কুমিল্লা
শনিবার,২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৬ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

৪৯ দিনে কোরআনের হাফেজ হলেন কুমিল্লার বিস্ময় শিশু রাফসান!

৯ বছর বয়সী বিস্ময় শিশু হাফেস রাফসা / ছবি: নতুন কুমিল্লা

মাত্র ৪৯ দিনে কোরআনের হাফেজ হললেন ৯ বছর বয়সি শিশু কুমিল্লা রাফসান। সে কুমিল্লা মহানগরীর ইবনে তাইমিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের হিফজ বিভাগের ছাত্র। রাফসান জেলার মনোহরগঞ্জের বিপুলাসার ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের প্রবাসী বাহার উদ্দিনের ছেলে।

রাফসানের শিক্ষক হাফেজ জামাল উদ্দিন রবিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেলে নতুন কুমিল্লাকে এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, রাফসান দেশের বিস্ময় বালক। তার মেধা সাধারণের চাইতে অনেক বেশি। সে ৪৯ দিনে কোরানের ৩০ পারাই মুখস্ত করেছে।

শিক্ষক হাফেজ জামাল উদ্দিন আরও বলেন, গত বছরের নভেম্বরের ২ তারিখে রাফসানকে কোরআন শরিফের ৩০ তম পারা মুখস্ত করতে দেই। দিন শেষে রাফসান গড়গড় করে ৩০তম পারাটি মুখস্ত বলে দেয়। এতে অবাক হলেও হয়ত আগে থেকেই পারাটি তার মুখস্ত ছিল ভেবে পরের দিন আবার তাকে প্রথম পারা মুখস্ত করতে দেই।

একইভাবে সে দ্রুত ওই পারাটিও সবক দিয়ে দেয়। এভাবে কোরআনের পাঁচটি পারা কয়েক দিনের মধ্যে মুখস্ত করে দিলে আমরা নিশ্চিত হই যে রাফসান আর সব শিশু থেকে আলাদা। তার মুখস্তবিদ্যা প্রখর। এভাবে প্রতিদিনই এক পারা করে মুখস্ত করে যেতে থাকে ও পেছনের আয়াতগুলো ঝালিয়ে নিতে থাকে রাফসান। সে এখন পুরো কোরআন শুনানি চলছে বলে জানান শিক্ষক জামাল উদ্দিন।

রাফসানের মা শাহিনা আক্তার জানান, ২০১৭ সালে ছেলে রাফসানকে নুরানি দ্বিতীয় বর্ষে ভর্তি করে। প্রথম শ্রেণির বই পড়ার সঙ্গে দেখে দেখে কোরআন পড়া শেষ করে। এর পরই ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে তাকে একই মাদ্রাসায় হিফজ বিভাগে ভর্তি করা হয়। তার এই ফলাফলে মা সহ খুশি হয়েছেন মনোহরগঞ্জের কাশিপুর গ্রামের সবাই। দু’হাত তোলে দোয়া করছেন সে যেন বড় আলেম হন। মুঠোফোনে এমনটি জানয়েছেন রাফসানের মা শাহিনা আক্তার।

আরও পড়ুন