কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

নানা কর্মসুচির মধ্যদিয়ে কুমিল্লায় বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত

নানা কর্মসুচির মধ্যদিয়ে কুমিল্লায় বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে কুমিল্লা নগরীতে র‌্যালী, বিনামূল্যে ডায়াবেটিস পরীক্ষা, সচেতনামূলক সভা ও সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল “ডায়াবেটিস প্রতিটি পরিবারের উদ্বেগ”। এই উপলক্ষে জেলা সিভিল সার্জন মিলনায়তনে খায়রুন্নেছা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল ও জেলা সিভিল সার্জনএর যৌথ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মুজিবুর রহমান।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএমএ কুমিল্লার সভাপতি ডাঃ আবদুল আনিস বাকী। অনুষ্ঠানে মূল বিষষের ওপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএমএ কুমিল্লার সাধারণ সম্পাদক ও খায়রুন্নেছা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এর পরিচালক ডাঃ আতাউর রহমান জসিম। বিষয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করে আরো বক্তব্য রাখেন ডাঃ আবদুল আউয়াল সোহেল,ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ শাহাদাৎ হোসেন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মোরশেদুল আলম,ডাঃ তাইফুর রহমান, ও পপুলার ফার্মার প্রতিনিধি মোঃ নুরুল ইসলাম।

সভায় বক্তরা বলেন, ডায়াবেটিস প্রতিরোধ বা নিয়ন্ত্রনে রাখতে হলে আমাদেরকে শৃংখলার মধ্যে জীবন যাপন করতে হবে। পরিশ্রম করতে হবে এবং খাবার তালিকায় ভাত,চিনি ও লবন কমাতে হবে। বিশ্বজুড়ে ডায়াবেটিস রোগ ব্যাপক হারে বেড়ে যাওয়ায়, বিশ্ব ডায়াবেটিস ফেডারেশন (আইডিএফ) ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ১৯৯১ সাল-এ ১৪ নভেম্বরকে ডায়াবেটিস দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। এদিন বিজ্ঞানী ফ্রেডরিক বেনটিং জন্ম নিয়েছিলেন এবং তিনি বিজ্ঞানী চার্লস বেস্টের সঙ্গে একত্রে ইনসুলিন আবিষ্কার করেছিলেন। ২০০৭ সালে সিদ্ধান্ত হয়, ডায়াবেটিস প্রতিরোধ অভিযান পরিচালনার থিমটি আরও দীর্ঘ সময় ধরে থাকবে। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস ২০০৭-০৮ এর থিম নির্ধারিত ছিল ‘শিশু ও তরুণদের মধ্যে ডায়াবেটিস’।

২০০৯ থেকে ২০১৩ সালের থিম নির্ধারিত হয়েছিল, ‘ডায়াবেটিস শিক্ষা ও প্রতিরোধ’। ২০০৭-০৮ সালে এই অভিযানের মূল লক্ষ্য ছিল আরও বেশি শিশু ও তরুণকে এই পরিচর্যার আওতায় আনা। ডায়াবেটিসের জরুরী সংকেত সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করা। আর শিশুদের মধ্যে টাইপ-২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধের জন্য স্বাস্থ্যকর জীবন যাপনকে আরও জনপ্রিয় করে তোলা।

বাংলাদেশে ডায়াবেটিস রোগী রয়েছে প্রায় ৯০ লাখ, বছরে বাড়ছে আরও ১ লাখ রোগী। ডায়াবেটিস প্রতিরোধে এখনই কার্যকর উদ্যোগ না নিলে বিশ্বে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে ৫৫ কোটি ছাড়িয়ে যাবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, সুশৃঙ্খল জীবনযাপন করলে রোগী নিজেই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। সব বয়সের মানুষই আজ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হচ্ছে। প্রতিবছরই দ্বিগুণহারে বাড়ছে নতুন নতুন ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা।

সচেতনতার অভাবে অনেকেই এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বর্তমানে সারাবিশ্বে ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা বিবেচনায় বাংলাদেশের অবস্থান ১০ম স্থানে।

আরও পড়ুন