কুমিল্লা
সোমবার,২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৩ ফাল্গুন, ১৪৩০ | ১৫ শাবান, ১৪৪৫
শিরোনাম:
অভি’কে সিইও হিসেবে অনুমোদন দিলো আইডিআরএ কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন

নোয়াখালীতে ধর্ষণের ঘটনায় কুমিল্লায় আরও একজন গ্রেফতার

আটক হেঞ্জু মাঝি/ ছবি: নতুন কুমিল্লা

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ভোটের রাতে ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান আসামিদের একজন হেঞ্জু মাঝিকে (১৯) গ্রেফতার করা হয়ছে। কুমিল্লার দাউদকান্দি থেকে তাকে গ্রেফতার করে নোয়াখালী গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। এ নিয়ে মোট ১১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার (১১ জানুয়ারি) ভোরে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল কুমিল্লার দাউদকান্দি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

নোয়াখালী ডিবি পুলিশের ওসি আবুল খায়ের নতুন কুমিল্লাকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন।

চাঞ্চল্যকর এই মামলায় পুলিশের তদন্ত, ভুক্তভোগী ও গ্রেফতারকৃতদের জবানবন্দিতে হেঞ্জু মাঝির নাম উঠে আসে। ঘটনার পর তিনি এলাকা ছেড়ে পালিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে বাসে চালকের সহকারী হিসেবে কাজে যোগ দেন। তার অবস্থান নিশ্চিত হয়ে শুক্রবার ভোরে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ওসি আবুল খায়ের জানান, জিজ্ঞাসাবাদ শেষে হেঞ্জুকে আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদন করা হবে।

গত ৩০ ডিসেম্বরে ভোটের রাতে সুবর্ণচরে একটি বাড়িতে হানা দিয়ে চার সন্তানের জননী এক নারীকে দল বেঁধে ধর্ষণ করা হয়। ভুক্তভোগীর স্বামী অভিযোগ করেন, ধানের শীষে ভোট দেওয়ায় এই ঘটনা ঘটানো হয়। পরে তিনি নয় জনকে আসামি করে মামলা করেন।

ঘটনাটি তোলপাড় তোলার পর সরকারের পক্ষ থেকে দৃষ্টান্তমূলক বিচারের আশ্বাস দেওয়া হয়। এরই মধ্যে এজাহারভুক্ত আসামি এবং এজাহারের বাইরে থাকা স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে রিমান্ডে নিয়ে।

এই ঘটনায় নাম আসার পর রুহুল আমিন নামে ওই নেতাকে দল থেকে বহিষ্কারও করে ক্ষমতাসীন দল। আর আদালতে এরই মধ্যে একাধিক আসামি ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে ঘটনায় নিজেদের সম্পৃক্ততা স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুন