কুমিল্লা
সোমবার,৩০ জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৬ মাঘ, ১৪২৯ | ৭ রজব, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

কুমিল্লা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ‘অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী’

কুমিল্লা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন পর্যন্ত বাংলাদেশে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঐতিহাসিক ঘটনার ছবি ও তথ্যচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। স্থায়ী প্রদর্শনীটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী।’ কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিজস্ব অর্থায়নে ছবি ও তথ্যচিত্রগুলো স্থাপন করা হয়েছে। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের নিচতলা থেকে দ্বিতীয়তলা পর্যন্ত পুরো দেয়ালজুড়েই বাংলাদেশের ইতিহাসের তথ্য সমৃদ্ধ এসব তথ্যচিত্র শোভা পাচ্ছে।

গত ২৯ ডিসেম্বর প্রদর্শনীটির উদ্বোধন করেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান। সেখানে শোভা পেয়েছে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন ও সমসায়িক ঘটনার ছবি, ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান ও অভ্যুত্থানে নিহত শহীদদের ছবি, বঙ্গবন্ধুর সংক্ষিপ্ত জীবনী ও স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ছবি, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালোরাতে পাকিস্তানি বাহিনীর নৃশংস হত্যাকাণ্ড ও বর্বরতার ছবি, ৭জন বীরশ্রেষ্ঠের বীরত্বগাঁথা ও তাঁদের সংক্ষিপ্ত পরিচয়, মুক্তযুদ্ধকালীন তথ্যচিত্র, পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নৃশংসতা, বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ড , প্রবাসে স্বাধীনতা আন্দোলন, উত্তাল মার্চ, ১৯৭০ সালের নির্বাচনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্যচিত্র ও ছবি এবং বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ঘটনার আবহে রচিত বেশ কিছু কবিতা । এসব ছাড়াও বঙ্গবন্ধুর বংশ পরিচয় এবং ফুটবল খেলায় গোপালগঞ্জের ট্রফি হাতে বঙ্গবন্ধুর একটি ছবি ঠাঁই পেয়েছে প্রদর্শনীটিতে।

সরকারি কার্যালয়ে এধরনের স্থায়ী প্রদর্শনী করার বিষয়ে কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান বলেছেন, ‘মূলত মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে হৃদয়ে ধারণ করে এ কর্নরটি করা হয়েছে। কার্যালয়ে প্রবেশপথে কোনও ব্যক্তি যদি সামান্য সময়ের জন্য হলেও যুদ্ধকালীন এসব ছবি দেখে আপ্লুত হয় তবেই এ কাজটি সার্থক হবে। কাজটি করার উদ্দেশ্যই হলো পরবর্তী প্রজন্মের কাছে এ বার্তাটি পৌঁছে দেওয়া যে আমরা মুক্তিযুদ্ধকে হৃদয়ে লালন করি।’

আরও পড়ুন