কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১০ সফর, ১৪৪২

কুমিল্লা-৯ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী যারা

কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি থেকে দুই ডজন মনোনয়নপ্রত্যাশী মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। এই তিনটি দলই আসনটি তাদের দখলে রাখতে চায়।

আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা হলেন- কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বর্তমান এমপি মো. তাজুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা লায়ন মো. নুরুন্নবী ভূইয়া কামাল, আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি উপ-কমিটির সদস্য দেলোয়ার হোসেন ফারুক, বায়রা সভাপতি শাহজালাল মজুমদার, লেখক-সাংবাদিক শিব্বির আহমেদ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি অহিদুর রহমান জয়, জোসাইস বাবর ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. শাহ আলম। তারা সবাই মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

বিএনপি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা হলেন- কেন্দ্রীয় বিএনপির কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এবং সাবেক এমপি কর্নেল (অব.) এম আনোয়ারুল আজিম, কেন্দ্রীয় বিএনপির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম, কেন্দ্রীয় যুবদলের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক ড. রশিদ আহমেদ হোসাইনী ও সফিকুর রহমান সফিক, বিএনপির গুম হওয়া দুই নেতা লাকসাম উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম হিরুর একমাত্র ছেলে রাফসান ইসলাম ও হুমায়ুন কবির পারভেজের পত্মী শাহনাজ আকতার রানু। তারা সবাই মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

এছাড়া জাতীয় পার্টিতে বিএনপি থেকে সদ্য যোগদানকারী সাবেক এমপি এটিএম আলমগীর, তরিকত ফেডারেশনের সৈয়দ রেজাউল হক চাঁদপুরী ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ কুমিল্লা জেলার সভাপতি মীর মোহাম্মদ আবু বাকার মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

নবম ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে এমপি হয়েছেন মো. তাজুল ইসলাম। এবারও তিনি কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী। কিন্তু, এই বছরের শুরুতে আসনটির সাবেক এমপি বিএনপি নেতা এটিএম আলমগীর মহাজটের শরীক দল জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের হাত ধরে। তাই এখানে মহাজোটের একাধিক প্রার্থী।

কুমিল্লা-৯ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী হওয়ার কারণ জানতে চাইলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি অহিদুর রহমান জয় বলেন, ‘আওয়ামী লীগ দেশের একটি বৃহত্তর সংগঠন। এখানে একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশী হওয়াই স্বাভাবিক। তবে, আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন করে আত্মীয়করণ ও ভিন্ন আদর্শের ব্যক্তিদের দিয়ে স্থানীয় এমপি রাজনীতি করার কারণে এমনটি হয়েছে।’

আসনটি জাতীয় পার্টিকে দেওয়া হলে সেই বিষয়ে আপনার কি বলার আছে। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘মহাজোটের প্রার্থী মানেই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী।’

বিএনপির সাবেক এমপি কর্নেল (অব.) আনোয়ারুল আজিম বলেন, ‘একটি বড় দলে একাধিক প্রার্থী, দলীয় দ্বন্দ্ব ও কোন্দল থাকতেই পারে। আমি মনে করবো কেন্দ্রের নীতি-নির্ধারকরা কোন দ্বন্দ্ব ও কোন্দলকে মাথায় না নিয়ে প্রার্থীর জনপ্রিয়তাকেই প্রাধান্য দিয়ে দলীয় মনোনয়ন দেবেন।

এছাড়া যারা বিগত নির্বাচনে দলের প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করেছেন এবং দলের নিশ্চিত বিজয় নস্যাৎ করেছেন, তারা কোনোভাবেই দলের পরিচয় বহন করতে পারে না। আমি সব সময় দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে আন্দোলন-সংগ্রামে আছি, থাকবো। মনোনয়ন নয়, লাকসাম ও মনোহরগঞ্জ উপজেলায় দলকে সু-সংগঠিত করে আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনে দলকে বিজয়ী করাই আমার লক্ষ্য।’

আরও পড়ুন