কুমিল্লা
শুক্রবার,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ২৯ মুহাররম, ১৪৪২

কুমিল্লায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জন না হওয়ায় আগ্রহ হারাচ্ছে আলু চাষীরা

প্রতি বছর ধারাবাহিক লোকসান গুনে এবার আলু চাষে আগ্রহ হারিয়েছে কুমিল্লার আলু চাষীরা। পুরো জেলায় কৃষকদের মাঝে আলু চাষাবাদে ধারণাতীত অনাগ্রহ দেখা দেওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে সক্ষম হয়নি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।
প্রায় ২ হাজার হেক্টর জমিতে আলু চাষাবাদ কম হওয়ার কারণে আলুর নির্ধারিত ফলন অর্জন নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে কুমিল্লা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে। তবে এবারের শীত মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আলুর বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভবনা দেখছেন কৃষিবিদরা। তবে তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে অন্তত পুরো ফেব্রুয়ারী মাস।

জেলার ১৭ উপজেলার মধ্যে চান্দিনা, দেবিদ্বার, বুড়িচং ও দাউদকান্দি উপজেলায় ৯ হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে আলু চাষাবাদ হলেও বাকি ১৩টি উপজেলায় আলুর চাষাবাদ হয়েছে মাত্র ২ হাজার ২শ হেক্টর!

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, মৌসুমের শুরুতে কুমিল্লার ১৭টি উপজেলায় ১৩ হাজার ৭৮০ হেক্টর জমিতে আলুর চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করেছিলেন। প্রায় এক মাসের ব্যবধানে পুরো জেলায় চাষাবাদ হয়েছে ১২ হাজার হেক্টর। লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণের চেয়ে প্রায় ১হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে আলুর চাষাবাদ কম হয়েছে।

এর মধ্যে জেলার দাউদকান্দি উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫ হাজার ৩৩০ হেক্টর জমিতে এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলায় সর্বনি¤œ ২ হেক্টর জমিতে আলু চাষাবাদ হয়েছে।

জেলার বুড়িচং ও চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় লক্ষ্যমাত্র অতিক্রম করে। তবে তাও আশানুরূপ হয়নি। বুড়িচং উপজেলায় ৯১৫ হেক্টর জমিতে আলু চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করা হলেও ওই উপজেলায় লক্ষ্যমাত্র অতিক্রম করে ১ হাজার ৬৫ হেক্টর জমিতে চাষাবাদ হয়েছে। এছাড়া চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় ১৩০ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করার পর ওই উপজেলায় লক্ষ্যমাত্র অতিক্রম করে ৫ হেক্টর জমিতে বেশি চাষাবাদ হয়েছে।

এছাড়া জেলার চান্দিনা উপজেলায় ২ হাজার ৫শ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ১ হাজার ৭শ ৫৫ হেক্টর, দেবিদ্বার উপজেলায় ১ হাজার ৭শ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ১ হাজার ৬শ ৫০ হেক্টর, মুরাদনগর উপজেলায় ৪৬০ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ৪১০ হেক্টর, হোমনা উপজেলায় ৪শ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ৩৩০ হেক্টর, আদর্শ সদর উপজেলায় ৩শ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ১২০ হেক্টর, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায় ১৫০ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ১শ হেক্টর, লাকসাম উপজেলায় মাত্র ২০ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে মাত্র ১০ হেক্টর,

নাঙ্গলকোট উপজেলায় ১৫০ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে তিন ভাগের এক ভাগ, বরুড়া উপজেলায় ৭শ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে তাও তিন ভাগের এক ২৬০হেক্টর, মেঘনা উপজেলায় ২৯০ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ১৯৫ হেক্টর, তিতাস উপজেলায় ৩শ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ২৯৩ হেক্টর, সদর দক্ষিণ উপজেলায় ৩৫০ হেক্টর জমির লক্ষ্যমাত্রায় আলু চাষাবাদের বিপরীতে অর্জিত হয়েছে ২৯০ হেক্টর, আর সবচেয়ে কম লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হয়েছে মনোহরগঞ্জ উপজেলায়। ওই উপজেলায় ১৫ হেক্টর লক্ষ্যমাত্র নিয়ে অর্জিত হয়েছে মাত্র ২ হেক্টর।

জেলার চান্দিনা উপজেলার শ্রীমন্তপুর গ্রামের কৃষক ছিদ্দিকুর রহমান জানান, আমি প্রতি বছর ২-৩ একর জমিতে আলু চাষ করতাম। ২০১৬ সাল থেকে ধারাবাহিক লোকসান গুনে এবছর মাত্র ৩০ শতাংশ জমিতে আলু চাষ করেছি। আমার মত এমন অনেক কৃষকই আলু চাষ কমিয়ে দিয়েছে। আবার কেউ কেউ আলু চাষ ছেড়েই দিয়েছে।

কারণ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, আলু চাষাবাদে সার, বীজ ও পরিচর্যায় যে পরিমাণ টাকা খরচ হয় আলু উত্তোলন করে ওই পরিমাণ টাকা পাওয়া যায় না। প্রতি বছর বৈরি আবহাওয়ায় আলুর উৎপাদন কম হয় আবার বাজারে সারা বছরও আলুর দাম আশানুরূপ বাড়ে না। তাই আলু চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ দীলিপ কুমার অধিকারী জানান, মূলত প্রতি বছর বৈরি আবহাওয়ার সাথে যুদ্ধ করে এ জেলার কৃষক আলু চাষাবাদ করে আসছে। অপরদিকে বাজারে আশানুরূপ আলুর দাম না পাওয়ার ফলে দিনে দিনে আলু চাষে আগ্রহ হারিয়েছে কৃষক। তবে আমাদের মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তা থেকে শুরু করে আমরা আন্তরিক ভাবে কৃষকদের পাশে আছি। যারফলে এখনও কৃষক আলুর চাষাবাদ ধরে রেখেছে। এবছর ফলন ভাল হলে এবং বাজারে আলুর দাম ভাল পেলে আবারও ঘুরে দাঁড়াবে এ জেলার কৃষক।

আরও পড়ুন