কুমিল্লা
শনিবার,৪ জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
২০ আষাঢ়, ১৪২৭ | ১২ জিলক্বদ, ১৪৪১
শিরোনাম:
করোনায় কুমিল্লার ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু সংখ্যালঘু মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎকে জানে মারার হুমকি দিয়ে বিএনপি নেতার হামলা কুমিল্লায় নতুন করে ৭৯ জনের করোনা শনাক্ত, আক্রান্ত বেড়ে ২৬৮১ মুরাদনগরে সমকাল প্রতিনিধি বেলাল উদ্দিন করোনায় আক্রান্ত কুমিল্লায় অর্ধশত মসজিদের শতাধিক ব্যাটারি চুরি! কুমিল্লায় ২৪ ঘন্টায় ১৩১ জনের করোনা সনাক্ত, ৭ জনের মৃত্যু মনোহরগঞ্জে সাংবাদিককে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা, ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামীরা ফটোল্যাব ব্যবহারকারীর তথ্য যাচ্ছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থায়! কুমিল্লায় একদিনে রেকর্ড ১৬১ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৩ অবশেষে মিললো জীবন রক্ষাকারী প্রথম ওষুধ

নারী-শিশু কেউ বাদ পড়ছেনা ধর্ষকদের শিকার থেকে

স্বাধীনতার ৪৭ বছর পেরিয়েও নারীরা আজ স্বাধীন নয়, নিরাপদ নয়! আজও মাঠে-ঘাটে, যানবাহনে, রাস্তার আলি-গলিতে ধর্ষিত হচ্ছে নারী ও শিশুরা। এই ধর্ষণের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রতিদিন খবরের কাগজের পাতা উল্টাতেই চোখে পরে অসহায় নারী ও শিশু ধর্ষণের খবর।

গত পহেলা অক্টোবর রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার মাতুয়াইল দরবার শরীফ গলির সামাদ ভূঁইয়ার টিনশেডের ঘরে সাত বছরের শিশু কন্যা জারিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা করে এক মানুষরূপী পশুরা। ধানের শীষ প্রতীকে ভোটা দেওয়ায় আলোচিত নির্যাতিত নারী নোয়াখালীর সুবর্ণচরের চার সন্তানের জননীকে ধর্ষণের ঘটনায় জরিতদের আংশিক আইনের আওতায় আনা হলেও বাকিরা এখনো ধরা-ছোয়ার বাহিরে রয়ে গেছে। নিত্যদিনই গণমাধ্যমের কল্যাণে ধর্ষনের কম ঘটনাই আমাদের নজরে আসে। কিন্তু পুরুষ শাসিত সমাজে এমন অসংখ্য নারীর সতীত্ব হননের আত্মচিৎকার চাপা পরে যায় আত্মসম্মান কিংবা রাঙা লাঠির ভয়ে।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের তথ্য দেখলে রীতিমত আতকে উঠতে হয়! তথ্য মতে, ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশব্যাপী ৩ হাজার ৯১৮ জন নারী ও কন্যা নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

মহিলা পরিষদের তথ্য মতে, ২০১৮ সালে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৯৪২ টি। এর মধ্যে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ১৮২ জন এবং ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৬৩ জনকে। এ ছাড়া, ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে ১২৮ জনকে, শ্লীলতাহানির চেষ্টা করা হয়েছে ৭১ জনকে এবং যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৪৬ জন নারী ও কন্যা শিশু।

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আলেয়া পারভীন বলেন, নারী নির্যাতন আদিমকাল থেকেই চলে আসছে। তবে সময়ের পরিবর্তনে নির্যাতন ও সহিংসতার ধরন পাল্টাচ্ছে। নারীর প্রতি নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিই এর অন্যতম কারণ। নারী শুধু ঘরের বাইরেই নির্যাতন ও সহিংসতার শিকার হচ্ছেন তা নয়, নিজ ঘরেও নির্যাতনের ও সহিংসতার শিকার হচ্ছেন নারীরা। শিশুকাল থেকেই নারী বৈষম্য ও প্রতিবন্ধকতার শিকার হচ্ছে নিজ পরিবারে।

তিনি আরোও বলেন, বাংলাদেশের আইনকানুন এমন, অনেক সময় ধর্ষণের ঘটনা প্রমাণ করতে ধর্ষণের শিকার মেয়েদের অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়তে হয়।

আমাদের দেশ বিভিন্ন অঙ্গণে উন্নয়নের স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়েছে। কিন্তু দেশের বৃহৎ জনগোষ্ঠী নারী সমাজের নিরাপদে চলাফেরার অধিকারকে হুমকির মুখে রেখে দেশকে কতটা এগিয়ে নেওয়া সম্ভব সেটাই এখন ভাবার বিষয়। আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশকে সমানতালে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নারী সমাজের বিকল্প নেই। তাই নারীর নিরাপদ চলাফেরার বিষয়টি নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবি।

লেখক: রফিকুল ইসলাম, শিক্ষার্থী, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

আরও পড়ুন