কুমিল্লা
বুধবার,২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১১ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ১১ রজব, ১৪৪২

চৌদ্দগ্রামে যুবলীগ নেতা জামাল হত্যাকাণ্ডের পরও বিপাকে স্বজনরা!

নিহত যুবলীগ নেতা জামাল উদ্দিন / ফাইল ছবি

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে দলীয় কোন্দল ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করেই খুন হওয়া আলকরা ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি জামাল উদ্দিনের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী ছিল আজ মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি)। ২০১৬ সালের ৮ জানুয়ারি রাতে মহাসড়কের পদুয়া রাস্তার মাথায় তাকে গুলি চালিয়ে এবং কুপিয়ে হত্যা করা হয়। হত্যামামলার আসামীদের হুমকি-ধমকির কারণে নিজ বাড়িতে কোন অনুষ্ঠান করতে পারেনি। এ কারনে ফেনীর দাগনভুঁইয়া উপজেলার বেকের বাজার এলাকায় জামালের ভাই দেলোয়ার হোসেন মেম্বার ও গুণবতী ইউনিয়নের চাপালিয়াপাড়ায় বোন মোসাঃ জোহরা আখতারের শ্বশুড় বাড়িতে মিলাদ মাহফিল-এতিমদের খাওয়ানোর মাধ্যমে মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়েছে।

তথ্যটি নিশ্চিত ও অভিযোগ করেছেন সৌদিআরবে অবস্থানরত বর্তমান ইউপি মেম্বার, জামালের ছোট ভাই দেলোয়ার হোসেন। তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি জামাল হোসেনের পক্ষে একটি মামলার স্বাক্ষী শাকিলকে হত্যার পর আতঙ্ক বেড়ে গেছে।

এলাকাবাসী ও নিহত জামালের পরিবার সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার আলকরা ইউনিয়নের কুলাসার গ্রামের মৃত আলী আহমদের পুত্র জামাল উদ্দিন ছাত্রজীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল। এ সুবাধে দীর্ঘদিন ছাত্রলীগের এবং পরে যুবলীগের আলকরা ইউনিয়ন সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এক পর্যায়ে তার সাথে পরিচয় ঘটে পাশের বাড়ির ইসমাইল হোসেন বাচ্চুর। যিনি বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন ফেডারেশনের ঢাকা মহানগর কমিটির নেতা। দু’জনের সখ্যতা থাকায় বাচ্চু তার আপন ভাতিজী শামীম আরা নিপাকে জামালের সাথে বিয়েও দেন।

পরবর্তীতে জামাল উদ্দিনের প্রচেষ্টায় বাচ্চুকে আলকরা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত করা হয়। নির্বাচনে জামালের ছোট ভাই দেলোয়ার হোসেনও মেম্বার নির্বাচিত হন। বছর খানেক পর চেয়ারম্যান বাচ্চুকে অনিয়ম ও অপরাধমুলক কর্মকান্ড থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করলে জামালের সাথে বিরোধ সৃষ্টি হয়। অব্যাহত অনিয়মের কারনে জামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে ইউপির ১২ জন মেম্বারের মধ্যে ৯ জন চেয়ারম্যান বাচ্চুর বিরুদ্ধে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয়ে অনাস্থা প্রস্তাব দেন। এর কয়েকদিন পর খুন হন চেয়ারম্যানের সমর্থক মেম্বার নুরুল আলম। এ ঘটনায় সাবেক চেয়ারম্যান বাচ্চু বাদি হয়ে যুবলীগ নেতা জামাল ও ইউপির ৪ মেম্বারসহ ১৬ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা করেন।

এ মামলায় স্থানীয় আ’লীগের প্রভাবশালী নেতা আকবর হোসেন শিশির, যুবলীগ নেতা জামাল, ইউপি মেম্বার বেলাল হোসেনসহ ১৪ জন কয়েক মাস জেলও খেটেছেন। তবে জেলেই মারা যান ইউপি মেম্বার বেলাল হোসেন। এসব ঘটনায় সাবেক চেয়ারম্যান বাচ্চুর বিরুদ্ধে ইউনিয়ন আ’লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের বড় একটি অংশসহ সাধারণ মানুষ ক্ষীপ্ত হয়ে উঠেন। এরই মাঝে জামাল একই ইউপির চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম ফারুক হেলালের পক্ষে অবস্থান নেয়। এতে সাবেক চেয়ারম্যান বাচ্চু যুবলীগ নেতা জামালের উপর আরও ক্ষীপ্ত হয়ে উঠেন। মাঝে মধ্যে উভয় গ্রুপের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটতো। সাধারণ জনগণের সময় কাটতো আতঙ্কে। সর্বশেষ ২০১৬ সালের ৮ জানুয়ারী শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে যুবলীগ নেতা জামাল উদ্দিন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পদুয়া রাস্তার মাথায় পৌঁছলে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা চেয়ারম্যান বাচ্চু ও তার সমর্থক কর্মী বাহিনী তাকে গুলি চালিয়ে এবং কুপিয়ে হত্যা করে বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

এঘটনায় নিহত জামালের বড় বোন জোহরা আক্তার বাদি হয়ে দায়েরকৃত হত্যা মামলায় চেয়ারম্যান ইসমাইল হোসেন বাচ্চু, ইউনিয়ন আ’লীগের সহ-সম্পাদক মোশারফ হোসেন, যুবলীগের সভাপতি মফিজুর রহমান, সহ-সভাপতি রিয়াজ, সেক্রেটারী বাবলু, যুগ্ম সম্পাদক সালাউদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা আলী হোসেন, শুভ, চেয়ারম্যান বাচ্চুর দেহরক্ষী আমিরসহ ২৮ জনকে আসামী করা হয়। মামলার অপর আসামীরা হলেন ; যুবলীগ নেতা কফিল উদ্দিন, রহমান, আলম, আমির, নুরুন নবী, আ’লীগ নেতা ইউসুফ হারুন মামুন, জিয়াউদ্দিন শিমুল, ইকবাল, শিমুল, আনোয়ার হোসেন সোহেল, সাইফুল্যাহ, মাহফুজ, আলাউদ্দিনসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৭ জন।

এ ব্যাপারে উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমানে আলকরা ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক হেলাল বলেন, ‘হত্যামামলার আসামীদের হুমকির কারণে যুবলীগ নেতা জামাল উদ্দিনের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী নিজ বাড়িতে পালন করতে পারেনি। আত্মীয়ের বাড়িতে মিলাদ মাহফিল ও এতিমদের খাওয়ানোর কথা শুনেছি’।

আরও পড়ুন