কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১০ সফর, ১৪৪২

টিকেটকেটেও বাড়ি ফেরা হলোনা কুয়েত প্রবাসী কুমিল্লার নুরুল আমিনের

নিহত নুরুল আমিন / ছবি: নতুন কুমিল্লা

মানুষের মৃত্যু সত্যি হলেও তা কবে কখন কোথায় হবে তা এক মুহুর্ত পূর্বেও কেউ জানে না। তবে এমন করুন মৃত্যু মেনে নেয়া খুবই কষ্টের।

মোঃ নুরুল আমিন দেশের বাড়ি কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার কনেশতলার যশপুর গ্রামে। দেশের সূর্য সন্তান রেমিটেন্স যোদ্ধা নুরুল আমিন (৪৮) থাকতেন কুয়েতে।

মানসিক ভাবে অসুস্থতার কারণে দেশে যাবেন তিনি। ১১ জানুয়ারি দেশে যাওয়ার কথা ছিলো তার। তবে ওই যে ত্যাগ! পরিবার পরিজনের সুখ আর সমৃদ্ধ আনতে নিজের সুখ ইচ্ছা বিসর্জন দেয়া প্রবাসী বলে কথা।

বিমানের টিকেটের মূল্য বেশি ছিল সেদিন একদিন পরে হলে আরো ৪০- ৫০ দিনার কমে পাওয়া যায়। তাই একদিন পরের টিকিট মানে ১২ তারিখের টিকিট কিনেছিলেন তিনি।

পরিবারের সবার পছন্দের জীনিসও কেনা কাটা করে লাগেজ গুছিয়ে রেখেছেন। পরদিন সকালেই ফিরবেন আপন নীড়ে মায়ের কোল জন্মভুমি বাংলাদেশে।

মনে অনেক আনন্দ, বহুদিন পর দেশে যাবে আনন্দ তো হবেই। হায়রে হতভাগা প্রবাসী সুখ কেবল কল্পনায় তা আর দেখে যাওয়ার সৌভাগ্য হলো না।

ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস। শেষ দেখা যে হবে না আপনজনদের তা হয়তো বিধাতা আগেই লিখে রেখেছিলেন যা জানা ছিলো না নুরুল আমিন ও পরিবার সহ কারোই।

বাড়িতে তো যাবে সে তবে তার প্রানহীন দেহটা কেবল যাবে। পরিবার নিয়ে সুখের একটি দিনও তার ভাগ্যে লেখা ছিলোনা হয়তো।

১১ তারিখ ভোর আনুমানিক ৪টায় (কুয়েত সময়) ফজর নামাজের জন্য মসজিদে যাওয়ার পথে হঠাৎই ব্রেইন স্ট্রোক করে নুরুল আমিন। সহকর্মীরা হাসপাতালে নিয়েছে তবে ততক্ষণে ভবলীলা সাঙ্গ করে পরপারে পৌঁছে গেছে জীবন পাখি।

একদিনের ব্যাবধানে কোটি কোটি মাইল দূরের দুরের দেশে চলে গেলো যেখান থেকে আর কেউ কোন দিন আসবেনা ফিরে। তার লাশটি বর্তমানে কুয়েতের একটি হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। সহকর্মীরা লাশ দেশে পাঠানোর ব্যাবস্থা করছেন বলে জানা গেছে।

আরও পড়ুন