কুমিল্লা
শুক্রবার,১৫ নভেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
১ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ | ১৭ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

মফস্বল সাংবাদিকতার অনন্য উদাহরণ হৃদয় দেবনাথ

সাংবাদিক হৃদয় দেবনাথ/ ফাইল ছবি

মফস্বলে সত্যনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় তারুণ সাংবাদিক হৃদয় দেবনাথ বর্তমানে একটি উদাহরণ। একজন সাহসী সাংবাদিক হিসেবে মৌলভীবাজার, কুমিল্লা ও ঢাকার জাতীয় সাংবাদিকসহ সর্বমহলেই তিনি অতি প্রিয় ও পরিচিত একটি মুখ। সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা, দায়িত্ব, সততা ও সংবাদের বস্তুনিষ্ঠতা বিশেষ করে সাহস করে অনেক ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়ের উপর অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তাকে খুব অল্প সময়ে নিয়ে এসেছে এক অনন্য উচ্চতায়।

সাংবাদিকতা জীবনে আজও পর্যন্ত তিনি অন্যায়ের কাছে মাথা নত করেননি। স্বার্থ, প্রলোভন, অর্থ, বিত্ত তাকে দমাতে পারেনি এখনো। নিরপেক্ষ সাংবাদিকতা প্রভাবিত হতে পারে এই ভেবে কোনো রাজনৈতিক দলের সাথে নিজেকে জড়াননি। প্রায় ৮ বছর ধরে মফস্বলে সাংবাদিকতা করছেন হৃদয় দেবনাথ। ৩৬০ আউলিয়ার পুন্য ভূমি সিলেট বিভাগের অন্যতম একটি জেলা মৌলভীবাজারের বিভিন্ন সমস্যা-সম্ভাবনা ও গণমানুষের কথাগুলোকে অবিরাম তুলে ধরে যাচ্ছেন তিনি। এ প্রতিবেদকের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় উঠে এসেছে হৃদয় দেবনাথের সাংবাদিকতা জীবনের নানা ঘটনার কথা। হৃদয় দেবনাথ ছাত্র জীবন থেকেই লেখালেখি এবং নাট্য চর্চায় জড়িত।

২০০৭ সালে থেকে দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি হিসেবে সাংবাদিকতা শুরু করেন। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেল গাজী স্যাটেলাইট টেলিভিশন লিমিটেড-এ (জিটিভি) মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধি হিসেবে নিযুক্ত হন। বর্তমানে তিনি গাজী গ্রুপের স্বনামধন্য অনলাইন নিউজ পোর্টাল সারাবাংলা ডট.নেট এ ও মৌলভীবাজার জেলার দায়িত্ব পালন করছেন। সাংবাদিকতা জীবনের অভিজ্ঞতার আলোকে হৃদয় দেবনাথ বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম শ্রীমঙ্গল উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও সাংবাদিকদের নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি মৌলভীবাজার প্রেসক্লাব এবং মৌলভীবাজার টেলিভিশন জার্নালিস্ট মিডিয়া ইমজা’র একজন সদস্য।

দেশ-বিদেশে অবস্থানরত বন্ধু মহল থেকে অর্থ সংগ্রহ করে একের পর এক অসহায়-এতিম রোগাক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়ান তিনি। বিশেষ করে এ সমস্ত কর্মকান্ডের কারণেও সমাজের অসহায়-দরিদ্র মানুষের কাছে সাংবাদিক হৃদয় দেবনাথ একটি ভরসার নাম। ৮ বছরের চলমান সাংবাদিকতা জীবনে হৃদয় দেবনাথ বিভিন্ন অসহায় মানুষের জীবনযাত্রা নিয়ে অসংখ্য অনুসন্ধানী প্রতিবেদন বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা সহ টেলিভিশনের পর্দায় তুলে ধরেছেন।

মৌলভীবাজার জেলার নিপীড়িত, লাঞ্ছিত মানুষের ন্যায্য অধিকার নিয়ে সচিত্র প্রতিবেদন লিখে সহ¯্র মানুষের চিকিৎসা, বাসস্থান ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছেন। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি অনেক দুঃসাহসি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন। তার অসংখ্য অনুসন্ধানী অপরাধমূলক রিপোর্ট প্রকাশের পর অনেক সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারী বদলি ও সাসপেন্ড হয়েছে। তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে অসংখ্য অনিয়ম ও দুর্নীতির। পুলিশের অনিয়ম দুর্নীতির সংবাদ প্রকাশ করে অনেক মিথ্যে মামলার শিকারও হয়েছেন তিনি। তার লেখা সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশের পর মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন এলাকায় নির্মিত হয়েছে ব্রিজ, কালভার্ট, রাস্তাঘাট ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভবন। সম্প্রতি সীমান্তবর্তী এলাকায় ভারত থেকে অবৈধ পথে আসা মাদকের উপর অনুসন্ধান করতে গিয়ে কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীদের বর্বর হামলারও শিকার হয়েছেন তিনি।

