কুমিল্লা
বুধবার,২১ আগস্ট, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৬ ভাদ্র, ১৪২৬ | ১৮ জিলহজ্জ, ১৪৪০
Bengali Bengali English English

সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষা ও বাঙ্গালী সংস্কৃতির ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে

ফেব্রুয়ারী মাস আসলেই সারা দেশে একটা হইচই পড়ে যায়। কদর বেড়ে যায় বাংলা ভাষার। ইলেকট্রনিক মিডিয়া বিশেষ ভাবে ভাষা আন্দোলনের উপর নির্মিত নাটক ও চলচিত্র প্রচার করে এবং ভাষা সৈনিকদের সাক্ষাতকার সহ বিভিন্ন অনূষ্ঠাণের কার্যক্রম হাতে নেন। প্রিন্ট মিডিয়া ভাষা দিবস তথা শহীদ দিবস উপলক্ষে বিশেষ সংখ্যার আয়োজন করেন।নামী-দামী লেখক ও কবিদের স্মৃতি বিজড়িত গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ, নিবন্ধন ছাপে। লেখক ও কবি এবং প্রকাশকরা বই লেখা ও ছাপার কাজে মহাব্যস্ত থাকেন।বাংলা একাডেমীর প্রাঙ্গণে বসে একুশের বই মেলা।

যেটা এদেশের লেখক ও প্রকাশকদের প্রাণের মেলা। কারণ একুশের বই মেলাকে কেন্দ্র করে মোটা অঙ্কের একটা আয় তাদের পকেটে প্রবেশ করে। সারা দেশের বই প্রেমীরা ও ছুটে আসে বই মেলায়। পছন্দনীয় লেখকের দুই একটা বই কিনে নেওয়ার প্রত্যাশায়। প্রিয় লেখকের সাক্ষাত পেলে স্মৃতির পাতায় রেখে দেওয়ার জন্য অটোগ্রাফ নেয়। দিনব্যাপি মেলা প্রাঙ্গণে, লেখক, কবি, সাহিত্যিক, প্রবন্ধকার, ছড়াকার, গল্পকার, নাট্যকারের আলোচনা সভা ও আড্ডায় মুখরিত থাকে।

বিভিন্ন কর্মক্ষেত্রে অবদানের জন্য গুণী ব্যক্তিদেরকে একুশে পদক প্রদান করে কর্মের স্বীকৃতি দেওয়া হয়। সব মিলিয়ে বাঙালী তথা বাংলা ভাষায় যারা কথা বলে তাদের জীবনে এবং তাদের শিক্ষা সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে একুশ শব্দটি অত্যান্ত তাৎপর্যপূর্ণ। সামাজিক ও রাজনৈতিক কর্মকান্ডের ক্ষেত্রে ও একুশে ফেব্রুয়ারী একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় রয়েছে। এই মাসটি শেষ হয়ে গেলে বাকী ১১টি মাস আমরা সে খবর রাখি না।

ক্রমান্নয়ে একুশে ফেব্রুয়ারী তথা শহীদ দিবস আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসে রূপলাভ করেছে। সারা বিশ্বের মানুষ ভাষা দিবস হিসেবে এই দিনটিকে পালন করে। সর্বসাফল্য বুঝা যায় – এই দিনটি স্মরণীয় একটি দিন। কোন একটি দিন এমনি এমনি তাৎপর্যপূর্ণ হয় না এবং কেউ ইচ্ছা করলে একটি দিনকে একটি দিবসে রূপান্তির করতে পারে না। এর পেছনে থাকে সমষ্টিগত কিছু ত্যাগ এবং সমষ্টিগত প্রচেষ্টা। একুশ তথা একুশের ফেব্রুয়ারী এমনি একটি স্মরণীয় দিন। এই দিনে মায়ের মুখের ভাষা রক্ষার জন্য প্রাণ বিসর্জন দিতে হয়েছে।

আমার মায়ের ভাষা তথা বাঙালী জাতির প্রাণের ভাষা বাংলা। এই ভাষার জন্ম প্রায় আড়াই হাজার বছর পূর্বে হলেও তা রাষ্ট্রীয় ভাষায় মর্যাদা লাভ করে ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে রক্তের বিনিময়ে, প্রাণের বিনিময়ে,বাঙালীর রক্তে রাজ পথের কালো পিচ ঢালা রাস্তাকে লালে-লাল করে। কতিপয় সংগ্রামী তরুণের আত্মবলীদানের বিনিময়ে এই ভাষা মায়ের আসনে অতিষ্ঠিত হয়েছে।

