কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৯ জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
২৫ আষাঢ়, ১৪২৭ | ১৭ জিলক্বদ, ১৪৪১
শিরোনাম:
করোনায় কুমিল্লার ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু সংখ্যালঘু মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎকে জানে মারার হুমকি দিয়ে বিএনপি নেতার হামলা কুমিল্লায় নতুন করে ৭৯ জনের করোনা শনাক্ত, আক্রান্ত বেড়ে ২৬৮১ মুরাদনগরে সমকাল প্রতিনিধি বেলাল উদ্দিন করোনায় আক্রান্ত কুমিল্লায় অর্ধশত মসজিদের শতাধিক ব্যাটারি চুরি! কুমিল্লায় ২৪ ঘন্টায় ১৩১ জনের করোনা সনাক্ত, ৭ জনের মৃত্যু মনোহরগঞ্জে সাংবাদিককে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা, ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামীরা ফটোল্যাব ব্যবহারকারীর তথ্য যাচ্ছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থায়! কুমিল্লায় একদিনে রেকর্ড ১৬১ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৩ অবশেষে মিললো জীবন রক্ষাকারী প্রথম ওষুধ

হারের বৃত্তেই টাইটান্স, রংপুর রাইডার্সের সহজ জয়

শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার মাত্র ৬ রান। উইকেটে আছেন রংপুর রাইডার্সের হয়ে এই আসরের সেরা দুই পারফরমার মোহাম্মদ মিথুন ও রাইলি রুশো। তবে ওই ৬ রান নিয়েই লড়াই করে যেতে চাইল হারের বৃত্তে ঘুরপাক খেতে থাকা খুলনা টাইটান্স। টাইটান্সের হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা পাকিস্তানি ইয়াসির আলী সে আশা আরও জাগিয়ে তুলল নিজের প্রথম বলেই মোহাম্মদ মিথুনকে ফিরিয়ে দিয়ে। আশা জাগালেও জয়ের জন্য ৬ রান নিশ্চয়ই যথেষ্ট ছিল না টাইটান্সের। হলোও তাই। উইকেট নামা নাহিদুল এক রান নিয়ে রুশোকে স্ট্রাইক দেয়ার পরের বলেই ছক্কা মেরে রাইডার্সকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন রুশো।

লক্ষ্যটা বেশ বড়ই ছিল রাইডার্সের সামনে। টসে হারা খুলনা টাইটান্সের দেয়া ১৮২ রানের জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছাতে অবশ্য খুব একটা বেগ পেতে হয়নি মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার দলকে। পেতে হবেই বা কেন? যে দলে প্রথম চার ব্যাটসম্যান গেইল, হেলস, ডি ভিলিয়ার্স ও রুশো- তাদের ১৮০ তাড়া করতে কষ্ট হওয়ার কথা উঠবেই বা কেন। দলও তাই জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছেছে ৭ উইকেট হাতে রেখেই।

তবে আশ্চর্যের শুরু রংপুর রাইডার্সের স্কোর দেখে। দলের যখন ৫৮ রান, তখন অ্যালেক্স হেলসের ব্যক্তিগত রান ৫৪! উইকেটের অপর পাশে যেখানে ক্রিস গেইল, সেখানে এটা তো খুব আশ্চর্যের বিষয়ই। তবে ফিফটি করেই বিদায় নেন হেলস। ইয়াসির শাহ বোলিংয়ে এসেই হেলসকে (৫৫ রান) বোল্ড করে সাজঘরের পথ ধরিয়ে দেন।

হেলসের পর মিরপুরে ঝড় তোলেন ‘মি. থ্রি সিক্সটি ডিগ্রি’ এবি ডি ভিলিয়ার্স। অচেনা গেইলকে উইকেটের বিপরীত পাশে দর্শক সাজিয়ে খেলতে থাকেন চোখ ধাঁধানো বাহারি ধাঁচের শট। হেলসের মতো ফিফটিও করে ফেলতে পারতেন ভিলিয়ার্স, যদি না মাহমুদউল্লাহর বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পা না দিতেন সাবেক এই প্রোটিয়া। তবে উইকেট দিয়ে ফেরার আগে ২৫ বলে ৪১ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলে দলকে জয়ের পথেই রাখেন ভিলিয়ার্স।

