কুমিল্লা
বুধবার,১৬ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২ আষাঢ়, ১৪২৮ | ৫ জিলকদ, ১৪৪২

চৌদ্দগ্রামে প্রতিবন্ধী সুমনকে ঘর নির্মাণে এনাম ফাউন্ডেশনের অর্থ প্রদান

জন্ম থেকেই প্রতিবন্ধী সুমন (৩২)। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নের বশকরা গ্রামে তার বাড়ি। প্রতিদিনই সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত হামাগুড়ি দিয়ে উপজেলা সদর ও আশেপাশের এলাকায় ভিক্ষাবৃত্তি করেন। রোধ, বৃষ্টি কিংবা ঝড়-তুফান মোকাবেলা করেই চলে তার জীবন সংগ্রাম। শারীরিক ও মানসিক নানাবিধ সীমাবদ্ধতাকে পিছনে ফেলে সুমনের এই ছুটে চলা বাঁচতে শিখিয়েছে পরিবারেরও ৪-৫ সদস্যকে।

২ বোন ও মায়ের পরিবারে একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি এই সুমন। প্রতিদিন বাজারে ভিক্ষাবৃত্তি করে যা আয় হয় তা দিয়ে কোনভাবে খেয়ে পড়ে টানাপড়েনের মধ্যে চলছে তাদের সংসার। পরিবার নিয়ে বসবাস করেন জরাজীর্ণ একটি ঘরে। ঘরের অনেকাংশেই রাতে পূর্ণিমার চাঁদ দেখা যায়। এছাড়াও বর্ষাকালে ঝর্ণার মতোই ঘরটির কিছু অংশে প্রবাহিত হয় বৃষ্টির পানি।

প্রতিদিনের ন্যায় গত মঙ্গলবার হামাগুড়ি দিয়েই ভিক্ষাবৃত্তির একপর্যায়ে এনাম ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা কাজী এনামুল হককে চৌদ্দগ্রাম বাজারে দেখেই জড়িয়ে ধরেন এবং তার ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার বায়না ধরেন সুমন। অনেকক্ষন সময় নিয়ে শোনান তার জীবন সংগ্রামের কথা। সুমনের বায়না এবং দুঃখের কথা শোনে সরেজমিনে পরিদর্শনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে পরদিন বুধবার সকালেই কাজী এনামুল হক ছুটে যান বসকরায় সুমনের বসতঘরে।

বসতঘর ও পরিবারটির জরাজীর্ণতার পরিস্থিতি দেখে বুধবার দুপুরেই সুমনকে বাড়িতে ঢেকে নিয়ে নতুন ঘর নির্মাণের বিভিন্ন আনুসাঙ্গিক সরঞ্জাম ক্রয়ে নগদ ৫০ হাজার টাকা হস্তান্তর করেন কাজী এনাম ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও পৌরসভার বিশিষ্ট সমাজসেবক নিউইয়র্ক প্রবাসী কাজী এনামুল হক।

পাশাপাশি তিনি প্রতিশ্রুতি দেন ঘর নির্মাণ ও ফার্ণিচার ক্রয়ে পর্যাপ্ত সহযোগীতার। ইতিমধ্যেই সুমনের সাথে স্বাক্ষাতের শুরু, ঘরের জরাজীর্ণ পরিস্থিতি ও সুমনের বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। কাজী এনাম ফাউন্ডেশনের মধ্যস্থতায় অনেকেই সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে সুমনের ঘর নির্মাণ কাজে। এতে করে সুমন স্বপ্ন দেখছে প্রতিবেশীদের ন্যায় একটি সুন্দর বসতঘরের। স্বপ্ন দেখছে নতুন করে বাঁচার এবং একটি সুন্দর আগামীর।

আরও পড়ুন