পৃথিবীর ইতিহাসে এমন কোন নজির নেই যে ভাষার জন্য আন্দোলন করেছে,রক্ত দিয়েছে,প্রাণ দিয়েছে। একমাত্র বাঙালীরাই ভাষার জন্য আন্দোলন করে বিশ্বের বুকে অদ্বিতীয় একটি বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। যার পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৯৯ সালে মহান ২১ শে ফব্রুয়ারী পেয়েছে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি। আজ বাংলাদেশের ন্যায় পৃথিবীর অপরাপর দেশেও শ্রদ্ধার সঙ্গে এই দিবসটি উদযাপন করে। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল শ্রেণীর সকল জাতি মানুষ মায়ের ভাষাকে শ্রদ্ধা করে এবং মাতৃভাষা দিবস হিসেবে এই দিনটিকে পালন করে থাকে।

মা এবং মাতৃভাষা প্রতিটি মানব সন্তানের হৃদয়ের গহীনে লালিত-পালিত হয় মরন অবধি। তাই মায়ের ভাষা তথা মায়ের মুখের বুলিকে রক্ষার্থে প্রাণ বিসর্জন দিতে দ্বিধাবোধ করেনি বাঙালীরা। পৃথিবীর ইতিহাসে এটি একটি ব্যতিক্রমধর্মী ঘটনা। মায়ের মুখের বুলিকে রক্ষার্থে প্রাণ বিসর্জন দেওয়ার ঘটনা আর একটিও নেই। কোন ধন সম্পদ রক্ষার্থে কিংবা দেশ রক্ষার্থে নয় শুধু মাত্র মায়ের ভাষা কে আগলিয়ে ধরে রাখতে রক্ত ঝড়ানো ইতিহাসে একটি বিরল ঘটনা।

কিন্ত দূঃখজনক হলে ও সত্য যে, আমরা আমাদের অতীত ঐতিহ্য ভুলে যাচ্ছি। ভুলে যাচ্ছি ভাষা আন্দোলন কেন হয়েছিল, কি জন্য এতোগুলো মানূষ প্রাণ বিসর্জন দিল। ভুলে যাচ্ছি এই দিবসের মুল মন্ত্র কি ছিল- এর তাৎপর্য ও গুরুত্ব-ই বা কতটুকু। আমরা আজ স্বার্থসিদ্ধির অন্বেষনের পিছনে ধাবিত হচ্ছি। বাংলা ভাষা ও আমাদের সংস্কৃতিকে পদতলে পিষে অপসংস্কৃতিকে গলার মালা হিসেবে ধারন করছি এবং ভিনদেশী ভাষা চর্চায় মত্ত হয়ে গেছি। ছূড়ে ফেলে দিয়েছি আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতিকে। চলনে বলনে আমরা ভিনদেশীদের ভাষা ও সংস্কৃতিকে আঁকড়িয়ে ধরতে শুরু করছি।ফলে ইংরেজী ও হিন্দি ভাষা চর্চার হিড়িক পড়েছে।

হিন্দি গান ও ছবি এবং টেলিভিশনের অনুষ্ঠাণ দিন দিন বাংলাদেশী তথা বাঙালীদের কে গ্রাস করে ফেলছে। হিন্দি ছবি ছাড়া এবং হিন্দি গান ছাড়া আর কিছুই ভাল লাগে না। আর ইংরেজীর কথা বলে তো লাভ নেই। দুই-চার ছত্র ইংরেজী কেউ বলতে পারলে তার সাথে লাগে কে। ইংরেজী যে বলতে পারে সে তো আর মাটিতে থাকে না আকাশে উড়ে। তাই বলে আমি হিন্দি ভাষা এবং ইংরেজী ভাষা চর্চা করার বিরোধী না। তবে যথাযথ জায়গায় যথাযথ ভাষা ব্যবহার করার কথা বলছি। চলতে ফিরতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেখা যায় সাধারণ মানুষের সাথে কিছু কিছু শিক্ষিত ব্যক্তি ইংরেজীতে কথা বলে অথচ যাদের সাথে বলে তারা কিছুই বুঝে না।

