কুমিল্লা
শনিবার,৪ জুলাই, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
২০ আষাঢ়, ১৪২৭ | ১২ জিলক্বদ, ১৪৪১
শিরোনাম:
করোনায় কুমিল্লার ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু সংখ্যালঘু মুক্তিযোদ্ধা রনজিৎকে জানে মারার হুমকি দিয়ে বিএনপি নেতার হামলা কুমিল্লায় নতুন করে ৭৯ জনের করোনা শনাক্ত, আক্রান্ত বেড়ে ২৬৮১ মুরাদনগরে সমকাল প্রতিনিধি বেলাল উদ্দিন করোনায় আক্রান্ত কুমিল্লায় অর্ধশত মসজিদের শতাধিক ব্যাটারি চুরি! কুমিল্লায় ২৪ ঘন্টায় ১৩১ জনের করোনা সনাক্ত, ৭ জনের মৃত্যু মনোহরগঞ্জে সাংবাদিককে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা, ধরাছোঁয়ার বাইরে আসামীরা ফটোল্যাব ব্যবহারকারীর তথ্য যাচ্ছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থায়! কুমিল্লায় একদিনে রেকর্ড ১৬১ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৩ অবশেষে মিললো জীবন রক্ষাকারী প্রথম ওষুধ

৪৯ দিনে কোরআনের হাফেজ হলেন কুমিল্লার বিস্ময় শিশু রাফসান!

৯ বছর বয়সী বিস্ময় শিশু হাফেস রাফসা / ছবি: নতুন কুমিল্লা

মাত্র ৪৯ দিনে কোরআনের হাফেজ হললেন ৯ বছর বয়সি শিশু কুমিল্লা রাফসান। সে কুমিল্লা মহানগরীর ইবনে তাইমিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের হিফজ বিভাগের ছাত্র। রাফসান জেলার মনোহরগঞ্জের বিপুলাসার ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের প্রবাসী বাহার উদ্দিনের ছেলে।

রাফসানের শিক্ষক হাফেজ জামাল উদ্দিন রবিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেলে নতুন কুমিল্লাকে এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, রাফসান দেশের বিস্ময় বালক। তার মেধা সাধারণের চাইতে অনেক বেশি। সে ৪৯ দিনে কোরানের ৩০ পারাই মুখস্ত করেছে।

শিক্ষক হাফেজ জামাল উদ্দিন আরও বলেন, গত বছরের নভেম্বরের ২ তারিখে রাফসানকে কোরআন শরিফের ৩০ তম পারা মুখস্ত করতে দেই। দিন শেষে রাফসান গড়গড় করে ৩০তম পারাটি মুখস্ত বলে দেয়। এতে অবাক হলেও হয়ত আগে থেকেই পারাটি তার মুখস্ত ছিল ভেবে পরের দিন আবার তাকে প্রথম পারা মুখস্ত করতে দেই।

একইভাবে সে দ্রুত ওই পারাটিও সবক দিয়ে দেয়। এভাবে কোরআনের পাঁচটি পারা কয়েক দিনের মধ্যে মুখস্ত করে দিলে আমরা নিশ্চিত হই যে রাফসান আর সব শিশু থেকে আলাদা। তার মুখস্তবিদ্যা প্রখর। এভাবে প্রতিদিনই এক পারা করে মুখস্ত করে যেতে থাকে ও পেছনের আয়াতগুলো ঝালিয়ে নিতে থাকে রাফসান। সে এখন পুরো কোরআন শুনানি চলছে বলে জানান শিক্ষক জামাল উদ্দিন।

রাফসানের মা শাহিনা আক্তার জানান, ২০১৭ সালে ছেলে রাফসানকে নুরানি দ্বিতীয় বর্ষে ভর্তি করে। প্রথম শ্রেণির বই পড়ার সঙ্গে দেখে দেখে কোরআন পড়া শেষ করে। এর পরই ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে তাকে একই মাদ্রাসায় হিফজ বিভাগে ভর্তি করা হয়। তার এই ফলাফলে মা সহ খুশি হয়েছেন মনোহরগঞ্জের কাশিপুর গ্রামের সবাই। দু’হাত তোলে দোয়া করছেন সে যেন বড় আলেম হন। মুঠোফোনে এমনটি জানয়েছেন রাফসানের মা শাহিনা আক্তার।

আরও পড়ুন