কুমিল্লা
শনিবার,৬ মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২১ ফাল্গুন, ১৪২৭ | ২১ রজব, ১৪৪২

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে রংপুরকে হারিয়ে জিতলো রাজশাহী

জয়ের জন্য শেষ ওভারে দরকার ৯ রান। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে যা নিতান্তই মামুলি। তবে বিপক্ষ দলের বোলার যখন মুস্তাফিজুর তখন ম্যাচ জয় নিয়ে আপনাকে ভাবতে হবেই। তাহলে সে চিন্তা করেই কি টানা ৪টি বল ব্যাটে লাগাতে পারল না রংপুরের ফরহাদ রেজা? হবে হয়তো। তবে ওই চারটি বলেই যে ম্যাচের গতিপথ নির্ধারণ করে দিয়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে। ৬ বলে মাত্র ৯ রান দরকার হলেও মুস্তাফিজ দিয়েছেন মোটে ৩টি রান। রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে তাই ৬ রানের জয় পেল রাজশাহী কিংস।

রাজশাহী কিংসের দেয়া ১৩৬ রানের লক্ষ্য যে শেষ পর্যন্ত ছোঁয়া দুঃসাধ্য হয়ে যাবে তা হয়তো ঘুণাক্ষরেও টের পায়নি মাশরাফীর রংপুর। তাইতো মেহেদী মিরাজের পর তিনিও লোয়ার-অর্ডার ব্যাটসম্যান হয়ে প্যাড-গ্ল্যাভস পড়ে ক্যারিবীয় দানব ক্রিস গেইলের সঙ্গে রংপুরের হয়ে ওপেন করে নেমে গেলেন। পরিণতিও হলো মিরাজের মতো। মিরাজ তিনি ফিরিয়েছিলেন প্রথম বলেই শূন্য হাতে। এদিকে মাশরাফী ০ করে ফিরলেন কামরুল ইসলাম রাব্বির বলে উইকেটের পেছনে থাকা জাকির হাসানের হাতে ক্যাচ দিয়ে।

বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান গেইলও ব্যর্থ নিজের নামের উপর সুবিচার করতে। ২ চার, ২ ছয়ে দারুণ শুরু করলেও ২৩ রান কামরুল ইসলাম রাব্বির দ্বিতীয় শিকার বনে ফিরে যান তিনি। ওপেনাররা সুবিধা করতে না পারলেও, গত ম্যাচের মতো আজও রংপুরের হয়ে ত্রাতা হয়ে ওঠেন মিথুন ও রাইলি রুশো। তাদের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে জয়ের পথেই ছিল রংপুর। ৩০ করে হাফিজের বলে লরি ইভান্সের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন মিথুন। এরপর, নির্ভরযোগ্য রবি বোপারা ও বেনি হাওয়েল দ্রুত বিদায় নিলে চাপে পড়ে রংপুরও। চাপের মধ্যেও জয়ের জন্য লড়ে যাচ্ছিল রুশো, যা কি-না শেষের ওভারে ফরহাদ রেজার হতাশাজনক ব্যাটিংয়ে বিফলে যায়।

এর আগে, টসে জিতে বোলিং নিয়ে রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে দারুণ বোলিং করে রংপুর রাইডার্সের বোলাররা। রাজশাহীকে মাত্র ১৩৫ রান আটকে দেয় তারা।

বল হাতে এবারের আসরে দ্যুতি ছড়ানো রংপুর অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা আজও ছিলেন অনবদ্য। নিজের করা প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই বিপক্ষ দলের অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজকে ‘সোনার হাঁস’ পাইয়ে বিদায় করেন তিনি। তবে শুধু মাশরাফীই নয়, বল হাতে বাকি বোলাররাও দিয়েছেন নিজেদের সেরাটা।

মিরাজ ফিরে যাওয়ার পর ইনিংস বড় করতে পারেননি আরেক ওপেনার মুমিনুল হক। আজও ব্যর্থ মুমিনুল ফিরে যান ১৪ রান করে। যা করতে তার খেলতে হয়েছে ১৬ বল। বাজে ফরমে থাকা সৌম্য সরকার এদিন অবশ্য বড় কিছুর ইঙ্গিত দিয়ে ইনিংস শুরু করে। তবে ২ চার আর ১ ছয়ের মারে ১৮ রান করে মাশরাফীর দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন তিনি।

খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসতে পাড়ছেন না পাকিস্তানের মোহাম্মদ হাফিজও। ধীর গতির ব্যাটিংয়ে ২৯ বলে ২৬ রান করে রবি বোপারার দারুণ থ্রোতে রানআউটের ফাঁদে পড়েন তিনি। রাজশাহীর ১৩০ পেরনোতে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখেন কিংসের উইকেটরক্ষক জাকির হাসান। ৩৬ বলে তার ৪২ রানের সুবাদেই ১৩৫ ছুঁতে পারে তারা।

আরও পড়ুন