কুমিল্লা
শনিবার,৬ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২১ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ২১ রজব, ১৪৪২

১২ ওভারেই তামিমের কুমিল্লাকে হারিয়ে জিতলো মাশরাফির রংপুর

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্সের এবারের বিপিএল শুরু হয়েছে চিটাগং ভাইকিংসের কাছে হার দিয়ে। তবে ঘুরে দাঁড়িয়ে পরের দুটি ম্যাচই রংপুর জিতে নিল দাপট দেখিয়ে।

দ্বিতীয় মাচে খুলনা টাইটান্সের বিপক্ষে রানের জয়ের পর আজ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে স্রেফ উড়িয়ে দিয়েছে। জিতেছে ৯ উইকেটে।

কুমিল্লার করা মাত্র ৬৩ রান মাশরাফির রংপুর ১ উইকেট হারিয়ে পেরিয়ে গেছে মাত্র ১২ ওভারেই (৬৭/১)। রংপুরের এই অনায়াস জয়টি এমপি মাশরাফির দাপটের ফসল।

কুমিল্লাও তারকাখচিত দল। ম্যাচ শুরুর আগে মনে হচ্ছিল, ধ্রুপদী এক ক্রিকেট লড়াই-ই বুঝি অপেক্ষা করছে। কিন্তু হাই-ভোল্ডেজ ম্যাচটিতে শুরুতেই পানি ঢেলে দেন মাশরাফি। এমপি মাশরাফির তোপের মুখে রংপুর মূলত ম্যাচটা জিতে যায় প্রথম ৭ ওভারের মধ্যেই! না, এতটুকুও বাড়িয়ে বলা হয়নি। মাশরাফির বিধ্বংসী বোলিংয়ের মুখে কুমিল্লা যে মাত্র ১৮ রানের মধ্যেই হারিয়ে ফেলে ৫ উইকেট।

কুমিল্লার প্রথম তিনটিসহ প্রথম ৫ উইকেটের ৪টিই তুলে নিয়েছেন মাশরাফি। আউট করেছেন কুমিল্লার শীর্ষ ৪ ব্যাটসম্যানকেই। মানে কুমিল্লার ব্যাটিং পজিশনের ১ থেকে ৪-এই ৪ ব্যাটসম্যানই মাশরাফির শিকার। তিনি একে একে ফিরিয়ে দেন তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, এভিন লুইসকে। এরপর পাঁচ নম্বরে নামা পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান শোয়েব মালিককে বিদায় করেন শফিউল। ওপ্রান্তে বোলিংয়ে এসে মাশরাফি আবার ফিরিয়ে দেন কুমিল্লার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথকে। প্রতিপক্ষ অধিনায়ককে মাশরাফি উপহার দেন ‘ডাক’।

অগ্নি-ঝরা বোলিংয়ে প্রথম স্পেলেই নিজের ৪ ওভারের বোলিং কোটা শেষ করেন মাশরাফি। ওভারে মাত্র ১১ রান দিয়ে নিয়েছেন ৪ উইকেট। তিনি আরও দু-এক ওভার বোলিং পেলে কি যে হতো!

১৮ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর কুমিল্লার আসলে কিছুই করার ছিল না। কুমিল্লা কিছু করতেও পারেনি। পাকিস্তানের সাবেক অলরাউন্ডার শহীদ আফ্রিদি একটু ঝলকানি দেখানোয় ১৬.২ ওভারে ৬৩ পর্যন্ত যেতে পেরেছে কুমিল্লা। ১ ছক্কা ও ৩ চারে আফ্রিদি ১৮ বলে করেন ২৫ রান। কুমিল্লার ইনিংসে দুই অঙ্ক ছুঁয়েছেন একমাত্র তিনিই!

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৮ রান করেছেন ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান এভিন লুইস। এছাড়া তামিম ৪, ইমরুল ২, স্মিথ ০, মালিক ০, এনামুল ২, সাইফুদ্দিন ৭, মেহেদী হাসান ৬, আবু হায়দার রনি ৫ ও মোহাম্মদ শরীফ ০ রানে অপরাজিত থাকেন। রংপুরের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নিয়েছেন নাজমুল ইসলাম। এছাড়া শফিউল ২টি ও ফরহাদ রেজা।

৬৪ রানের মামলি জয় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৪ রানেই ক্রিস গেইলকে হারায় রংপুর। এবারের বিপিএলে আজই প্রথম খেলতে নামেন গেইল। কিন্তু ক্যারিবীয় দানব ৫ বলে মাত্র ১ রান করেই আবু হায়দার রনির শিকার। তাতে অবশ্য রংপুরের তেমন কিছু ক্ষতি হয়নি। মেহেদী মারুফ ও দক্ষিণ আফ্রিকার রাইলি রোসো জুটি বেঁধে দলকে ১২ ওভারেই পৌঁছে দিয়েছেন জয়ের বন্দরে। মেহেদী মারুফ ৩৯ বলে অপরাজিত ৩৬ ও রাইলি রোসো ২৮ বলে করেছেন অপরাজিত ২০ রান। ম্যাচসেরার পুরস্কারটি যে এমপি মাশরাফির পকেটে, সেটি না বললেও চলে।

আরও পড়ুন