কুমিল্লা
শুক্রবার,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ২৯ মুহাররম, ১৪৪২

এক পলকে এলজিআরডি মন্ত্রী তাজুল ইসলাম’র সংক্ষিপ্ত জীবনী

প্রধানমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন নব মন্ত্রী তাজুল ইসলাম/ ছবি: নতুন কুমিল্লা

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অত্যান্ত আস্থাভাজন কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আসন থেকে চতুর্থ বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন মোঃ তাজুল ইসলাম। তার সততা ও ন্যায় নিষ্ঠার কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় (এলজিআরডি) মন্ত্রণালয় উপহার দিয়েছেন। সোমবার গণভবনে তিনি শপথ গ্রহণ করবেন।

নবঘোষিত মন্ত্রী তাজুল ইসলমের সংক্ষিপ্ত জীবনী ও রাজনৈতিক পথ চলা নাম মোঃ তাজুল ইসলাম, পিতাঃ জুলফিকার আলী, মাতা- আনোয়ারা বেগম। ৩ ভাই ৪ বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। তাঁর নিজ গ্রাম পোমগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষা জীবনের শুরু করেন। মাধ্যমিক পরীক্ষা দেন পোমগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় থেকে।

উচ্চ মাধ্যমিক লাকসাম নওয়াব ফয়জুন্নেছা সরকারি কলেজ এবং বিএ সম্মান (অনার্স) ও এমএ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (ব্যবস্থাপনা বিভাগ) থেকে। শিক্ষা বিস্তারে তাঁর অবদান অনেক, তিনি নিজ এলাকায় অসংখ্য স্কুল কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছেন। তার বাবার নামে একটি কারিগরি স্কুল তৈরি করেছেন। তিনি নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটর হিসেবে দীর্ঘ দিন সফলতার মাধ্যমে দায়িত্ব পালন করেন।

বিবাহিত জীবন: সহধর্মীনি ফৌজিয়া ইসলাম। বিবাহিত জীবনে তিনি ২ ছেলে ২ মেয়ে সন্তানের জনক। মা-বাবার আদর, ভালবাসা ও অনুশাসন মেনে সুন্দরজীবন গড়ে তারা। ছেলেরা শিক্ষাজীবন শেষ করে দেশের মাটিতে বাবার প্রতিষ্ঠিত শিল্প প্রতিষ্ঠানের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে।

মেয়েদের মধ্যে এক জন ব্যারিস্টার আর অন্যজন উচ্চ শিক্ষার জন্য আমেরিকায় পড়াশুনা করতেছে। বিয়ের পর পর চট্টগ্রাম বারো আউলিয়ার জন্মভ‚মিতে সাফল্যের ছোঁয়া পায় মোঃ তাজুল ইসলাম। নিজের মেধা ও যোগ্যতার মাধ্যমে সফল্যের সাথের নিজেকে দাঁড় করান এক নতুন দিগন্তে। ফেবিয়ান গ্রæপ অব ইন্ড্রাট্রিজ সহ বর্তমানে ২০ প্রতিষ্ঠানের সত্ত¡াধিকারী তিনি। যমুনা ব্যাংক সহ ২টি বেসরকারি ব্যাংকের পরিচালনা করছেন তিনি। দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার প্রকাশক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

রাজনৈতিক জীবন: বাংলার দুঃখী মানুষের একমাত্র স্বজন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ শেখ হাসিনার আশির্বাদপুষ্ট জনাব তাজুল ইসলাম ১৯৯৬ সালে সর্বপ্রথম লাকসাম-মনোহরগঞ্জের মাটি ও মানুষের ভালবাসাকে পুঁজি করে মহান জাতীয় সংসদে নৌকা প্রতীক নিয়ে জয়ের মালা পরিধান করে দ‚র্বার গতিতে এগিয়ে যাওয়া একটগবগে যুবক। ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন আবারো তিনি উন্নয়নের প্রতীক নৌকা নিয়ে জয়ী হয়ে মহান জাতীয় সংসদে যান এবং ২০১৪ সালের নির্বাচনে ৩য় বারের মত মহান জাতীয় সংসদে যান। সর্বশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি আবার বিপুল ভোটের ব্যবধানে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে তিনি দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

তিনি তার নির্বাচনী এলাকায় উন্নয়নের পাহাড় গড়ে তুলেছেন তার স্বাক্ষী লাকসাম- মনোহরগঞ্জের সর্বস্তরের জনগণ। জনসেবার মাধ্যমে, নিজেকে জননেতাতে রূপান্তরিত করেছেন। তিনি শিক্ষানুরাগী, সমাজসেবক ও দানবীর। তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকায় আইনের শাসন কায়েম করেছেন, ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করেছেন। মমতাময়ী জননী দেশরতœ শেখ হাসিনা, তাকে হর্ল মার্ক ক্যালেংকারির বিচার বিভাগীয় তদন্তেরর দায়িত্ব ভার দেন, তিনি সফলতার সাথে সুষ্ঠু তদন্তেরর মাধ্যমে সকল প্রকার লোভ লালসার উর্ধ্বে থেকে সঠিক রিপোর্ট শেখ হাসিনার কাছে বুঝিয়ে দেন।

শেখ হাসিনা খুশি হয়ে তাকে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দায়িত্ব দেন। তিনি দিন-রাত অবিরাম পরিশ্রমের মাধ্যমে তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করছেন। তিনি গণমাধ্যমে সরকারের উন্নয়নের কথা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নিজ হাতে গড়া সংগঠনের সাফল্যের ছবি বিশ্বের বুকে তুলে ধরছেন। তাই তো সবাই তাজুল ইসলামকে বলা হয় গণমাধ্যমের বিশ্বায়নের বিশ্লেষক।

আরও পড়ুন