কুমিল্লা
বুধবার,১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

চৌদ্দগ্রামে নিহত শ্রমিকদের জনপ্রতি ২০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা

নিহত ১৩ শ্রমিকের মৃতদেহ

চৌদ্দগ্রামে ঘুমন্ত শ্রমিকদের ওপর কয়লার ট্রাক উল্টে ১৩ শ্রমিক মৃত্যুর ঘটনায় কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জনপ্রতি ২০ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদানের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে এ ঘোষণা দেন।

জেলা প্রশাসক ছাড়াও ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি ফয়েজ আহমেদ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুস সোবহান ভূঁইয়া হাসান, কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুন, পৌর মেয়র মিজানুর রহমান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শেখ শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবদুল্লাহ আল মাহফুজ নতুন কুমিল্লাকে জানান, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিহতদের মরদেহের ময়নাতদন্তের কাজ চলছে, পরে পুলিশের ব্যবস্থাপনায় স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হবে।

বিস্তারিত পড়ুন: >>> কুমিল্লায় ট্রাক উল্টে ঘুমন্ত ১৩ শ্রমিকের মৃত্যু

এর আগে শুক্রবার ভোরে জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ঘোলপাশা ইউনিয়নে করিমপুর (দোসরী) এলাকায় কাজী অ্যান্ড কোং নামের একটি ইটভাটায় মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর পালিয়েছে ট্রাকের চালক ও হেলপার।

স্থানীয়রা জানান, কয়লা ভর্তি ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-ট-১৬-০১১৪) থেকে কয়লা নামার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন শ্রমিকরা। হঠাৎ করে ট্রাকটি উল্টে শ্রমিকদের থাকার ঘরের ওপরে পড়ে। এসময় বেশিরভাগ শ্রমিক ঘুমিয়ে থাকার কারণে ঘটনাস্থলে ১৩ শ্রমিক নিহত ও ২ জন আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- শিমুল বাড়ীর মৃনাল চন্দ্র রায় (২১) ও মনোরঞ্জন চন্দ্র রায় (১৯), নিজপাড়ার সুরেশ চন্দ্র রায়ের ছেলে রঞ্জিত চন্দ্র রায় (৩০), জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে মোহাম্মদ সেলিম (২৮), সুনীল চন্দ্র রায় ছেলে তরুণ চন্দ্র রায় (২৫), কুড়াপাড়ের অমল চন্দ্র রায়ের ছেলে দীপু চন্দ্র রায় (১৯), একই গ্রামের রাম প্রসাদের ছেলে বিপ্লব (১৯), কৃশব চন্দ্র রায়ের ছেলে শঙ্কর রায় (২২), কামিক্ষার ছেলে অমৃত চন্দ্র রায় (২০), রাজবাড়ীর দিয়া বাড়ীর বিকাশ চন্দ্র রায়(২৮), একই গ্রামের ধলু চন্দ্র রায়ের ছেলে কনক চন্দ্র রায় (৩৫), পাঠানপাড়ার ফজলুল করিমের ছেলে মাসুম মিয়া (১৮) ও পাঠানপাড়ার নূর আলমের ছেলে মোহাম্মদ মোরসালিন (১৮)।

এদিকে মর্মান্তিক ওই দুর্ঘটনায় নিহতদের প্রতি গভীর শোক ও শোকার্ত পরিবারগুলোর প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক রেলমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক।

আরও পড়ুন