কুমিল্লা
সোমবার,১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
১ আশ্বিন, ১৪২৬ | ১৬ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English

১৮ সালের প্রশ্নে এসএসসি পরীক্ষা দিলো ১১৩ পরীক্ষার্থী!

কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে এসএসসি বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষায় ১১৩ পরীক্ষার্থী ২০১৮ সালের পুরাতন প্রশ্ন দিয়ে পরীক্ষা নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় তদন্ত করতে উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন। শনিবার (২ ফেব্রুয়ারি) বাঞ্ছারামপুর এস.এম পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাঞ্ছারামপুর এস.এম পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় বাঞ্ছারামপুর-১ কেন্দ্রে এসএসসি পরীক্ষায় অংশহগ্রণ করেন ১ হাজার ৬০ পরীক্ষার্থী। এর মধ্যে শনিবার বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষায় ১১৩ শিক্ষার্থীর মধ্যে বহুনির্বাচনি ও সৃজনশীল ২০১৮ সালের পুরাতন প্রশ্ন বিতরণ করা হয়। পরীক্ষা শেষে বিষয়টি বুঝতে পারলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত হন কয়েকজন পরীক্ষার্থী।

বিষয়টি জানার পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষয়টি তদন্ত করতে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবু তৌহিদকে আহ্বায়ক, সমাজসেবা কর্মকর্তা সুরুভী আফরোজ ও সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা হাফিজুর রহমানকে সদস্য করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। । আগামী ৩ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন>> কুমিল্লায় ৪০ মিনিট দেরিতে প্রশ্ন দেয়ার ঘটনায় দুই তদন্ত কমিটি

নাম প্রকাশ না কারার শর্তে একাধিক শিক্ষার্থী জানান, পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে আগের প্রশ্ন বিতরণ করা হয়েছে জানালেও আমাদের কথার গুরুত্ব দেয়া হয়নি। পরে ইউএনও স্যারের কাছে গেলে স্যার আমাদের বিষয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যান সারের সঙ্গে কথা বলেছেন। আমরা এখন চিন্তিত। আমাদের কি হবে এটা ভেবে। যারা এমন করেছে তাদের শাস্তি চাই।

বাঞ্ছারামপুর এস.এম পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাধন শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব আতিকুর রহমান জানান, ‘বোর্ড থেকে ২০১৮ ও ২০১৯ সালের প্রশ্ন সরবরাহ করা হয়েছে। আমরা ৭ জন প্রশ্নগুলো দেখেছি। কিন্তু কিভাবে ২০১৮ সালের প্রশ্ন বিতরণ হলো এটা বুঝতে পারছিনা। এরই মধ্যে সৃজনশীলে ৪৩ জনেকে শনাক্ত করেছি। আগামীকাল নিশ্চিত হতে পারবো কত জনের মধ্যে ২০১৮ সালের প্রশ্ন বিতরণ করা হয়েছে।’

বাঞ্ছারামপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম জানান, ‘এস.এম পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৪৩ জন শিক্ষার্থী বাংলার সৃজনশীল ও তারও বেশি বহুনির্বাচনি বিষয়ে ২০১৮ সালের প্রশ্নের পরীক্ষা দিয়েছেন। এদের মধ্যে অনেক পরীক্ষার্থী আমার বিদ্যালয়ের।’

আরও পড়ুন>> কুমিল্লায় ৪০ মিনিট পর পাশের কেন্দ্র থেকে প্রশ্ন এনে ৫৭৬ জনের পরীক্ষা

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবু তৌহিদ জানান, ‘এস.এম পাইলট সারকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২০১৮ সালের প্রশ্ন দিয়ে বাংলা বিষয়ে বহুনির্বাচনি ও সৃজনশীল পরীক্ষা নেয়া হয়েছে। অনেকে ইউএনও স্যারের কাছে এসেছিলো। স্যার আমাকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বলেছেন।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম জানান, এস.এম পাইলট কেন্দ্রে বাংলা প্রথম পত্র বিষয়ে সৃজনশীল ৪৩ জন বহুনির্বাচনি ৭০ জন ২০১৮ সালের প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়েছেন। এদের মধ্যে অনেকেই আমার কাছে এসেছিল। আমি সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলেছি। এছাড়াও একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন