কুমিল্লা
সোমবার,১৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৩১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ৩ জিলকদ, ১৪৪২
শিরোনাম:

কুমিল্লার দুঃখ গোমতী নদীর অববাহিকায়

কুমিল্লার গোমতী নদী / ছবি: নতুন কুমিল্লা

এক সময়ের কুমিল্লার দুঃখ নামে খ্যাত খরস্রোতা গোমতী নদী এখন যৌবনের টইটুম্বুতা হারিয়ে বয়ঃবৃদ্ধে পরিণত হয়েছে। প্রতি বছর তার ভাঙ্গনের কবলে নিপাতি হতো কত ঘর-বাড়ী আর ফসলের জমি। বর্ষার মৌসুমে ভরা যৌবনা গোমতীর দুই তীরে জলরাশি ঢেউ খেলতো আর হামাগুড়ি দিয়ে মেঘনার তটে ছুটতো। তার দাপটে দুই তীরে মানুষগুলো ভয়ে তটস্থ হয়ে আতংকের মধ্যে রাত-দিন কাটাতো। কেউ কেউ তো ঘর-বাড়ী ফেলে বেড়ী বাঁধের উপর তাবু টাঙ্গিয়ে আল্লাহ্ রাসূলের নাম জপতে থাকতো।

ডিঙ্গি নৌকাগুলো ঢেউয়ের তালে তালে নেচে নেচে ছুটে চলতো ভাটির দেশের দিকে। আবার খরা মৌসুমে দুই তীরের মানুষগুলো চরের বালু মাটিতে সবজি চাষের ব্যস্ত থেকে দিন কাটাতো আবার কেউ বা জাল দিয়ে মাছ ধরে মনে তৃপ্তি মেটাতো। বড় বড় ডিঙ্গি নৌকায় করে কুমারের দল মাটির হাড়ি-পাতিল নিয়ে ভাটির দেশ থেকে এসে নোঙ্গর ফেলে দিনের বেলায় ধানের বিনিময়ে কৃষাণীদের নিকট হাড়ি-পাতিল বিক্রয় করত আর রাতের বেলায় রান্না-বান্না করে ডিঙ্গির মধ্যেই ঘুমিয়ে যেত। কোন কোন ডিঙ্গিতে আবার দেশীয় গানের আসর হতো। মনের সুখে নিজেরাই গান গাইতো।

বর্ষা মৌসুমে দেখতে পেতাম তার রুক্ষ ভাব আর খরা মৌসুমে মায়ার ছাপ। কত বছর ধরে দুই রূপ নিয়ে বয়ে চলেছে। দুই তীরের মানুষগুলোর সাথে কখনো শত্রুর ভাব দেখিয়েছে আবার কখনো বন্ধুতার সর্ম্পক সৃষ্টি মধ্য দিয়ে কেটে গেছে যুগের পর যুগ। সর্বনাসী হয়ে কেড়ে নিয়ে কত মায়ের বুকের মানিক আবার কখনো বুক চিরে ফলিয়েছে অসংখ্য ফসল।

গোমতীর সাথে আমার গভীর মিতালী। বাল্যকালে তার তটে কত সময় যে ব্যয় করেছি তার ইয়ত্তা নেই। আমার মায়ের জন্মভূমি হিসেবে সর্ম্পকটা ছিল খুব শক্ত। স্কুলের ছুটি পেলেই ছুটে যেতাম পূর্বহুড়া গ্রামে। ছেলেদের সাথে দলবেঁধে গোসল করতাম। চৈত্র মাসে যখন পানি কমে যেত তখন ছোট ছোট মাছ ধরার আনন্দটাই ছিল অন্যরকম। যা আজও মনের মধ্যে ভেসে উঠে। পরবর্তীতে আমার পরিণত বয়সে সর্ম্পকটা আরো পাকাপোক্ত করেন আমার জন্মদাতা বাবা মরহুম আবদুল আজিজ। গোমতীর অপর তীরের ময়নামতি ইউনিয়নের শমেষপুর গ্রামের ফাতেমা বেগমের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ করে। এক তীরে জন্মেছে মোর গর্ভধারণী অপর তীরে জন্মিল মোর জীবনসঙ্গিনী।

তাই গোমতীর সাথে আমার রক্তের সর্ম্পক গড়ে উঠেছে। এই গ্রামের পাশে দিয়ে খরস্রোতা গোমতী প্রবাহিত ছিল এখনো আছে। তবে পূর্বে সেই ভাবখানা আর গর্জন নেই। মনে হয় অনুভূতিহীন বৃদ্ধাটি শোয়ে আছে। চোখ দুটি জাগ্রত থাকলেও মুখে ভাষা নেই। দেখতে পায় অনেক কিছু কিন্ত বলতে পারে না। ভূমি দস্যুর দল প্রতিদিন তার বুকের মাংসগুলো কেটে ছিড়ে নিয়ে যায়। আর বৃদ্ধাটি শত দুঃখ কষ্ট নিরবে সহ্য করে। উৎসস্থল থেকে পূর্বের মতো জলরাশি প্রবাহিত না হওয়ায় বর্ষার ও খরা সব সময়ই থাকে মরা মরা ভাব। যেন সব কিছু হারিয়ে এতিম অসহায় হয়ে আছে। খোঁজ খবর রাখার মতো কেউ নেই। মাটি খেকোর দল শত বছরের শত্রুতার বদলা নিচ্ছে।

