কুমিল্লা
শনিবার,২৪ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১১ বৈশাখ, ১৪২৮ | ১১ রমজান, ১৪৪২

আজ ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী :

হৃদয়ে অম্লান সাবেক এমপি জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া

আজ রবিবার (২৭ জানুয়ারি) নাঙ্গলকোটের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জয়নাল আবেদীন ভঁইয়ার ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী। মৃত্যুর ১৪বছরেও নাঙ্গলকোটে প্রয়াত এ সংসদ সদস্যের আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা রয়েছে। নাঙ্গলকোটের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের সাথে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে। জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়ার স্মৃতি স্মরনীয় করে তাঁর নামে কমপক্ষে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, স্টেডিয়াম ও গুরুত্বপূর্ণ সড়কের নামকরণের দাবি জানিয়েছেন নাঙ্গলকোটের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।

সূত্র মতে- নাঙ্গলকোটের প্রত্যন্ত অঞ্চল খ্যাত বদরপুর গ্রামের কীর্তিমান পুরুষ জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া ‘‘নাঙ্গলকোটের মাটি ও মানুষের নেতা’’ হিসেবে খেতাব অর্জন করেছিলেন। তিনি ছিলেন গরীব-দুঃখী, মেহনতি মানুষের সুখ-দুঃখের সাথী। যেখানেই সমস্যা, সেখানেই ছিলেন জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া। অর্থ প্রাচুর্যে তিনি বিত্তবান না থাকলেও মনের দিক থেকে ছিলেন সবল। সর্বদা নাঙ্গলকোটের উন্নয়নে ব্যাপৃত ছিলেন।

আধুনিক নাঙ্গলকোট গড়ার স্বপ্ন হৃদয়ে লালন করেছেন। নাঙ্গলকোটের মানুষের ভাগ্যন্নোয়নের কথা চিন্তা করে চাকুরি কিংবা ব্যবসা-বাণিজ্যে মনোনিবেশ না করে সর্বদা নাঙ্গলকোটের উন্নয়নের কথা ভাবতেন। সচিবালয়ে দপ্তরে দপ্তরে গিয়ে বিভিন্ন মন্ত্রী ও সচিবদের সাথে ভাব জমিয়ে বিভিন্ন উন্নয়নের বরাদ্দ অনুমোদন করিয়েছেন।

জিয়াউর রহমান সরকারের আমলে চৌদ্দগ্রামের ৬টি হোমনাবাদের ৫টি ইউনিয়ন নিয়ে নাঙ্গলকোট উপজেলা (থানা) প্রতিষ্ঠা তাঁর একক অবদান। তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মিঃ এম রহমানের কক্ষে থানার অনুমোদন কল্পে প্রবেশ কালীন সময়ে মন্ত্রী থানার অনুমোদনের ব্যাপারে ইতঃস্তত করতে থাকলে টেবিল চাপড়িয়ে জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া বলেন- “এই যদি হয় আমি বিরোধী দল করি। এই অজুহাতে আপনি আমার থানা দিবেন না, তবে এক্ষুনি রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কাছ থেকে থানা আদায় করে ছাড়বো। আমি মুক্তিযোদ্ধা জেনারেল জিয়ার সাথে এক সেক্টরে যুদ্ধ করেছি।’ শেষ পর্যন্ত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পক্ষ হতেই সম্মতি আদায়ের মাধ্যমে নাঙ্গলকোট উপজেলা (থানা) অনুমোদন করেন। এভাবেই নাঙ্গলকোটের বিভিন্ন উন্নয়নে জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখেন।

জয়নাল আবেদীন ভূঁইয়া এম.পি ছিলেন কি ছিলেন না এমনটি না ভেবে নাড়ির টানে প্রায়ই নাঙ্গলকোটে বিচরণ করতেন। মাঝে-মধ্যে বিভিন্ন এলাকার গিয়ে মেহমানের মতো ৩/৪দিন অবস্থান করে বিভিন্ন উন্নয়ন ত্বরান্বিত করার পাশাপাশি জনগণের বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনার কথা শুনতেন। দলমত নির্বিশেষে তিনি সবার সাথে প্রাণ খুলে মিশতেন বলে ‘‘জয়নাল ভাই’’ নামে খ্যাতি অর্জন করেন। অনেকে তাকে ‘‘নাঙ্গলকোটের বঙ্গবন্ধু’’ বলে ডাকতেন। পরিচিত হোক আর অপরিচিত হোক তিনি কাউকে দেখা মাত্রই জড়িয়ে ধরতেন, হাসিমুখে কথা বলতেন। কখনো একাকী কিছু খেতেন না।

যেখানেই থাকতেন সেখানেই নিয়মিত চা চক্র বসতো। দুপুরের খাবার খেতেন এক সাথে ১০/১২ জন। ঢাকায় অবস্থানরত নাঙ্গলকোটের কারো সমস্যার কথা শুনলেই সাথে সাথে ছুটে যেতেন। জীবনের প্রতিটি স্তরে উদারতার বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়ে তিনি মানুষের মন জয় করেছেন। এরই প্রেক্ষিতে তিনি ‘‘নাঙ্গলকোটের মাটি ও মানুষের নেতা’’ হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন। জননেতা-জনতার নেতা হিসেবে তিনি নাঙ্গলকোটবাসীর হৃদয়ে ছিলেন, এখনো আছেন। মৃত্যুর ১৩বছরেও নাঙ্গলকোটে জয়নাল আবেদীন ভুঁইয়ার আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তা রয়েছে।

এখনো এখানকার সকল শ্রেণী পেশার মানুষ জয়নাল আবেদীন ভুঁইয়াকে শ্রদ্ধার ও ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে দেখেন। একজন জনদরদী-দেশপ্রেমিক রাজনীতিবিদ হিসেবে তিনি নাঙ্গলকোটবাসীর হৃদয়ে চিরঞ্জীব। আর এ জন্যই নাঙ্গলকোটের সকল শ্রেণী পেশার মানুষ জয়নাল আবেদীন ভুঁইয়ার স্মৃতি রক্ষার্থে তাঁর নামে কমপক্ষে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, স্টেডিয়াম ও গুরুত্বপূর্ণ সড়কের নামকরণের দাবি জানান।

আরও পড়ুন