কুমিল্লা
শনিবার,২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৬ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

শিক্ষা প্রতিষ্ঠাণগুলোতে অতিরিক্ত ফি আর কতদিন চলবে?

নতুন বছরের প্রথম দিন নতুন বই হাতে পেয়ে আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে যায় ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। বই উৎসব চলে দেশের সকল স্কুল,মাদ্রাসা ও কিন্ডারগার্টেন গুলোতে। এতে একযোগে সকল শিক্ষার্থীরা বই হাতে পায়। কিন্ত নতুন বই পাওয়ার এই আনন্দ ম্লান হয়ে যায়, যখন ভর্তি ফি’র নামে গলা কাটা ফি আদায়ের জন্য অভিভাবকদের উপর খড়ক চালানো হয়।

প্রতি ইংরেজী বছরের শুরুতে জানুয়ারি মাসে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠাণগুলোতে শুরু হয় ভর্তি নামে অতিরিক্ত ফি আদায়ের দৌরাত্ম; যা নিয়মতান্ত্রিক ডাকাতির শামিল। ডাকাতরা অস্ত্র ঠেকিয়ে অথবা অস্ত্র দ্বারা জিম্মি করে টাকা পয়সা নিয়ে যায় আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিরা কলম ঠেকিয়ে টাকা পয়সা নিয়ে যায়; মানবাধিকার দৃষ্টিতে উভয়ই লুট-পাটের আওতায় পড়ে- তবে একটি পন্থা সরাসরি অবৈধ, রাষ্ট্রের ও সমাজের নিকট আইনত দন্ডনীয় অপরাধ; অপর পন্থাটি নিয়মতান্ত্রিক বৈধ- তাই; বলে মাত্রাতিরিক্ত আদায় করা কতটুকু বৈধ?

প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশাপাশি সরকারী সুবিধাভোগী প্রতিষ্ঠাণগুলোও সমান তালে ভর্তি ফি আদায়ের খড়গ চালিয়ে যাচ্ছে। প্রাইভেট প্রতিষ্ঠাণগুলো যেহেতু নিজের অর্থায়নে পরিচালিত হয়; সেহেতু তারা ভর্তি নিতে পারে; তাই বলে একেবারে ডাকাতের মতো নিবে তা সমীচিন নয়। অপর দিকে যেসব প্রতিষ্ঠাণ সরকারী সুবিধাভোগী (এমপিও ভুক্ত ও সরকারী) তাদের যাবতীয় চাহিদা সরকার মিটিয়ে থাকে। স্কুল ভবন, মাসিক বেতন-ভাতাসহ বিভিন্ন সুবিধা প্রদান করে থাকে। সে সকল প্রতিষ্ঠাণ গুলোতে ভর্তি ফি এবং পুর্ণ ভর্তি ফি কম নিলে তো হয়। সরকার শিক্ষার হার বৃদ্ধির লক্ষ্যে এবং সাধারণ মানুষ যেন সহজে তাদের ছেলে-মেয়েদেরকে স্কুলগামী করতে পারে সে জন্য বিনামূল্য পাঠ্যবই বিতরণ করতে শুরু করেছে; মেয়েদেরকে শিক্ষা গ্রহনে উৎসাহি হওয়ার জন্য উপবৃত্তির ব্যবস্থা চালু করেছে।

তাছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, এনজিও, ফাউন্ডেশ, এসোসিয়েশন বিভিন্ন বৃত্তির ব্যবস্থা চালুর করে শিক্ষার হার বৃদ্ধির কার্যক্রমকে অগ্রবর্তী করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সরকারসহ সকলেরই একটি চাওয়া কোন শিশু যেন শিক্ষা বঞ্চিত না থাকে। বিশেষ করে প্রাথমিক শিক্ষাকে বাধ্যতামুলক করে তা বাস্থবায়নের জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উপবৃত্তির ব্যবস্থা করা হয়েছে; যেন কোন গরিব মানুষ তার সন্তানকে টাকার অভাবে পড়া-লেখা বন্ধ করে কাজে লাগিয়ে না দেয়। তারপরেও শিশু শ্রম বন্ধ হচ্ছে না। তার জন্য দায়ি কারা? অল্প বয়সে স্কুল থেকে ঝড়ে যাওয়ার জন্য অধিকাংশ ক্ষেত্রে দায়ী বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ,পরিচালনা কমিটি এবং অসচেতন অভিভাবক ও এক শ্রেনির অসাধূ ব্যবসায়ী।

