কুমিল্লা
শনিবার,২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৬ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

গৃহবধুকে গণধর্ষণ: অপরাধীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি

প্রতীকী ছবি

ভোটের দিন বাকবিতন্ডার জেরে নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন চার সন্তানের জননী। গত ৩০ ডিসেম্বর রোববার রাতে স্বামী ও সন্তানদের বেঁধে রেখে এ নির্মম ঘটনাটি করে দূর্বৃত্ত দল। ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত অপরাধীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি করেছেন দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গসহ দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, বাংলাদেশ নারী মুক্তি কেন্দ্র, হিউম্যান রাইটস ফোরাম বাংলাদেশ ও দেশের মালিকানা ফিরে পেতে সংগ্রামরত জনগণ।

ধর্ষণের শিকার ওই নারী সাংবাদিকদের জানান, নির্বাচনের দিন মধ্যরাতের পর ১০ থেকে ১২ জন লোক হাতে লাঠিসোটা নিয়ে বেড়া কেটে তাঁর বাড়িতে ঢুকে। তারপর তারা তাঁর সিএনজি-চালিত অটোরিকশার ড্রাইভার স্বামী ও চার সন্তানকে দড়ি দিয়ে বেঁধে ফেলে। এরপর তারা তাঁকে ঘরের বাইরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ বিষয়ে মুখ খুললে তাঁর স্বামী ও সন্তানদের মেরে ফেলা হবে এবং বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছে ধর্ষণকারীরা। চর জুবিলী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য রুহুল আমীনের নেতৃত্বে এই পাশবিক কাজ করা হয়েছে বলে জানান ওই নারী।

পরদিন সোমবার রাতে নির্যাতিত গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে চরজব্বার থানায় ৯ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করেন। এতে উল্লেখ করা হয়-রোববার দুপুরে সংসদ নির্বাচনে সুবর্ণচর উপজেলার চরজুবলী ইউনিয়নের ১৪নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যান। ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দেওয়ায় ওই নারীর সঙ্গে কেন্দ্রে থাকা স্থানীয় আ’লীগ নেতাকর্মীদের তর্ক হয়। যুবকরা ওই নারীকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। পরে ওই রাতেই গণধর্ষণের শিকার হন চার সন্তানের জননী ওই গৃহবধু।

মামলা দায়েরের পর চরজব্বার থানার ওসি নিজাম উদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশ প্রধান আসামী স্থানীয় আ’লীগ নেতা রুহুল আমিনসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে। এরমধ্যে মঙ্গলবার স্বপন মিয়া, বাদশাহ আলম ওরফে বাসু, বুধবার দুপুরে সোহেল, রাতে প্রধান আসামী রুহুল আমিন ও বেচু মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়।

দলবেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িতদের কেউ ছাড় পাবে না বলে মন্তব্য করেছেন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ২ জানুয়ারি বুধবার সচিবালয়ে তিনি বলেন, ‘এ ধরনের ঘটনা অবশ্যই নিন্দনীয় এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ ব্যাপারে সরকার কঠোর অবস্থানে আছে। অপরাধী যে-ই হোক শাস্তি তাকে পেতেই হবে’।

ছবি: সংগৃহীত

একইদিন বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ধর্ষণের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও অবিলম্বে ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ নারী মুক্তি কেন্দ্র। সংগঠনের সভাপতি সীমা দত্ত বলেন, ‘একটা দেশে নারী ও শিশুর অবস্থান নির্ণয় করে- সে দেশের মানুষ কেমন আছে। নোয়াখালীর সুবর্ণচরে একজন মা যেভাবে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হলেন, তা কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়’। তিনি অভিযোগ করেন-‘গত ১০ বছরে এই সরকার নারীর নিরাপত্তা দিতে পারেনি। তনু হত্যা, বর্ষবরণে নারী নিপীড়নসহ সর্বশেষ সুবর্ণচরে চার সন্তানের জননীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় সরকার কোনও উদ্যোগ নেবে না। তাই সাধারণ মানুষকে আজ এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে’।

ঘটনাটি খতিয়ে দেখতে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্রের দুটি তদন্ত দল বুধবার নোয়াখালীতে পরিদর্শনে যান। মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত দলের প্রধান আল-মাহমুদ বলেন, ওই নারী ও চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছেন তারা। মেডিকেল প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর কমিশনে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।

৩ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই ধরনের শ্বাসরোধী ঘটনা কেবল পিশাচরাই ঘটাতে পারে। মহাজালিয়াতির ভোটের পর উদ্ধত উলাসে ক্ষমতাসীন দলের কর্মীরা পশুপ্রবৃত্তির প্রকাশ ঘটিয়ে অনাচারে লিপ্ত হয়েছে। এই ঘটনা দেশবাসীর হৃদয়ে ভয়ানক নাড়া দিয়েছে, ব্যথিত করেছে। সিএনজি চালকের স্ত্রীকে নির্যাতনের মাধ্যমে শ্লীলতাহানীর ঘটনায় সরকারের টনক না নড়লেও বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশের ভাবমর্যাদা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অবিলম্বে ধর্ষণকারী দুষ্কৃতিকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি ও নির্যাতিত মহিলার আশু সুস্থতা কামনা করেন তিনি।

আলোচিত ঘটনাটি রাজনৈতিক দিক থেকে বিবেচনা না করে দায়ীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমুলক দিতে হবে। অপরাধীরা কঠোর শাস্তি পেলে দেশে ধর্ষণের ঘটনা কমবে। না হয়-আজ অন্যের বোন, কাল বা পরশু আমার বোন নির্যাতনের শিকার হবে। অপরাধীদের দমনে আদালত, সরকার, রাজনৈতিক দল ও সামাজিক সংগঠনগুলো এক যোগে কাজ করলে নারীরা মুক্তি পাবে। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নারীদেরকে আরও সচেতন হওয়ার আহবান জানান শিক্ষাবিদরা।

 

আরও পড়ুন