হেলস-ভিলিয়ার্সের পর হাত গুটিয়ে বসে থাকা গেইলও হাত খোলেন। তুলে নেন এই আসরের প্রথম ফিফটি। অবশ্য দলকে জয়ের কাছাকাছি নিয়ে গেলেও ম্যাচ জিতে মাঠ ছাড়া হয়নি এই আসরে এখনো নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে না পারা এই ক্যারিবীয় দানব। জুনাইদ খানের বলে ৫৫ রানের (৪০ বল) ইনিংস খেলে গেইল যখন বিদায় নেন জয় হতে রাইডার্সর তখন খুব দূরে নয়। বাকি কাজটা তো মিথুন ও রুশো মিলেই শেষ করে দেন।

হারলেও খুলনা টাইটান্সের ম্যাচের পাওয়া হয়তো ফের ১৮০ পেরোনো দলীয় স্কোর। আসরের শুরু থেকেই খাবি খেতে থাকা টাইটান্স-রাইডার্সের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো করতে না পারলেও শেষ দিকে ডেভিড ভিসের ঝড়ে ৬ উইকেট হারিয়ে স্কোরবোর্ডে ১৮১ রান পায়।

অবশ্য টাইটান্সের ব্যাটিং দেখে ম্যাচের কখনোই মনেই হয়নি যে তারা ইনিংস শেষে ১৮০ পেরোতে পারবে। ম্যাচের ও নিজের করা প্রথম ওভারেই ওপেনার আল-আমিনকে (৪ রান) ফেরান রাইডার্স অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

ইনফরম ব্যাটসম্যান জুনায়েদ সিদ্দিকিও এদিন সুবিধা করতে পারেননি। দ্রুত রান তুলতে গিয়ে ফরহাদ রেজার বলে রাইলি রুশোর হাতে ধরা দেন ১৩ রান করা সিদ্দিক। ২৯ রানে ২ উইকেট হারানো টাইটান্সের হয়ে এরপর হাল ধরেন ব্রেন্ডন টেলর ও নাজমুল হোসেন শান্ত। যদিও ২০ বলে ৩২ রানের ইনিংস খেলে টেলর বিদায় নেন ক্রিস গেইলের বলে। গেইলের করা প্রথম ওভারের প্রথম বলেই স্লগ শট খেলতে গিয়ে মিড-অফে নাহিদুলের তালুবন্দি হন তিনি।

অভিজ্ঞ টেলর ফেরায় উইকেটে সেট হয়ে যাওয়া শান্তকে নিয়ে দলের হাল ধরেন খুলনা অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। শান্ত ৪৮ এবং মাহমুদউল্লাহ ২৯ করার পর দুজনেই দ্রুত সময়ের মধ্যে সাজঘরে ফেরেন ফরহাদ রেজার বলে। সিদ্দিকি-শান্ত-মাহমুদউল্লাহের পর আরিফুলের উইকেটও নিজের পকেটে পোরেন ফরহাদ রেজা।

ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে উইকেট হারালেও শেষের ২ ওভারে রাইডার্স বোলারদের উপর ঝড় চালান ডেভিড ভিসে। মাত্র ১৫ বল খেলে ৩ চার ও ২ ছয়ের মারে ৩৫ রান করে টাইটান্সকে ১৮১ রানের বড় সংগ্রহ এনে দেন তিনিই। যদিও শেষ পর্যন্ত কোনো কাজে আসেনি তার এই ইনিংস। হারের তিক্ততায় মাঠ ছাড়তে হয় টাইটান্সকে।

আরও পড়ুন