কিভাবে তারা দায়ী- প্রাথমিক বিদ্যালয়ঃ বছরের প্রথমে সরকার বিনামূল্য বই বিতরণ করে। কিন্তু স্কুলের প্রধান শিক্ষকরা ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট থেকে ভর্তি ফির খড়গ চালিয়ে দেয়। এর পর শুরু হয়-মডেল টেস্ট ফি, মডেল টেস্ট গাইড ক্রয়, সিলেবাস ক্রয়, সাজেশন ক্রয়, বিভিন্ন গাইড ক্রয় করার জন্য চাপ প্রয়োগ। তারা বিভিন্ন প্রকাশনীর সাথে চুক্তিবন্ধ হয়ে মোটা অংকের ডোনেশন নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বিভিন্ন গাইড ও নোট বই ক্রয় করতে উৎসাহিত এবং বাধ্য করে। তাছাড়া উপবৃত্তির টাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নানাহ অজুহাতে কেটে নেয়।

কিন্ডারগার্টেন: কির্ন্ডারগানের্টগুলো স্থান ভেদে বিভিন্ন স্তরের ভর্তি ফি আদায় করে। অবশ্য এই প্রতিষ্ঠাণগুলো নিজেদের অর্থায়নে পরিচালিত হয় এবং ধনী পরিবারের লোকেরা তাদের বাচ্চাদেরকে এসব প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করায়। তারা জেনে-শুনেই ভর্তি করায়। তবু একটি নিয়ম-নীতির মধ্যে কিন্ডারগার্টেন পরিচালনা করার ব্যবস্থা করা উচিত। নিজেদের অর্থায়নে পরিচালিত হয় বলে আকাশ চুম্বি ভর্তি ফি ও অন্যান্য ফি আদায় করবে-আমাদের দেশে তা কতটুকু যুক্তিযুক্ত।

মাধ্যমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়: ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত মাধ্যমিক ও উচ্চ বিদ্যালয় গুলোতে ছাত্র-ছাত্রীদের কাছ থেকে ভর্তি ফি এবং পুনঃ ভর্তি ফি আদায় করা হয়। এই পূর্ণ ভর্তি ফি কেন আদায় করা হয়, তার সঠিক জবাব অবশ্য প্রতিষ্ঠান গুলোর ব্যবস্থাপনা কমিটি, ম্যানেজিং কমিটি, গভনিং কমিটির সভাপতি ও প্রতিষ্ঠান প্রধানরা দিতে অক্ষম। তা ছাড়া রয়েছে মাসিক বেতন ও পরিক্ষার ফি। হ্যাঁ মাসিক বেতন ও পরীক্ষার ফি নেওয়া আবশ্যক তবে তার একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ থাকা দরকার। প্রত্যেকটি বিদ্যালয় তাদের ইচ্ছা মতো বেতন ও পরীক্ষার ফি ধার্য করে বসল- এবার অভিভাকের দেওয়ার সামর্থ থাক বা না থাক; যে মুল্যে দিতে হবে-অন্যথায় ছাত্র-ছাত্রীদের কে বিভিন্ন ভাবে হয়রানীর শিকার হতে হয় এবং শিক্ষকদের অবাঞ্চিত কথাও শুনতে হয়।

পরীক্ষার সময় প্রবেশপত্র না থাকলে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে দেওয়া হয় না। আবার এই প্রবেশপত্র আনতে গুনতে হয় মোটা অংকের টাকা। এতে সরকারে গৃহিত বিভিন্ন কর্মসূচি কতটুকু বাস্থবায়িত হবে। সরকারে চায় শিক্ষার হার বৃদ্ধি হোক আর এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিদের বিভিন্ন ফি পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে অনেকই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে অল্প সময়ে ঝড়ে পড়ে বিভিন্ন কাজ কর্মে লেগে যায়। এখন এদেশে হাজার হাজার পরিবার রয়েছে-যাদের দু’বেলা খাবার জোগাড় করাই কঠিন হয়ে যায়। তারা কিভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলোর বিভিন্ন ফি পরিশোধ করবে।

