কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,১৬ জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১ শ্রাবণ, ১৪২৭ | ২৪ জিলক্বদ, ১৪৪১
শিরোনাম:
অ্যাডভোকেট ফিরোজ এর মৃত্যুতে কুমিল্লায় আইনজীবীদের স্মরণসভা করোনায় কুমিল্লার ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু সংখ্যালঘু মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎকে জানে মারার হুমকি দিয়ে বিএনপি নেতার হামলা কুমিল্লায় নতুন করে ৭৯ জনের করোনা শনাক্ত, আক্রান্ত বেড়ে ২৬৮১ মুরাদনগরে সমকাল প্রতিনিধি বেলাল উদ্দিন করোনায় আক্রান্ত কুমিল্লায় অর্ধশত মসজিদের শতাধিক ব্যাটারি চুরি! কুমিল্লায় ২৪ ঘন্টায় ১৩১ জনের করোনা সনাক্ত, ৭ জনের মৃত্যু মনোহরগঞ্জে সাংবাদিককে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা, ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামীরা ফটোল্যাব ব্যবহারকারীর তথ্য যাচ্ছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থায়! কুমিল্লায় একদিনে রেকর্ড ১৬১ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৩

কুমিল্লা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ‘অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী’

কুমিল্লা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন পর্যন্ত বাংলাদেশে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঐতিহাসিক ঘটনার ছবি ও তথ্যচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। স্থায়ী প্রদর্শনীটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী।’ কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিজস্ব অর্থায়নে ছবি ও তথ্যচিত্রগুলো স্থাপন করা হয়েছে। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের নিচতলা থেকে দ্বিতীয়তলা পর্যন্ত পুরো দেয়ালজুড়েই বাংলাদেশের ইতিহাসের তথ্য সমৃদ্ধ এসব তথ্যচিত্র শোভা পাচ্ছে।

গত ২৯ ডিসেম্বর প্রদর্শনীটির উদ্বোধন করেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান। সেখানে শোভা পেয়েছে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন ও সমসায়িক ঘটনার ছবি, ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান ও অভ্যুত্থানে নিহত শহীদদের ছবি, বঙ্গবন্ধুর সংক্ষিপ্ত জীবনী ও স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ছবি, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালোরাতে পাকিস্তানি বাহিনীর নৃশংস হত্যাকাণ্ড ও বর্বরতার ছবি, ৭জন বীরশ্রেষ্ঠের বীরত্বগাঁথা ও তাঁদের সংক্ষিপ্ত পরিচয়, মুক্তযুদ্ধকালীন তথ্যচিত্র, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নৃশংসতা, বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড , প্রবাসে স্বাধীনতা আন্দোলন, উত্তাল মার্চ, ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যচিত্র ও ছবি এবং বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ঘটনার আবহে রচিত বেশ কিছু কবিতা । এসব ছাড়াও বঙ্গবন্ধুর বংশ পরিচয় এবং ফুটবল খেলায় গোপালগঞ্জের ট্রফি হাতে বঙ্গবন্ধুর একটি ছবি ঠাঁই পেয়েছে প্রদর্শনীটিতে।

সরকারি কার্যালয়ে এধরনের স্থায়ী প্রদর্শনী করার বিষয়ে কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান বলেছেন, ‘মূলত মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হৃদয়ে ধারণ করে এ কর্নরটি করা হয়েছে। কার্যালয়ে প্রবেশপথে কোনও ব্যক্তি যদি সামান্য সময়ের জন্য হলেও যুদ্ধকালীন এসব ছবি দেখে আপ্লুত হয় তবেই এ কাজটি সার্থক হবে। কাজটি করার উদ্দেশ্যই হলো পরবর্তী প্রজন্মের কাছে এ বার্তাটি পৌঁছে দেওয়া যে আমরা মুক্তিযুদ্ধকে হৃদয়ে লালন করি।’

আরও পড়ুন