কুমিল্লা
শুক্রবার,২৩ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ বৈশাখ, ১৪২৮ | ১০ রমজান, ১৪৪২

সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফরের সম্পত্তি থেকে জরিমানা আদায়ের নির্দেশ

কাজী জাফর আহমেদ/ ফাইল ছবি

সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমেদের মৃত্যুর কারণে তার ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ বাতিল করেছেন হাইকোর্ট। তবে তাকে জরিমানা করা ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা আদায়ের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২৯ জানুয়ারি) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ হয়।

আদালতে দুদকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশিদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না। আর আসামির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. হাবিবুল ইসলাম ভূঁইয়া।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, এরশাদ সরকারের আমলে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে নিজ ক্ষমতার অপব্যবহার করে ও পরস্পর যোগসাজশে সরকারি ৯১ দশমিক ৫৮০ মেট্রিক টন গম ও ৪৬ হাজার মেট্রিক টন চাল আত্মসাত করেন কাজী জাফর আহমেদ। ওই গম ও চালের তৎকালীন সরকারি মূল্য ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৫৬৫ টাকা। পরে বিষয়টি তদন্ত করে ১৯৯৪ সনের ১২ জানুয়ারি খুলনা জেলা দুর্নীতি দমন ব্যুরোর তৎকালীন পরিদর্শক মো. মহীদুল ইসলাম মোল্যা খুলনা দিঘলিয়া থানায় তিন জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

কাজী জাফর ছাড়াও মামলার অন্য দুই আসামি হলেন, খুলনা জেলার দিঘলিয়া উপজেলার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মহিউদ্দিন ও সেনহাটি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান গাজী মো. সিরাজ।

মামলাটির বিচার শেষে খুলনা বিভাগীয় স্পেশাল জজ ১৯৯৯ সনের ২ নভেম্বর রায় ঘোষণা করেন। রায়ে কাজী জাফর আহমেদকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৯ লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। অনাদায়ে আরও চার বছরের কারাদণ্ড দেন। এরপর সেই রায়ের বিরুদ্ধে কাজী জাফর আহমেদ হাইকোর্টে আপিল করেন।

কিন্তু আপিলটি শুনানিতে আসার আগেই কাজী জাফর আহমেদ ২০১৫ সালের ২৭ আগস্ট মারা যান। তার মৃত্যুর প্রায় তিন বছর পর আপিল আবেদনটি শুনানির জন্য উঠলে আদালত কাজী জাফরকে বিচারিক আদালতের দেওয়া কারাদণ্ডাদেশ বাতিল করেন এবং জরিমানার অর্থ আদায়ের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।

আরও পড়ুন