কুমিল্লা
সোমবার,২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

নাঙ্গলকোট-চৌদ্দগ্রামের অর্ধ লাখ মানুষের একমাত্র ভরসা বাঁশের সাঁকো

ডাকাতিয়া নদীর ওপর গ্রামবাসির উদ্যোগে বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন পারাপার হচ্ছে হাজারও মানুষ / ছবি: নতুন কুমিল্লা

নাঙ্গলকোট-চৌদ্দগ্রাম দু’উপজেলার বুক চিরে আকাঁ বাকাঁ ভাবে বয়ে গেছে ডাকাতিয়া নদী। যা নাঙ্গলকোট উপজেলা থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার পূর্ব-দক্ষিণে ও চৌদ্দগ্রাম উপজেলা থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার পশ্চিম-দক্ষিণে অবস্থিত। নাঙ্গলকোট উপজেলার ঢালুয়া ইউপির ও চৌদ্দগ্রাম উপজেলার গুণবতী ইউপির ননুয়াকান্দি গ্রামে ডাকাতিয়া নদীর ওপর সেতু না থাকায় দু’উপজেলার ১৫টি গ্রামের অন্তত অর্ধ লাখ মানুষ দূর্ভোগের শিকার হচ্ছে।

এলাকাবাসী এ নদীর উপর নিজ উদ্যোগে স্থানীয়রা বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন পারাপার হচ্ছেন। সবচেয়ে বেশি বিড়ম্বণায় পরেছে প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা। এসব শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাঁকো পাড় হয়ে স্কুলে যাতায়াত করতে হচ্ছে। নদীর ওপর সেতু নির্মাণের জন্য দীর্ঘকাল ধরে উপরস্থ দপ্তরে ধরনা দিলেও এখন পর্যন্ত ব্রিজ নির্মাণের কোনো উদ্যোগ নেয় হয়নি।

স্থানীয় বজলে রহমানের ছেলে সফিকুর রহমান নতুন কুমিল্লাকে জানিয়েছেন, নদীর ওপাড়ে চৌদ্দগ্রাম অংশে একটি মসজিদ ও মাদ্রাসা রয়েছে।পাশাপাশি দু’উপজেলার ১৫ গ্রামের জনগণের জাতায়াতের একমাত্র নড়বড়ে এ সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন বিভিন্ন পেশা ও স্কুল কলেজ শিক্ষার্থীরা চলাচল করে। এতে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় শিকার হয় কেউ না কেউ। এ দুর্ঘটনা থেকে বাঁচতে গ্রাম বাসির উদ্যোগে নদীর ওপর ১৪-১৮ পিলার করে প্রায় ৩ শত মিটারের একটি বাঁসের সাঁকো নির্মাণ করে। বর্তমানে সাঁকোটি দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পার হচ্ছে এলাকার সকল শ্রেনি-পেশার মানুষ।

দূর্ঘটানার শিকার হওয়া ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী ফারিয়া আক্তার নতুন কুমিল্লাকে বলেন, স্কুলে যাওয়ার সময় বাঁশের সাঁকো দিয়ে নদী পার হতে গিয়ে নদীতে পড়ে আমার পায়ে ব্যাথা পেয়েছি। যার ফলে প্রায় ৬-৭ দিন অসুস্থ্য হয়ে বিদ্যালয়ে যেতে পারিনি। বর্ষাকালে তাদের এ ঝুঁকি আরো বেড়ে যায়। বর্তমান সরকারের কাছে আবেদন যেন এ সাঁকো বাদ দিয়ে ব্রিজ করে দেয়।

আব্দুল মতিন নামের ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধ নতুন কুমিল্লাকে জানান, আমরা দু’উপজেলার সিমান্তে বাস করি। কেউ আমাদের খবর নেয় না। ভোট আসলে তাদের দেখা যায়। দেয় বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি, কিন্তু কিছুই হয় না। এ অঞ্চলটি কৃষি প্রধান এলাকা ননুয়াকান্দি থেকে শুরু করে দু’উপজেলার মানুষ বিভিন্ন কৃষি সামগ্রী নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে নদী পারা পার হয়। এতে তাদের দূর্ঘটনার শিকার হতে হয়। যা গ্রামবাসীর একটি সেতুর জন্য দুর্ভোগের সীমা নেই।

স্থানীয় ঢালুয়া ইউপির চেয়ারম্যান নাজমুল হাছান ভূঁইয়া বাছির নতুন কুমিল্লাকে জানান, ডাকাতিয়া নদীর ওপর বাঁশের সাঁকোটিকে বাদ দিয়ে ব্রিজ নির্মাণ করার জন্য কর্মকর্তাদের জানানো হবে।

এ ব্যাপারে নাঙ্গলকোট উপজেলা প্রকৌশলী জাবেদ হোসেন নতুন কুমিল্লাকে বলেন, বাঁশের সাঁকোটির বিষয়ে আমার জানা নেই। খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট উপজেলা নির্বাহী অফিসার নতুন কুমিল্লাকে জানান, দু’উপজেলার প্রকৌশলীদের সাথে আলোচনা করে এ ঝুঁকিপূর্ণ সাঁকোটিকে প্রকল্পের আওতায় আনার প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন