দর শুল্ক স্টেশন’। পাক-ভারত বিভক্তির আগে থেকেই কুমিল্লার সঙ্গে ভারতের ত্রিপুরা অঞ্চলের মানুষের যাতায়াতের প্রধান সড়ক ছিল এটি। দেশের অন্যতম স্থলবন্দরটি দিয়ে রফতানি কার্যক্রম চললেও আমদানি বলতে গেলে একেবারেই নেই।

বন্দর সূত্রে জানা যায়, বছরে গড়ে এ বন্দর দিয়ে বাংলাদেশ থেকে বৈধভাবে ১০০ কোটিরও বেশি টাকার পণ্য ভারতে রফতানি হলেও ভারত থেকে আসছে মাত্র কয়েক লাখ টাকার পণ্য। সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, অবকাঠামোর অভাব ও সীমান্তে সুষ্ঠু নজরদারি না থাকায় চোরাচালানি বাড়ছে। ফলে দিন দিন বাড়ছে বাণিজ্যবৈষম্য।

১৯৫৪ সালে প্রতিষ্ঠিত বিবিরবাজার স্থলবন্দর ও শুল্ক অফিসটির অবকাঠামো বলতে রয়েছে কয়েকটি ভাঙাচোরা ঘর। এখানে পণ্যের পাশাপাশি যাত্রীদের রেকর্ডও রাখা হয় কাগজে-কলমে। কিন্তু ওপারে সোনামুড়া স্থলবন্দরটি স্বয়ংসম্পূর্ণ।

দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিবিরবাজার স্থলবন্দরটি ভারতের সঙ্গে এদেশের বিশাল বাণিজ্যের সম্ভাবনার রুট হলেও অজ্ঞাত কারণে এখানে কোনো ভৌত অবকাঠামো গড়ে ওঠেনি। বন্দরটিতে নেই কুমিল্লা নগর থেকে যাতায়াতের সরাসরি কোনো যোগাযোগ ব্যবস্থা। অটোরিকশা, রিকশা কিংবা ইজিবাইকে চড়ে যেতে হয় বন্দরে। এছাড়া বন্দর এলাকাসহ আশপাশে নেই কোনো আবাসিক হোটেল, রেস্টুরেন্ট, দোকানপাট, এমনকি ব্যাংকিং সুবিধা। ফলে ভ্রমণকর জমা দিতে যেতে হয় কুমিল্লা শহরে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, বর্তমানে এদেশ থেকে অনেকেই চিকিৎসাসেবা নিতে ভারত যাচ্ছেন। অসুস্থ বা সংকটাপন্ন রোগীদের বহনে নেই কোনো অ্যাম্বুলেন্স, হুইলচেয়ার বা জরুরি চিকিৎসা ব্যবস্থা। বন্দরের সামনে সড়কের পাশে মাটিতে বসে কিংবা দাঁড়িয়ে বিশ্রাম বা অপেক্ষা করতে হয়। এ সময় অসুস্থ রোগী, বয়স্ক নারী-পুরুষ ও শিশুদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, স্থলবন্দরটিতে ডাম্পিং সুবিধা কার্যকর না হওয়ায় এদেশ থেকে রফতানি করা পণ্যবোঝাই গাড়িগুলো সরাসরি ভারতে প্রবেশ করে মালামাল খালাস করে ফিরে আসে। এতে সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও কর্মসংস্থানও সৃষ্টি হচ্ছে না।

বন্দর সূত্রে জানা যায়, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বিবিরবাজার স্থলবন্দর দিয়ে প্রায় ১২০ কোটি টাকার পণ্য ভারতে রফতানি হয়। এর মধ্যে গত জানুয়ারিতে সর্বাধিক ১৪ কোটি ৭৯ লাখ দুই হাজার ৯১০ টাকার পণ্য রফতানি হয়। আর সবচেয়ে কম রফতানি হয়েছে গত সেপ্টেম্বর মাসে পাঁচ কোটি ৬৩ লাখ ১৭ হাজার ৪০০ টাকার। রফতানি পণ্যের মধ্যে প্রধান হচ্ছে সিমেন্ট। এছাড়া অন্যান্য পণ্য হচ্ছে পাথর, নেট, প্লাস্টিক সামগ্রী, টাইলস্, ঢেউটিন, ইট ভাঙার মেশিন ইত্যাদি।

এদিকে বিপুল সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও ভারত থেকে উল্লেখযোগ্য কোনো পণ্যমাল আসছে না বৈধভাবে। বন্দর সূত্রে জানা যায়, ভারত থেকে বৈধ পথে আসছে শুধু তেঁতুল, বেল ও আদা। গত অর্থবছরে মাত্র ৬৫ লাখ টাকার পণ্য এসেছে এ বন্দর দিয়ে ভারত থেকে।

দায়িত্বশীল সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানায়, প্রতিদিন সীমান্তপথে অবাধে ভারত থেকে কোটি কোটি টাকার পণ্য চোরাইপথে প্রবেশ করায় বৈধ পথে আমদানি প্রায় শূন্যের কোঠায়। সূত্রমতে, প্রতিদিন ভারত থেকে মাদকদ্রব্য ছাড়া চোরাইপথে জিরা, গরু মোটাতাজাকরণ, যৌন উত্তেজক ও নেশাজাতীয় ট্যাবলেট, গরু, ছাগল, মহিষ, মুরগির বাচ্চা, থ্রিপিস, শাড়ি, থান কাপড়, সাইকেল, হোন্ডা, গুঁড়াদুধ, কসমেটিকস, বাঁশ, কাঠ, হরলিক্স, চামড়া, টায়ার, বিভিন্ন যানবাহনের পার্টস, চকোলেটসহ কোটি কোটি টাকার বিভিন্ন ভোগ্যপণ্য আসছে।

এদেশ থেকে যাচ্ছে বিভিন্ন জীবন রক্ষাকারী ওষুধ, আলু, সাবান, মাছ, চিপস ও কোমল পানীয়। বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ী আলম জানান, অবকাঠামোগত সুবিধা না থাকা এবং অবৈধভাবে মালামাল প্রবেশের সুযোগ থাকায় বৈধভাবে বাণিজ্যে আগ্রহী হচ্ছেন না এখানকার ব্যবসায়ীরা।

বন্দরে কর্মরত ইন্সপেক্টর পদমর্যাদার সাধনজিৎ চাকমা বলেন, এখানে ১২টি পদ থাকলেও বর্তমানে ছয়টি পদ শূন্য রয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের কোনো লজিস্টিক সাপোর্ট নেই। এছাড়া ইন্টারনেট সুবিধাও শূন্যের কোঠায়। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, অচিরেই বন্দর অবকাঠামোসহ সব ধরনের সুবিধা প্রদান করা হবে।

আরও পড়ুন