কুমিল্লা
মঙ্গলবার,১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ ফাল্গুন, ১৪২৬ | ২৩ জমাদিউস-সানি, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

কুমিল্লার একমাত্র নারী প্রার্থী সেলিমা আহমাদ মেরির জয়

সেলিমা আহমাদ মেরি / ফাইল ছবি

১৯৭৩ সালের পর কুমিল্লা-২ (হোমনা-তিতাস) আসনে নৌকার ঐতিহাসিক বিজয় অর্জন হয়েছে। এখানে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচণে ৯৮ টি কেন্দ্রে ২ লাখ ৯৬ হাজার ২৭ ভোটের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নিটল-নিলয় গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান বিশিষ্ট নারী উদ্যোক্তা সেলিমা আহমাদ মেরী সিআইপি (নৌকা) প্রতিকে পেয়েছেন ১ লাখ ৯৬ হাজার ১২ ভোট।

তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপি মনোনীত প্রার্থী বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন (ধানের শীষ) প্রতিকে পেয়েছেন ২০ হাজার ৯শ’ ২৫ ভোট। ৩ হাজার, ৮শ’ ৯৫ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছে চরমোনাইর পীর মনোনীত ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম (হাতপাখা) প্রতিক।

জানা যায়, ১৯৭৩’র পর বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রয়াত সাবেক মন্ত্রী এমকে আনোয়ার দখলে চলে যায় কুমিল্লা-২ আসনটি। এ আসনটি পুনরোদ্ধারে হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ খুব শক্তভাবে মরণ কামড় দিয়ে মাঠে-ঘাটে চষে বেড়িয়েছেন দীর্ঘ ২২ বছর। এভাবেই মানুষের কাছে পৌছে যান এবং নৌকার পরিচয় তুলে ধরেন সর্বস্তরের মানুষের কাছে।

আরও পড়ুন: এক ক্লিকে একাদশ নির্বাচনের কুমিল্লা জেলার সব খবর

যার ফলে তাকে ৩ বার নৌকার টিকিট প্রদান করা হয়। মজিদ স্যারের অগাধ জনপ্রিয়তা থাকায় এবং শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বি এমকে আনোয়ারের মৃত্যুর পর তাঁর উত্তরসুরি হিসেবে হোমনা-তিতাস থেকে বিএনপি নতুন কোন নেতৃত্ব সৃষ্টি করতে না পাড়ায় আওয়ামী লীগের নতুন মুখ হিসেবে বিশিষ্ট নারী উদ্যোক্ত সেলিমা আহমাদ মেরী তুরুপের তাস হয়ে নেতাকর্মীদের মাঝে আবিস্কার হন এবং তার ব্যপক সুনাম ও ব্যক্তিত্বের ফলে দীর্ঘ ৪৫ বছরের পরাজয়ের ক্ষুধা মিটিয়ে ঐতিহাসিক বিজয় অর্জণ করেন।

দু’টি উপজেলার ৯৮টি কেন্দ্রের মধ্যে কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সকাল ৮টা থেকে টানা ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। পরে বিভিন্ন কেন্দ্রের ফলাফল এসে স্ব স্ব উপজেলায় পৌছলে উপজেলা সহকারী রিটানিং কর্মকর্তাগণ বেসরকারীভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য, সবশেষ ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচণে নৌকার দলীয় প্রার্থী হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ আব্দুল মজিদ বিএনপি’র হেভি ওয়েট প্রার্থী প্রয়াত এমকে আনোয়ারের সাথে মাত্র ১৭ হাজার ৪৩৯ ভোটের ব্যবধানে হেরে যায়। সে নির্বাচনে বিএনপি’র প্রার্থী ৯৪ হাজার ১শ’ ৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি পেয়েছিলেন ৭৬ হাজার ৬শ’ ৬৬ ভোট।

আরও পড়ুন