কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,১ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৬ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১৩ সফর, ১৪৪২

আজ কুমিল্লায় ঐতিহাসিক বেতিয়ারা শহীদ দিবস

আজ ১১ নভেম্বর রবিবার বেতিয়ারা শহীদ দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের ভারত সীমান্তবর্তী বেতিয়ারা নামক স্থানে ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি ও ছাত্র ইউনিয়নের যৌথ গেরিলা বাহিনীর ৯ জন বীরযোদ্ধা পাকহানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখ যুদ্ধে শহীদ হন। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের এই ইতিহাসকে সমুজ্জল করে রাখতে প্রতি বছর এদিনটিকে বেতিয়ারা শহীদ দিবস হিসেবে পালিত পালন করা হয় ।

বেতিয়ারায় পাক হানাদার বাহিনীর বিরদ্ধে সম্মুখ সমরে নিহতরা হলেন; নিজাম উদ্দিন আজাদ (ছাত্র নেতা), সিরাজুম মনির জাহাঙ্গীর, জহিরুল হক ভূঁইয়া(দুদু মিয়া), মোহাম্মদ সফি উল্যাহ, আওলাদ হেসেন, আবদুল কাইউম, বশিরুল ইসলাম (বশির মাস্টার), শহীদ উল্যাহ সাউদ ও কাদের মিয়া।

বেতিয়ারা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি রক্ষা পরিষদের আহবায়ক জিয়উল হক জিবুসহ স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে প্রিয় মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করার প্রত্যয়ে বাংলাদেশ কমিউনিষ্ট পার্টির সভাপতি মন্জুরল আহসান খানসহ যৌথ গেরিলা বাহিনীর ৭৮ জন সদস্য ভারতের বিভিন্ন ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।দেশে ফিরে যুদ্ধে অংশ নেয়ার উদ্দেশ্যে এ সব গেরিলা যোদ্ধাগণ ভারতের বাইকোয়া বেইজ ক্যাম্প থেকে ১০নভেম্বর রাত ৮ টায় চৌদ্দগ্রাম সীমান্তবর্তী ভৈরব নগর সাব ক্যাম্পে (চৌত্তাখোলা ক্যাম্পের শাখা) পৌঁছেন।

এ বাহিনীর পরিকল্পনা ছিল দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক, শ্রমিক নেতা রুহুল আমিন কায়সারের সঙ্গে যোগাযোগ করে নোয়াখালীর সেনবাগ ও কাজীর হাট এলাকা নিয়ে একটি মুক্তাঞ্চল গড়ে তোলা।ভৈরব নগর সাব ক্যাম্পের দুই জন মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের বিএসসি ও সামসুল আলম ওই রাতেই গেরিলা বাহিনীর ওই দলটির বাংলাদেশে প্রবেশের নকশা প্রণয়ন করেন। প্রণীত নকশা অনুযায়ী সাব ক্যাম্পের ৩৮জন গেরিলা মুক্তিযোদ্ধা কে দুই ভাগে বিভক্ত করে বেতিয়ারা চৌধুরী বাড়ির দু’পাশে এ্যাম্বুশ পাতেন। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক শত্রু মুক্তকিনা পরীক্ষা করার জন্য স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা আবদুল কাদের ও আবদুল মন্নান কে ওই সড়কে পঠানো হয়।

সিগনালের দায়িত্বে থাকা কাদের ও মন্নান মহাসড়ক শত্রুমুক্ত বলে রাত ১২ টায় মূল বাহিনীকে জানায়। তাদের তথ্যের ভিত্তিতে যৌথ গেরিলা বাহিনীর ৩৮ জনের এ দলটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অতিক্রমের জন্য এগিয়ে আসে।এসময় সড়কের অপর (পশ্চিম) পাশে গাছের আড়ালে এ্যাম্বুশ পেতে লুকিয়ে থাকা হানাদার বাহিনী অতর্কিতে ব্রাশ ফায়ার শুরু করে।এতে ৯ গেরিলা যোদ্ধা ঘটনা স্থলেই শহীদ হন এবং বেশ ক’জন আহত হন। এক সপ্তাহ পর স্থানীয় লোকজন ধান ক্ষেত থেকে শহীদদের গলিত লাশ উদ্ধার করে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পার্শ্বে একটি গর্ত খুঁড়ে মাটি চাপা দেয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণপণ লড়াইয়ে ২৮ নভেম্বর চৌদ্দগ্রামের এ জগন্নাথ দীঘি অঞ্চল শত্র মুক্ত হয়। পরদিন ২৯ নভেম্বর স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং মুক্তিযোদ্ধাগন গর্ত থেকে লাশগুলো উত্তোলন করে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক মাওলানা আব্দুল আলীর (মরহুম) মাধ্যমে নামাজে জানাজা দিয়ে মহাসড়কের পশ্চিম পার্শ্বে দ্বিতীয়বার দাফন করেন এবং শহীদদের গণ কবরের উপর স্বাধীন বাংলার লাল সবুজের পতাকা উত্তোলন করে পার্শ্বেই নির্মান করেন স্মৃতিস্তম্ভ।

মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি রক্ষা পরিষদের সভাপতি জিয়াউল হক জিবু জানান, মহাসড়ক ৪ লেনে উন্নীত করার কাজ শুরু হলে ৯ শহীদের গণকবর ও স্মৃতিস্তম্ভ¢ মহাসড়কের মধ্যে পড়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজনের অনুরোধের প্রেক্ষিতে ফোরলেন প্রকল্পের ঠিকাদার ২০১৫ সনের জুনে গণকবরটি মহাসড়কের পূর্ব পাশে সড়ক ও জনপথের ৪০ শতক জায়গায় স্থানান্তর করে ।

আজ রবিবার দিবসটি পালনের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, সকাল ৬টায় পতাকা উত্তোলন বেলা ১২টা পর্যন্ত দেশের বিভিন্নস্থান থেকে আসা ব্যক্তিবর্গরা শহীদবেদীতে ফুল দেবেন। বাদ জোহর আলোচনা সভা ও বাদ আসর শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনার মধ্যদিয়ে কর্মসূচির সমাপ্ত ঘটবে।

আরও পড়ুন