আমার কথা হল যেখানে ইংরেজী ভাষা বলা প্রয়োজন তাদের সাথে ইংরেজী বল এবং যেখানে হিন্দি বলা প্রয়োজন সেখানে হিন্দি বল,তাতে কোন সমস্যা নেই। কিন্ত অনেক সময় দেখা যায়, দেমাগ দেখানোর জন্য,তাকাব্বরী করার জন্য ভিনদেশী ভাষা ও সংস্কৃতির লালন-পালন করা হয় এবং তার চর্চা করা হয়; তা কতটুকু যুক্তিসঙ্গত। এভাবে প্রতিদিন আমাদের নিজস্ব ভাষা এবং সংস্কৃতির গলায় ছুরি চালিয়ে হত্যা করছে। আধুনিকতার নামে আমরা আজ আমাদের নিজেদের সংস্কৃতির ঐতিহ্য হারাতে বসছি। এই ভাষা আমার অস্থিত্ব; এর সাথে আমার আত্মার বন্ধন রয়েছে। কিভাবে আমরা প্রতিনিয়ত বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির অঙ্গগুলোকে কেটে ফেলছি। নব্যতার নামে আমাদের ভাষা ও সংস্কৃতির উপকরণ গুলোকে ধ্বংস করে ফেলছি।

কবি আল মাহমুদ বলেছেন “ফেব্রুয়ারী বাংলা ভাষা ও জাতীয় বিপ্লবের বীজমন্ত্র।” মুলত ফেব্রæয়ারী ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে বাঙ্গালী জাতি নিজেদের অধিকার আদায় করার উৎসাহ উদ্ধীপনা লাভ করেছে। ফলে ১৭৯১ সালে সকল অধিকার আদায়ের সংগ্রামে জয় লাভ করতে সক্ষম হয়েছে। যে চেতনায় আমাদের পূর্ববর্তীরা ভাষার জন্য আন্দোলন করেছে,স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছে-আজ আমরা সেই চেতনা শক্তি হারিয়ে অসহায় হয়ে আছি। আমাদের বর্তমান প্রজন্ম জানে না যে, ভাষা আন্দোলনটা কি ছিল? তারা জানে ভাষা আন্দোলন শুধু একটি ভাষার জন্য হয়েছিল।

এটা যে মুলত অধিকার আদায়ের আন্দোলন,নিজেদের সাহিত্য সংস্কৃতি এবং অস্থিত্ব রক্ষার আন্দোলন তা আজ অবদি কারো মগজে ধরেনি। তাই অচেতন হয়ে আছি। ফেব্রুয়ারী ২১তারিখ শহীদ মিনারে ফুল দিলাম আর গান গাইলাম-আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারী আমি কি ভুলিতে পারি। এই সুর কণ্ঠ থেকে বের হওয়ার পর আর জায়গায় স্থির থাকেনা, হাওয়ায় বিলীন হয়ে যায়। তাই আমরা আজ স্তিমিত হয়ে পড়েছি।আমাদের চেতনা শক্তি নেই, হক কথা বলার মতো সাহস ও মনোবল নেই।

আবার ফিরে যেতে হয় কবি আল মাহমুদের কথায়-“ফেব্রুয়ারী বাংলা ভাষা ও জাতীয় বিপ্লবের বীজমন্ত্র।” এই বীজকে আংকুরিত গমন করতে হবে- জাতীয় বিপ্লবের মাধ্যমে আমাদের সকল অধিকার আদায়ের পদক্ষেপ নিতে হবে। শেষ কথায় বলা যায় যে, ফেব্রুয়ারী মানুষকে অধিকার আদায়ের অনুপ্রেরণা যোগায়,উৎসাহ উদ্দীপনা বৃদ্ধি করে। এই দিনে শপথ নিতে হবে- ভিনদেশী ভাষা এবং বিজাতীয় সংস্কৃতি পরিত্যাগ করার মানষিকতা তৈরী করতে হবে। সর্বক্ষেত্রে বাংলা ভাষার ও বাঙ্গালী সংস্কৃতির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

লেখক:  সাধারণ সম্পাদক, বুড়িচং প্রেস ক্লাব, কুমিল্লা।
E-mail: kazi.khurshed77@gmail.com

আরও পড়ুন