কুমিল্লা
শনিবার,১৫ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ২ শাওয়াল, ১৪৪২

নতুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সংক্ষিপ্ত জীবনী

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল / ফাইল ছবি

সদ্য সমাপ্ত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর কুমিল্লার ১১টি সংসদীয় আসন থেকে কে কে মন্ত্রী হচ্ছেন এমন আলোচনা ছিল সর্বত্র। নিজ নিজ প্রার্থীর পক্ষে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছিল সরব প্রচারণা। তবে বর্তমান পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামাল অর্থমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন এমন আলোচনা ছিল নির্বাচনের পর থেকেই। আর সেসব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে আ.হ.ম মুস্তফা কামালই (লোটাস কামাল) বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেতে যাচ্ছেন। এ খবরে লোটাস কামালের নিজ নির্বাচনী এলাকার (কুমিল্লা-১০ সদর দক্ষিণ, লালমাই-নাঙ্গলকোট) দলীয় নেতাকর্মীসহ কুমিল্লার সর্বমহল উচ্ছ্বসিত। মন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেছেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

অর্থমন্ত্রী লোটাস কামালের বর্ণাঢ্য জীবন:

গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় মন্ত্রী বিশিষ্ট ক্রিকেটানুরাগী যিনি দু’দশকের উপর আবাহনী ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন, দেশের একজন খ্যাতনামা চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট আ হ ম মুস্তফা কামাল ১৯৪৭ সালের ১৫ জুন কুমিলা জেলায় জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মরহুম হাজী বাবরু মিয়া এবং মাতা মিসেস সায়েরা খাতুন।

জনাব কামাল ১৯৭০ সালে তদানিন্তন সমগ্র পাকিস্তানের চার্টার্ড এ্যাকাউন্ট্যান্সি পরীক্ষায় সম্মিলিত মেধা তালিকায় ১ম স্থান অর্জন করেন। এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৭ সালে কমার্সে সম্মান স্নাতক ডিগ্রী এবং ১৯৬৮ সালে এ্যাকাউন্টিংয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন।

এছাড়া, আইন শাস্ত্রেও তিনি স্নাতক ডিগ্রীর অধিকারী। জনাব কামাল ১৯৭০ সালে তদানিন্তন পাকিস্তানে (পূর্ব এবং পশ্চিম পাকিস্তানে একত্রে) চার্টার্ড একাউনটেন্সী পরীক্ষায় মেধা তালিকায় সম্মিলিতভাবে প্রথম স্থান অর্জন করেন। তদানিন্তন পাকিস্তানে (উভয় পাকিস্তান মিলে) চার্টার্ড একাউনটেন্সী পরীক্ষায় তিনিই একমাত্র বাঙ্গালী যিনি প্রথম স্থান অধিকার করার এক বিরল কৃতিত্বের অধিকারী।

রাজনীতিতে জনাব কামালের হাতেখড়ি ছাত্র জীবন থেকেই। কলেজ জীবনের পুরোসময়ই তিনি ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান এবং ৭০’র ঐতিহাসিক নির্বাচনের সময় তিনি তাঁর এলাকায় আওয়ামীলীগের একজন বিশিষ্ট সংগঠক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

জনাব কামাল আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে ১৯৯৬ সালে কুমিলা-৯ নির্বাচনী এলাকা থেকে প্রথমবারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ সময়ে তিনি পাবলিক একাউন্টস কমিটির সদস্য, বিনিয়োগ বোর্ডের সদস্য, প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সদস্য, অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য, যাকাত বোর্ডের সদস্য এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৪ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত আছেন। পাশাপাশি ২০০৬ সাল থেকে তিনি কুমিলা জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। জনাব কামাল বর্তমানে আওয়ামীলীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগের ঞবৎস এও তিনি দলের এই পদে আসীন ছিলেন। ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনাব কামাল কুমিলা-১০ নির্বাচনী এলাকা থেকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে দ্বিতীয় বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৯-১৩ এই সময়কালে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন।

জনাব কামাল গত ত্রিশ বছরের উপর ক্রিকেটের সাথে সম্পৃক্ত থেকে এর উন্নয়নে বিভিন্ন দায়িত্বে অংশ নিয়েছেন। তিনি ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৩ সালের অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর সময় বাংলাদেশে ২০১১ এ অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ক্রিকেট সারা বিশ্বে প্রশংসিত হয় এবং বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে এই বাবহঃ’টির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটি (১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১১) আন্তর্জাতিক জধহশরহম এ দ্বিতীয় স্থান অর্জন করার গৌরব লাভ করে।

১লা জুলাই ২০১৪ থেকে তিনি আইসিসি’র নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এর আগে তিনি আইসিসি’র সহ-সভাপতি এবং এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল এর সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

জনাব কামাল দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিলা-১০ আসন থেকে তৃতীয়বারের মতো বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন এবং তিনি জানুয়ারি ২০১৪ হতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পণা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

আরও পড়ুন