কুমিল্লা
সোমবার,১৯ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৬ বৈশাখ, ১৪২৮ | ৬ রমজান, ১৪৪২

যে ১৬টি আসনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীশূন্য

ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীশূন্য ১৬ আসন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীশূন্য ১৬টি আসন। হাইকোর্ট এসব আসনে ধানের শীষ নিয়ে লড়া প্রার্থীদের প্রার্থিতা স্থগিত করেছেন। এ ছাড়া দুই স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) প্রার্থীর প্রার্থিতাও স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট।

পৃথক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচনকালীন বিষয় নিষ্পত্তির এখতিয়ারসম্পন্ন বেঞ্চের বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি খায়রুল আলম প্রায় সব আদেশ দিয়েছেন। আপিল বিভাগও আদেশগুলো বহাল রাখেন।

যেসব আসনের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী নেই: ঢাকা-১ আসনের খন্দকার আবু আশফাক, ঢাকা ২০-এ তমিজ উদ্দিন, বগুড়া ৭-এ মোর্শেদ মিল্টন, জামালপুর ৪-এ ফরিদুল কবির তালুকদার শামীম, জয়পুরহাট ১-এ মো. ফজলুর রহমান, ঝিনাইদহ-২ আসনের মো. আব্দুল মজিদ, রাজশাহী ৬-এ আবু সাঈদ চাঁদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৪-এ ইঞ্জিনিয়ার মোসলেম উদ্দিন, দিনাজপুর ৩-এ সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম, নিলফামারী-৪ আসনে মো. আমজাদ হোসেন সরকার, নাটোর ৪-এ আব্দুল আজিজ, নরসিংদী ৩-এ মঞ্জুর এলাহী, গাইবান্ধা ৪-এ ফারুক কবির আহমেদ, জামালপুর ১-এ রশিদুজ্জামান মিল্লাত, সিলেট ২-এ তাহসিনা রুশদীর লুনা, মানিকগঞ্জ-৩ আসনে আফরোজা খান রীতা।

আরও পড়ুন: এক ক্লিকে একাদশ নির্বাচনের কুমিল্লা জেলার সব খবর

এদের মধ্যে ১২ জন উপজেলা চেয়ারম্যান ও একজন মেয়র পদে থেকে মনোনয়নপত্র দাখিল করায় তাদের প্রার্থিতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। ওই রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট ১২ উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রার্থিতা স্থগিত করে রুল জারি করেন। এসব আদেশের বিরুদ্ধে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীরা আপিল বিভাগে গেলে হাইকোর্টের আদেশই বহাল রাখা হয়।

আবার নির্বাচন কমিশন ও রিটার্নিং অফিসার নিলফামারী-৪ আসনের বিএনপির প্রার্থী মেয়র মো. আমজাদ হোসেন সরকারের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করতে হাইকোর্ট নির্দেশ দিলেও পরবর্তীতে আপিল বিভাগ সেই আদেশ স্থগিত করেন। এ ছাড়া দুজন ঋণখেলাপি, একজন স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে চাকরি থেকে অবসরের পর নির্দিষ্ট সময়সীমা উত্তীর্ণ না করায় এবং দণ্ডিত হওয়ার কারণে তাদের প্রার্থিতাও স্থগিত করে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। পরে আপিল বিভাগও হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখেন। ফলে এসব প্রার্থী চূড়ান্তভাবে নির্বাচন থেকে ছিটকে পড়েন।

জানা গেছে, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রস্তাব অনুযায়ী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ২৯৮ প্রার্থীকে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দেয় ইসি। ১৬ জনের প্রার্থিতা স্থগিত হওয়ায় এখন সেই প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৮২ জনে। এ ছাড়া ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী কক্সবাজারের হামিদুর রহমান আজাদ ও কর্নেল অলি আহমদ চট্টগ্রাম থেকে স্বতন্ত্র প্রতীকে নির্বাচন করছেন। যেসব আসনে ধানের শীষ প্রতীকে প্রার্থী নেই, সেগুলোতে কিছু কিছু ছোট দলের স্বতন্ত্র প্রার্থীকে বিএনপির পক্ষ থেকে সমর্থন দেওয়ার কথা জানা গেছে। এ ছাড়া উচ্চ আদালতের নির্দেশে ময়মনসিংহ-৮ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) মাহমুদ হাসান সুমন ও রংপুর-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আসাদুজ্জামান বাবলুর প্রার্থিতা স্থগিত রয়েছে।

ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী বদল: পাঁচটি আসনে দলের প্রস্তাব অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন থেকে যাদের ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল, উচ্চ আদালতের নির্দেশে তাদের প্রতীক অন্যকে দেওয়া হয়েছে। এদের মধ্যে মানিকগঞ্জ-১ আসনে এসএ জিন্নাহ কবিরের পরিবর্তে খন্দকার আব্দুল হামিদ ডাবলু, নাটোর ১-এ কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের মঞ্জুরুল ইসলাম বিমলের পরিবর্তে কামরুন্নাহার শিরিন, নওগাঁ ১-এ ডা. ছালেক চৌধুরীর পরিবর্তে মোস্তাফিজুর রহমান, বগুড়া ৩-এ আব্দুল মুহিত তালুকদারের পরিবর্তে মাসুদা মমিন ও রাজশাহী-৫ আসনে নাদিম মোস্তফার পরিবর্তে অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম ধানের শীষ প্রতীক পেয়েছেন।

আরও পড়ুন