মাথায় মাদক ব্যবসায়ীদের দা’র কোপের সেই ক্ষত নিয়ে এখনো নির্ভয়েই কাজ করে যাচ্ছেন তরুণ এ সাংবাদিক। মাদকের উপর অনুসন্ধানী সংবাদের তথ্য সংগ্রহকালে মাদক ব্যবসায়ীরা যখন বুঝতে পারেন তিনি সাংবাদিক এবং গোপনে তাদের তথ্য সংগ্রহ করছেন ঠিক তখনি প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার উপর হামলা চালায়। হামলার শিকার হয়ে রক্তাক্ত ক্ষত-বিক্ষত অবস্থায় রক্তক্ষরণ হয়ে অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে হামলাকারীরা মৃত ভেবে পালিয়ে যায়। পুলিশ ও এলাকাবাসী তাকে ঘটনাস্থল থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

সন্ত্রাসী কর্তৃক এ হামলার খবরটি দেশের সমস্ত প্রথমসারির পত্রিকা/টেলিভিশন চ্যানেল থেকে শুরু করে বিভিন্ন শীর্ষস্থানীয় অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রচার ও প্রকাশ হয়। দীর্ঘ তিনমাস পর সুস্থ হন তিনি। তার পরও সন্ত্রাসীরা বিভিন্ন মাধ্যমে একের পর এক হুমকি দিতে থাকেন। তবুও নিজের অবস্থান থেকে চুল পরিমান সরে আসেননি সাংবাদিক হৃদয়।

নিজের ওপর নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ২০১৬ সালের প্রথম দিকে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের গ্রেফতার বাণিজ্য, থানায় দালালদের দৌরাত্ম, থানার গেইট নির্মাণের নামে ওসির চাঁদা বাণিজ্য, পুলিশের অবহেলায় আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি। তিনি জানান, আমার লেখা প্রতিবেদনগুলো প্রচার ও প্রকাশের পর প্রতিটা সংবাদ আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে আপলোড দেই। ফলে সংবাদ মাধ্যমে প্রচারিত এসব সংবাদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক থেকে শেয়ারের পর শেয়ার হয়ে দ্রুত ছড়িয়ে পরে এবং ফেসবুকে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এতে করে অনেক পুলিশ অফিসারের চাকরি চলে যায়।

দৈনিক যুগান্তরের সিনিয়র অনুসন্ধানী প্রতিবেদক নেছারুল হক খোকন বলেন, মফস্বলে সাংবাদিকতা আসলেই ঝুঁকিপূর্ণ একটি কাজ। কারণ মফস্বলে পেশী শক্তি এবং প্রভাবশালীদের হাতে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত এবং হয়রানি হওয়ার আশংকা থাকে এ জন্য মফস্বলের অনেক সাংবাদিক অনেক কিছু দেখেও এসব প্রতিবন্ধকতার কারণে এড়িয়ে চলে, লিখতে চান না।

তবে এসব প্রতিবন্ধকতাকে পাস কাটিয়ে ঝুঁকি নিয়ে সাহস করে যারা লিখছেন আমার দৃষ্টিতে তাদের মধ্যে অন্যতম একজন মৌলভীবাজারের সাংবাদিক হৃদয় দেবনাথ। ঝুঁকি নিয়ে সে দুঃসাহসী অনেক রিপোর্ট করেছে এবং এখনো করে যাচ্ছে। আমার দৃষ্টিতে মফস্বল সাংবাদিকতায় বর্তমান সময়ে তরুণ সাংবাদিক হৃদয় দেবনাথ একটা অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত মফস্বলে থেকে ঝুঁকি নিয়ে এ সমস্ত সাহসী রিপোর্ট করাটা বেশ কঠিন। আমার বিশ্বাস হৃদয় দেবনাথ একসময় জাতীয় পর্যায়ে একটা জায়গা করে নিবে ।

আরও পড়ুন