কুমিল্লা
রবিবার,১৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ৩ শাওয়াল, ১৪৪২

নাঙ্গলকোটে সাংবাদিক নঈম নিজামের অনন্য দৃষ্টান্ত

সাংবাদিক নঈম নিজাম / ফাইল ছবি

কুমিলার নাঙ্গলকোটের কৃতি সন্তান, দেশের সর্বাধিক প্রচারিত দৈনিক ‘বাংলাদেশ প্রতিদিন’ সম্পাদক, জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেল ‘নিউজ টোয়েন্টি ফোর’ এবং ‘রেডিও ক্যাপিটাল’ এর প্রধান নির্বাহী (সিইও) নঈম নিজাম এর উদারতায় পাল্টে গেছে নাঙ্গলকোটের ‘হেসাখাল বাজার নঈম নিজাম কলেজ’। কলেজটিকে ডিগ্রী পর্যায়ে উন্নীত, কলেজের নতুন নামকরণ ও কলেজের জন্য জায়গা ক্রয়সহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে এ পর্যন্ত তিনি ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সর্বমোট ৪৪ লাখ টাকা অনুদান দিয়ে গ্রামীন জনপদে শিক্ষা বিস্তারে অনন্য নজির স্থাপন করেছেন।

সাংবাদিক হয়েও শিক্ষার প্রতি নঈম নিজাম এর এমন আন্তরিকতায় নাঙ্গলকোটের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের মুখে তাঁর প্রশংসার কথা শুনা যাচ্ছে। একজন প্রকৃত শিক্ষানুরাগী হিসেবে নঈম নিজাম যে উদারতা দেখিয়েছেন নাঙ্গলকোটে তা ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। এজন্য অনেকে তাঁকে ‘শিক্ষারত্ম’ উপাধি দিয়েছেন।

সূত্র মতে- একসময়ের উন্নয়ন বঞ্চিত নাঙ্গলকোটের হেসাখাল এলাকায় শিক্ষার আলো বঞ্চিত থাকলেও ওই এলাকার মেধাবী ও উদ্যমী ব্যক্তিত্ব আবদুল মতিন ঠিকাদারী ব্যবসায় নিজের উপার্জিত অর্থে ও এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ১৯৯৬ সালে হেসাখাল বাজার কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। এলাকাবাসীর অনুরোধে কলেজটির অধ্যক্ষের দায়িত্ব নেন লাকসাম নওয়াব ফয়জুন্নেছা সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি আবদুল মতিন। শুরুতে প্রতিষ্ঠানটি উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত পাঠদানের অনুমতি লাভ করে। কলেজটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে কোন বেতন না নেয়ায় কলেজের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনায় চরম আর্থিক সংকট দেখা দেয়। গ্রামীন জনপদে উচ্চ শিক্ষা বিস্তারে প্রতিষ্ঠানটিকে ডিগ্রী পর্যায়ে উন্নীত করতে এলাকাবাসীর স্বপ্ন থাকলেও নানা প্রতিবন্ধকতায় সেই স্বপ্ন পূরণ হচ্ছিল না।

২০০৮ সালে কলেজ অধ্যক্ষ আবদুল মতিনের প্রস্তাবে ও এলাকাবাসীর মতামতের ভিত্তিতে সাংবাদিক নঈম নিজামকে কলেজটির গভর্নিং বডির সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর নঈম নিজাম ব্যক্তিগত তহবিল থেকে কলেজের উন্নয়নে ৪ লাখ টাকা প্রদান করে কলেজের আজীবন দাতা সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে কলেজের নতুন নামকরণে ১৫ লাখ টাকা এবং বিভিন্ন সময়ের কলেজের জন্য জায়গা ক্রয় সহ বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে তিনি ব্যক্তিগত তহবিল থেকে আরো ২৫ লাখ টাকা অনুদান প্রদান করেন। কলেজটির উন্নয়নে তিনি এ পর্যন্তসর্বমোট ৪৪ লাখ টাকা অনুদান প্রদান করেছেন। কলেজটির প্রতি সাংবাদিক নঈম নিজামের এমন আন্তরিকতায় এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে কলেজটিকে ‘হেসাখাল বাজার নঈম নিজাম ডিগ্রী কলেজ’ এ নামকরণ করা হয়।

কলেজটিকে ঘিরে নঈম নিজাম এর স্বপ্ন আকাশছোঁয়া। সাম্প্রতিক তাঁর একান্ত প্রচেষ্টায় কলেজটিকে ডিগ্রী পর্যায়ে উন্নীত করা হয়েছে। এতে ওই এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ মহাখুশি। একজন সাংবাদিক হয়েও নাঙ্গলকোটের গ্রামীন জনপদে শিক্ষা বিস্তারে নঈম নিজাম একের পর এক যে অবদান রেখে চলেছেন তাতে তিনি প্রশংসিত হচ্ছেন। অনবদ্য এমন অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ অনেকে তাকে ‘শিক্ষারতœ’ হিসেবেও উপাধি দিয়েছেন।

গত ৬ নভেম্বর কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি সাংবাদিক নঈম নিজাম কলেজে আকস্মিক সফরে এলে কলেজের শিক্ষক-শিক্ষিকা, ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও এলাকাবাসীর ভালোবাসায় সিক্ত হন। পরে নঈম নিজাম এর জন্মদিন পালন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় নঈম নিজাম কলেজটির সার্বিক উন্নয়নে সহযোগিতা ও শিক্ষার মানোন্নয়নে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

এলাকাবাসীর মতে- নঈম নিজাম ‘হেসাখাল বাজার নঈম নিজাম ডিগ্রী কলেজে’র গভর্নিং বডির সভাপতি হওয়ার পর থেকে পাল্টে গেছে কলেজটির চিত্র। একসময় ওই এলাকার শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করতে দুঃশ্চিন্তায় পড়লেও এখন সন্তানদের উচ্চ শিক্ষা নিয়ে তাদেরকে ভাবতে হয়না। বিনা বেতনে এ কলেজ থেকেই এলাকার শিক্ষার্থীরা ডিগ্রী পাশ করার সুযোগ পাবে। নঈম নিজাম ভবিষ্যতে তাঁর সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা দিয়ে কলেজটিতে অনার্স কোর্স চালু করতে সক্ষম হবেন বলে এলাকাবাসী দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল মতিন জানান- নাঙ্গলকোটের গর্ব নঈম নিজাম কলেজটিকে ডিগ্রী পর্যায়ে উন্নীত, কলেজের জায়গা ক্রয়সহ কলেজের বিভিন্ন উন্নয়নে একের পর এক যে ভূমিকা রেখে চলেছেন তা অবিস্মরণীয়। তাঁর এমন উদারতায় আমরা কলেজের সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা ও এলাকাবাসী তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের খ্যাতিমান সাংবাদিক নঈম নিজাম ৯০ দশকের পর থেকে নাঙ্গলকোটের উন্নয়নে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে আসছেন। ১৯৯৬ সালের নির্বাচন পরবর্তী সময় থেকে অধ্যাবধি পর্যন্ত নাঙ্গলকোটের শিক্ষা, চিকিৎসা ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে তিনি প্রশংসনীয় অবদান রেখে আসছেন।

আরও পড়ুন