বিভিন্ন ফি ছাড়াও রয়েছে ওই সব প্রতিষ্ঠান গুলোর বই বাণিজ্য। যা কেউ উপলব্ধি করতে পারে না। তারা বিভিন্ন প্রকাশনীর সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে বিভিন্ন গাইড বই, ইংরেজী ও বাংলা ২য় পত্র বই উচ্চ মূল্যে ক্রয় করতে বাধ্য করে। অপর দিকে প্রকাশনীর কাছ থেকে মোটা অংকের কমিশন গ্রহন করে।

মেয়েদের জন্য সরকার উপবৃত্তির প্রথা চালু করলেও কতজন সঠিক ভাবে এই সেবা পাচ্ছে। সেখানেও চলে নিয়মিত হয়রানি।

এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ললাটে দুঃখ-কষ্টের অন্ত থাকে না। তাদের হয়রানী শুরু হয় নির্বাচনী পরিক্ষার পর থেকে। নির্বাচনী পরীক্ষায় যত বিষয় ফেল করবে তত বিষয়ের জন্য অতিরিক্ত ফি আদায়, কোচিং ফি আদায়, বোর্ডে নির্ধারীত ফি তো আছেই, তার উপর বাড়তি ফি আদায়- এটা ৩ হাজার ৪ হাজার ১০ হাজার পর্যন্ত হয়ে থাকে। তার পর প্রবেশপত্র গ্রহনকালে আবার ফি দিতে হয়- ৫ শত টাকা থেকে হাজার টাকা পর্যন্ত। সর্বশেষ ধাপ হলো কেন্দ্র ফি প্রদান। বোর্ডের নির্ধারিত ফি প্রদানের পর এতো ফি আদায় করে সে টাকা কি করে- কারা পায় এই টাকার ভাগ, কোথায় যায় এট টাকা গুলো; তার খোঁজ কেউ রাখে কি?

সরকারের উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন: এভাবে প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করে উচ্চ শিক্ষার বিভিন্ন ধাপ পর্যন্ত প্রত্যেকটি শিক্ষার্থীর অভিভাবকদের কাছ থেকে কত রকমের ফি যে আদায় করা হয়- তার কয়টিই বা সরকারি দপ্তরের নজরে আসে। প্রত্যেকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আয় সরকারের নজরে আনা প্রয়োজন এবং তার সঠিক তদারকি করাও প্রয়োজন। সরকার যেহেতু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণ, শিক্ষকদের বেতন-ভাতা প্রদান করেন, শিক্ষা উপকরণ প্রদান করেন, শিক্ষকদেরকে যোগ্য হিসেবে গড়ে তোলার জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদান করেন- তাই সরকারি সুবিধাভোগী প্রতিষ্ঠাণগুলোর যাবতীয় আয় সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়া আবশ্যক।

সরকারকেও এই ধরনের একটি উদ্যোগ গ্রহন করা দরকার-সরকারি সুবিধাভোগী প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক আয়ের একটি অংশ সরকারি কোষাগারে জমা প্রদানের নিয়ম চালু করা। শ্রেণি ভিত্তিক ভর্তি ফি, পরীক্ষার ফি, মাসিক বেতন নির্ধারণ করে দেওয়া যাতে কোন প্রতিষ্ঠান তাদের ইচ্ছা মতো বিভিন্ন ফি’র নামে অতিরিক্ত ফি আদায় করতে না পারে। অভিভাবকদের স্বার্থে এবং শিক্ষার হার শতভাগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে একটি নীতিমাল প্রয়োজন – যেন প্রত্যেকটি শিশু শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত না হয়।

লেখক:  সাধারণ সম্পাদক, বুড়িচং প্রেস ক্লাব, কুমিল্লা।
E-mail: kazi.khurshed77@gmail.com

আরও পড়ুন