কোথাও ড্রেজার দিয়ে আবার কোথাও ট্রাক্টর দিয়ে দিনে রাতে মাটি ও বালি কেটে রক্তাক্ত ভূমিতে পরিণত করেছে। যৌবনের টইটুম্বুতা না থাকার কারণে কেউ ফিরেও তাকায় না। গোমতীর রক্ষণাবেক্ষণের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডে দায়িত্ব থাকলেও তারা উদাসীন হয়ে দর্শকের ভূমিকায় পালন করছে। যেন কোন হুলি খেলায় বাঁিশওয়ালার দায়িত্ব পালন করছে। শত বছরের ঐতিহ্যবাহী নদীটি মরে গিয়েছে আর মুচির দল ধারালো ছুরি দিয়ে তার চামড়া কেটে নিচ্ছে।

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যর উদয়পুরের সোনাইমুড়ি এলাকা থেকে উৎপত্তি গোমতী নদীটির ৮৩ কিলোমিটারের মূল অংশ কুমিল্লা জেলায়। ভারত বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী কটকবাজার থেকে নদীটি কুমিল্লা জেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে মেঘনা নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। গোমতী নদীর অববাহিকায় স্থানীয় পর্যটন শিল্প বিকাশের কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠার অপার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে সরকারি-বেসরকারি কোনো উদ্যোগ না থাকার কারণে পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনাময় গোমতী নদীর চর বেদখল হয়ে যাচ্ছে।

নদীর উভয় তীরে এখন পিচ দিয়ে ঢালাই দেয়া পাকা সড়ক হয়েছে। উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার ফলে দেশের যেকোন প্রান্ত থেকে পর্যটকরা এসে দেখতে পারেন গোমতী নদীর অপূর্ব সৌন্দর্য। গোমতী নদীটি জেলার সদর, বুড়িচং, দেবিদ্বার, মুরাদনগর, তিতাস ও দাউদকান্দি হয়ে মেঘনা নদীর সাথে মিলিত হয়েছে। দীর্ঘ ৮৩ কিলোমিটার প্রবাহিত হওয়া গোমতী নদীর দু’তীরে ব্যক্তি মালিকানায় গড়ে উঠা কাঁঠাল বাগান আর বিশাল চরে কৃষকদের ফলানো সবুজ সবজির ক্ষেতজুড়ে সতেজ সবুজের এক মোহনীয় দৃশ্যের অবতারণা ঘটায়। মাত্র দু’বছর আগে সদর উপজেলার টিক্কারচর, পালপাড়া ও বুড়িচং উপজেলার আলেকারচর এলাকায় নদীর উপর নির্মান করা তিনটি পাকা ব্রীজ। এসব স্থানে প্রতিদিন দর্শনার্থীরা নদীর সৌন্দর্য্য উপভোগে ভীড় জমায়। সরকারি ছুটির দিনগুলোতে দূর-দূরান্ত থেকে আসা দর্শনার্থীদের সাথে ভীড় জমায় স্থানীয়রাও।

দর্শনার্থীদের পদচারণায় মূখর হয়ে উঠে গোমতী নদীর দু’পাড়। এছাড়া নদীর দুই তীরের বিভিন্ন স্থানে ব্যক্তি মালিকানায় গড়ে তোলা হচ্ছে ছোট ছোট কফিশপ । চালা ছাড়া কটেজে তৈরী করা বাঁশের বেঞ্চিতে বসে কফি কিংবা চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে উপভোগ করতে দেখা যায় প্রকৃতি প্রেমীদের। শেষ বিকেলে দর্শনার্থীদের ভীড়ে জমজমাট হয়ে উঠে কটেজগুলো।

রেল ব্রিজের নীচে বড় বড় পাথর জমে নদীর গতিপথে সামান্য বাধা হয়ে ঘূর্নিপাক তৈরী হয়ে পানির স্রোত অপূর্ব সৌন্দর্যের সৃষ্টি করে। বিকেল হলেই নদীর পানির স্রোতের ঘূর্নিপার্ক- ছোট বড় ঢেউয়ের সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে সব বয়সী মানুষদের ভীড় বেড়ে লেগে থাকে। অনেকেই নদীর পানিতে আধো ডুবে থাকা পাথরগুলোতে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সুমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্যের স্বাদ নেয়। মুঠোফোনের ক্যামেরায় বন্দি করে নিজের ও পরিবারের ছবি। কামার খাড়া ব্রীজ সংলগ্ন এলাকায় গড়ে উঠেছে ড্রিম ফুড নামের একটি ফাস্ট ফুডের দোকান। প্রতিদিন সন্ধ্যায় ভ্রমন পিপাসু মানুষের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য উপলব্ধি করার জন্য গোমতীর পাড়ে উপস্থিত হয় এবং ব্রীজের উত্তর পাড়ে ড্রিম ফুডে জমজমাট আড্ডায় মিলিত হয়।

আরও পড়ুন