কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৪ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১১ সফর, ১৪৪২

এখনো পর্যটক শূন্য কুমিল্লার বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে

নির্বাচনের প্রভাবে পর্যটক শূন্য হয়ে পড়েছে কুমিল্লা। ইংরেজি নববর্ষ উপলক্ষে প্রতিবছরই ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকে হাজার হাজার পর্যটকের সমাবেশ ঘটত কুমিল্লার বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। এই সময়ে কর্মজীবীরা ছুটি পান, শীতকালীন অবকাশের জন্য স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকে বলে পর্যটকের আগমন সবচেয়ে বেশি ঘটে। কিন্তু এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রভাবে এখন থেকেই পর্যটক আগমনে ভাটা দেখা দিয়েছে।

কুমিল্লায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কড়াকড়ির কারণে কুমিল্লার পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ শালবন বিহার ও নগরীর ধর্মসাগরপাড় এবং শালবন বিহারের পাশেই লালমাই পাহাড়সহ এখন কুমিল্লার সব কয়টি বিনোদন কেন্দ্রগুলো এখন প্রায় নিষ্প্রাণ। অথচ প্রতিবছর এই সময়ে কুমিল্লায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রাচীন নিদর্শনগুলো দেখতে হাজার হাজার পর্যটক ভিড় করতো। কুমিল্লার একাধিক হোটেল মালিকের সাথে কথা বলে জানা যায়, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই ক্রমশ কমে আসতে থাকে পর্যটকদের চাপ।

সরেজমিন কুমিল্লার শালবন বিহার, রুপবান মুড়া এবং বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (বার্ড) ঘুরে দেখা গেছে, বিনোদন পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে আগের মত তেমন লোকের সমাগম নেই। সবখানে নিরবতা মনে হচ্ছে। সন্ধ্যার পর শহরের রাস্তঘাটগুলোও ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে।

ঢাকার উত্তরা থেকে স্বস্ত্রীক তৈমুর খন্দকার আসেন কুমিল্লার শালবন বিহারে তিনি নতুন কুমিল্লাকে বলেন, নির্বাচনকালীন শঙ্কার কথা তার কাছ থেকেও শোনা যায়। নির্বাচন শেষ হলেও এখনও ভয়ে আছি। কিছুদিন পর দেশের পরিবেশ কী হয় বলা যায় না। তাই আগে ভাগেই চলে এলাম।

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমী (বার্ড) এর কর্মকর্তা আতাউর রহমান খান নতুন কুমিল্লাকে জানান, প্রতিবছর থার্টিফাস্ট নাইট উপলক্ষে শহরের সবখানেই লোকে লোকারণ্য থাকতো। নির্বাচনের কারণে গত ৪-৫ দিন ধরে কুমিল্লায় কোন পর্যটক নেই বললেই চলে। তার উপর শনিবার রাত থেকে নির্বাচনের জন্য যান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করায় কুমিল্লায় এখন পর্যটক শূন্য হয়ে পড়েছে। ইংরেজি বছরের শেষ দিন এবং নতুন বছরের প্রথম কয়েক দিন কুমিল্লা পর্যটকশূন্য দেখা গেলেও নির্বাচন পরবর্তী সংসদ সদস্যরা শপথ গ্রহণের পর দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকলে নতুন বছরে রেকর্ড সংখ্যক পর্যটক আসবেন বলে প্রত্যাশা করছেন কুমিল্লার পর্যটন ব্যবসায়ীরা।

আরও পড়ুন