কুমিল্লা
সোমবার,৩০ জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৬ মাঘ, ১৪২৯ | ৭ রজব, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

৪৯ দিনে কোরআনের হাফেজ হলেন কুমিল্লার বিস্ময় শিশু রাফসান!

৯ বছর বয়সী বিস্ময় শিশু হাফেস রাফসা / ছবি: নতুন কুমিল্লা

মাত্র ৪৯ দিনে কোরআনের হাফেজ হললেন ৯ বছর বয়সি শিশু কুমিল্লা রাফসান। সে কুমিল্লা মহানগরীর ইবনে তাইমিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজের হিফজ বিভাগের ছাত্র। রাফসান জেলার মনোহরগঞ্জের বিপুলাসার ইউনিয়নের কাশিপুর গ্রামের প্রবাসী বাহার উদ্দিনের ছেলে।

রাফসানের শিক্ষক হাফেজ জামাল উদ্দিন রবিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেলে নতুন কুমিল্লাকে এ তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, রাফসান দেশের বিস্ময় বালক। তার মেধা সাধারণের চাইতে অনেক বেশি। সে ৪৯ দিনে কোরানের ৩০ পারাই মুখস্ত করেছে।

শিক্ষক হাফেজ জামাল উদ্দিন আরও বলেন, গত বছরের নভেম্বরের ২ তারিখে রাফসানকে কোরআন শরিফের ৩০ তম পারা মুখস্ত করতে দেই। দিন শেষে রাফসান গড়গড় করে ৩০তম পারাটি মুখস্ত বলে দেয়। এতে অবাক হলেও হয়ত আগে থেকেই পারাটি তার মুখস্ত ছিল ভেবে পরের দিন আবার তাকে প্রথম পারা মুখস্ত করতে দেই।

একইভাবে সে দ্রুত ওই পারাটিও সবক দিয়ে দেয়। এভাবে কোরআনের পাঁচটি পারা কয়েক দিনের মধ্যে মুখস্ত করে দিলে আমরা নিশ্চিত হই যে রাফসান আর সব শিশু থেকে আলাদা। তার মুখস্তবিদ্যা প্রখর। এভাবে প্রতিদিনই এক পারা করে মুখস্ত করে যেতে থাকে ও পেছনের আয়াতগুলো ঝালিয়ে নিতে থাকে রাফসান। সে এখন পুরো কোরআন শুনানি চলছে বলে জানান শিক্ষক জামাল উদ্দিন।

রাফসানের মা শাহিনা আক্তার জানান, ২০১৭ সালে ছেলে রাফসানকে নুরানি দ্বিতীয় বর্ষে ভর্তি করে। প্রথম শ্রেণির বই পড়ার সঙ্গে দেখে দেখে কোরআন পড়া শেষ করে। এর পরই ২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে তাকে একই মাদ্রাসায় হিফজ বিভাগে ভর্তি করা হয়। তার এই ফলাফলে মা সহ খুশি হয়েছেন মনোহরগঞ্জের কাশিপুর গ্রামের সবাই। দু’হাত তোলে দোয়া করছেন সে যেন বড় আলেম হন। মুঠোফোনে এমনটি জানয়েছেন রাফসানের মা শাহিনা আক্তার।

আরও পড়ুন