কুমিল্লা
রবিবার,২৭ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ২ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

নারী-শিশু কেউ বাদ পড়ছেনা ধর্ষকদের শিকার থেকে

স্বাধীনতার ৪৭ বছর পেরিয়েও নারীরা আজ স্বাধীন নয়, নিরাপদ নয়! আজও মাঠে-ঘাটে, যানবাহনে, রাস্তার আলি-গলিতে ধর্ষিত হচ্ছে নারী ও শিশুরা। এই ধর্ষণের মাত্রা দিন দিন বেড়েই চলেছে। প্রতিদিন খবরের কাগজের পাতা উল্টাতেই চোখে পরে অসহায় নারী ও শিশু ধর্ষণের খবর।

গত পহেলা অক্টোবর রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার মাতুয়াইল দরবার শরীফ গলির সামাদ ভূঁইয়ার টিনশেডের ঘরে সাত বছরের শিশু কন্যা জারিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা করে এক মানুষরূপী পশুরা। ধানের শীষ প্রতীকে ভোটা দেওয়ায় আলোচিত নির্যাতিত নারী নোয়াখালীর সুবর্ণচরের চার সন্তানের জননীকে ধর্ষণের ঘটনায় জরিতদের আংশিক আইনের আওতায় আনা হলেও বাকিরা এখনো ধরা-ছোয়ার বাহিরে রয়ে গেছে। নিত্যদিনই গণমাধ্যমের কল্যাণে ধর্ষনের কম ঘটনাই আমাদের নজরে আসে। কিন্তু পুরুষ শাসিত সমাজে এমন অসংখ্য নারীর সতীত্ব হননের আত্মচিৎকার চাপা পরে যায় আত্মসম্মান কিংবা রাঙা লাঠির ভয়ে।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের তথ্য দেখলে রীতিমত আতকে উঠতে হয়! তথ্য মতে, ২০১৮ সালের জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশব্যাপী ৩ হাজার ৯১৮ জন নারী ও কন্যা নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

মহিলা পরিষদের তথ্য মতে, ২০১৮ সালে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৯৪২ টি। এর মধ্যে গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন ১৮২ জন এবং ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৬৩ জনকে। এ ছাড়া, ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে ১২৮ জনকে, শ্লীলতাহানির চেষ্টা করা হয়েছে ৭১ জনকে এবং যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৪৬ জন নারী ও কন্যা শিশু।

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আলেয়া পারভীন বলেন, নারী নির্যাতন আদিমকাল থেকেই চলে আসছে। তবে সময়ের পরিবর্তনে নির্যাতন ও সহিংসতার ধরন পাল্টাচ্ছে। নারীর প্রতি নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিই এর অন্যতম কারণ। নারী শুধু ঘরের বাইরেই নির্যাতন ও সহিংসতার শিকার হচ্ছেন তা নয়, নিজ ঘরেও নির্যাতনের ও সহিংসতার শিকার হচ্ছেন নারীরা। শিশুকাল থেকেই নারী বৈষম্য ও প্রতিবন্ধকতার শিকার হচ্ছে নিজ পরিবারে।

তিনি আরোও বলেন, বাংলাদেশের আইনকানুন এমন, অনেক সময় ধর্ষণের ঘটনা প্রমাণ করতে ধর্ষণের শিকার মেয়েদের অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়তে হয়।

আমাদের দেশ বিভিন্ন অঙ্গণে উন্নয়নের স্বাক্ষর রাখতে সক্ষম হয়েছে। কিন্তু দেশের বৃহৎ জনগোষ্ঠী নারী সমাজের নিরাপদে চলাফেরার অধিকারকে হুমকির মুখে রেখে দেশকে কতটা এগিয়ে নেওয়া সম্ভব সেটাই এখন ভাবার বিষয়। আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশকে সমানতালে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য নারী সমাজের বিকল্প নেই। তাই নারীর নিরাপদ চলাফেরার বিষয়টি নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবি।

লেখক: রফিকুল ইসলাম, শিক্ষার্থী, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

আরও পড়ুন